নানা রোষের জেরেই কি খুন হতে হল শ্রীনুকে? শ্রীনু হত্যা নিয়ে উঠছে একাধিক প্রশ্ন

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2017 07:43 PM IST
নানা রোষের জেরেই কি খুন হতে হল শ্রীনুকে? শ্রীনু হত্যা নিয়ে উঠছে একাধিক প্রশ্ন
File Photo
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2017 07:43 PM IST

#খড়গপুর: সামান্য পান-বিড়ি-সিগারেটের দোকানদার থেকে খড়গপুরের ডন। রেলের ওয়াগন, লোহার যন্ত্রাংশের কালো কারবার, জমি দখল-সহ একাধিক ব্যবসায় খড়গপুরে নিজের একছত্র অধিকার তৈরি করেছিল শ্রীনু। একে একে সরিয়ে দিয়েছিল সব প্রতিদ্বন্দ্বীকেই। সেই ব্যবসায়িক শত্রুতার জেরেই কী খুন হতে হল শ্রীনুকে? কারা টার্গেট করেছিল তাকে?

লোহার কালো কারবার তো ছিলই। ইদানিং জাতীয় সড়কের ধারে জমি কেনাবেচাতেও মন দিয়েছিল খড়গপুরের মাফিয়া শ্রীনু নাইডু। একে একে সব প্রতিদ্বন্দ্বীকে হঠিয়ে দিয়েছিল সে। রাজনীতিতেও ঝুঁকেছিল শ্রীনু। পুরভোটের পর বিজেপি ছেড়ে সে যোগ দিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসে। সেই শত্রুতার জেরেই কি খুন? উঠছে নানা প্রশ্ন।

জমি ব্যবসায় শত্রুতা?

- লোহার কালো কারবারের পাশাপাশি শ্রীনু শুরু করেছিল জমি ব্যবসা

- জাতীয় সড়কের ধারে প্রচুর জমি দখল করা শুরু করে সে

- একাধিক বিতর্কিত জমিও সে দখল করে নেয় বলে অভিযোগ

- সেখান থেকেই প্রচুর টাকা রোজগার ছিল শ্রীনুর

- তাতে কোনও শত্রুতার জেরেই কি খুন হল শ্রীনু?

শুধু জমি ব্যবসা নয়, প্রশ্ন উঠেছে রাজনীতিতে শ্রীনুর দলবদল নিয়েও।

রাজনৈতিক শত্রুতায় খুন?

- প্রথমে শাসকদলেই ছিল শ্রীনু

- বছর ২ আগে সে বিজেপিতে যোগ দেয়

- শ্রীনুর নেতৃত্বে পুরসভা নির্বাচনে বিজেপি কয়েকটি আসনও পায়

- এরপর শ্রীনু দল বদলে তৃণমূলে যোগ দেয়

- রাজনৈতিক শত্রুতার বশে কি শ্রীনুকে খুন করা হতে পারে?

নতুন নতুন জায়গা থেকে শ্রীনু তোলাবাজি চালাত বলে অভিযোগ। লোহার কালো কারবারে শ্রীনুর প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল বাসব রামবাবু।

কালো ব্যবসার শত্রুতায় খুন?

- অভিযোগ, খড়গপুর আইআইটি-র ভিতরে মেডিক্যাল কলেজ ও সিমেন্ট কারখানা থেকে মোটা তোলা আদায় করত শ্রীনু

- এক্ষেত্রে কি নতুন কোনও প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরি হয়েছিল তার?

- লোহার কালো কারবারে রামবাবুকে অনেক পিছনে ফেলে দিয়েছিল শ্রীনু

- তার দাপটে খড়গপুরের অন্যান্য মাফিয়ারাও মাথা তুলতে পারেনি

- কালো ব্যবসার শত্রুতা থেকেই কি শ্রীনুকে খুন?

এর আগেও তিন বার শ্রীনুর ওপর হামলা হয়। কিন্তু, বরাত জোরে প্রতিবারই বেঁচে ফিরেছিল সে। ধর্মা ছিল তার প্রাণের বন্ধু। তাকে বারো হাজার টাকা মাস মাইনে দিয়ে সে দেহরক্ষী হিসেবে নিয়োগ করেছিল। শ্রীনুর পুরনো সহযোগীরাও সন্দেহের বাইরে নয়। খড়গপুরের মাটি দখল করতে তাদেরই কেউ কি সরিয়ে দিল ডনকে? উঠছে প্রশ্ন।

First published: 07:43:28 PM Jan 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर