চাঁদার টাকা দিতে না পারায় স্বামী-মেয়ের সামনেই গৃহবধূকে ধর্ষণ !

Jun 14, 2017 06:58 PM IST | Updated on: Jun 14, 2017 06:58 PM IST

#বিষ্ণুপুর: এলাকায় নতুন বাড়ি কিনে থাকতে এসেছেন। অথচ তোলা দেবেন না। তাই আবার হয় না কী? তাই পাড়ার নতুন বাসিন্দাদের কাছে বিশাল অঙ্কের টাকা দাবি করে বসে এলাকার দুই দাদা। টাকা দিতে না পারায় একেবারে হাতে গরম শাস্তি। বাড়িতে ঢুকে স্বামীর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে দুই মেয়ের সামনেই স্ত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বিষ্ণুপুরে। গ্রেফতার দুই অভিযুক্ত। ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

এটাই নাকি চল বিষ্ণপুরের রসপুঞ্জে। পাড়ায় নতুন কেউ এলেই তোলা দিতে হবে। সমাজবিরোধীদের আবদার না মেটালেই শাস্তি। তবু সকলেই পুলিশের অধরা।

চাঁদার টাকা দিতে না পারায় স্বামী-মেয়ের সামনেই গৃহবধূকে ধর্ষণ !

মঙ্গলবার এরকমই এক ঘটনার সাক্ষী থাকল কাজিরহাট গ্রাম। এখানে বাড়ি কেনেন এক দম্পতি। পাঁচদিন আগেই দুই মেয়েকে নিয়ে থাকতে আসেন তাঁরা। তারপর থেকেই তোলা চেয়ে চলছিল হুমকি। টাকা দিতে না পারায় বাড়ছিল চাপ।

মঙ্গলবার গভীর রাতে বাড়ির দরজা ভেঙে ভিতরে ঢোকে দুই যুবক। স্বামীর মাথায় আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে দুই মেয়ের সামনেই মহিলাকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। পরে স্বামীকে পাশের ঘরে আটকে রাখে তারা। এরপরই পাঁচিল টপকে চম্পট দেয়।

মাঠের মধ্যে বাড়ি। আশপাশ ফাঁকা। মহিলার চিৎকারে কাছের একটি বিয়েবাড়ি থেকে চলে আসে লোকজন।স্থানীয়দের সঙ্গে নিয়ে একটি জলাজমির ঝোপের মধ্যে থেকে অভিযুক্ত সুরজিত প্রামাণিককে গ্রেফতার করে পুলিশ। আরেক অভিযুক্তকে গ্রেফতারের দাবিতে শুরু হয় বিক্ষোভ। বুধবার আমতলা বাসস্ট্যান্ড থেকে ধরা পড়ে মূল অভিযুক্ত নিতাই সর্দারকে।

নির্যাতিতাকে প্রথমে আমতলা গ্রামীণ হাসপাতাল। পরে এমআর বাঙ্গুরে ভরতি করা হয়। উত্তেজিত জনতা দুই যুবকের বাইকে আগুন ধরিয়ে দেয় ।পুলিশ সূত্রের খবর, ঘটনার কথা স্বীকার করেছে ধৃতরা। ঘটনার সময়ে মদ্যপ অবস্থায় ছিল তারা। ধৃত দুজনই এলাকায় সমাজবিরোধী বলে পরিচিত। চুরি, ছিনতাই, তোলাবাজি। ঝুলিতে নানা কীর্তি। তবু পুলিশের খাতায় নাম নেই। কেন এত নিষ্ক্রিয় পুলিশ? তোলাবাজদের সঙ্গে গোপন যোগসাজোশ ? না কী অন্য কিছু? মঙ্গলবার ঘটনায় ফের উঠে এল সেই প্রশ্নটা।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES