পারিবারিক বিবাদে পুলিশ ও কাউন্সিলরের ‘পঞ্চায়েতি’

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 24, 2017 11:45 AM IST
পারিবারিক বিবাদে পুলিশ ও কাউন্সিলরের ‘পঞ্চায়েতি’
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 24, 2017 11:45 AM IST

#নদিয়া: মদ খেয়ে স্ত্রী-মেয়েকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা, উল্টে মহিলাকেই থানায় নিয়ে গেল পুলিশ ৷ পারিবারিক বিবাদের মধ্যে ঢুকলেন শাসকদলের কাউন্সিলর। তাঁর কথাতেই এক মহিলাকে তিনদিন আটকে রাখার পর, সাদা কাগজে সই করিয়ে ছাড়ল পুলিশ। নদিয়ার শান্তিপুরের লঙ্কাপাড়ায় ঘটনায় এরমধ্যেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। রাণাঘাটের এসডিপিও ও নদিয়ার পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন পৌলমী ধোনি নামে ওই মহিলা।

ঘটনার সূত্রপাত দোলের দিন। বারো বছর আগে বিয়ে হলেও জুয়াড়ি স্বামী বিশ্বজিতের সঙ্গে কোনওভাবেই বনিবনা ছিল না পৌলমীর। দোলের দিন তা চরম আকার নেয়। অভিযোগ, মদ খেয়ে স্ত্রী ও মেয়েকে কেরোসিনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে বিশ্বজিৎ। খবর যায় উনিশ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিভাস ঘোষ ও শান্তিপুর থানায়। এরপরই শুরু পুলিশের দাদাগিরি। ঘরোয়া পোশাকেই পৌলমী দেবীকে টানতে টানতে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

এরপর থানা থেকেই তৃণমূল কাউন্সিলর বিভাস ঘোষকে ফোন করে অভিযুক্ত ASI জয় দাস। কাউন্সিলরের সাফাই, তিনি একজন জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করেছেন মাত্র।

গোটা ঘটনায় আতঙ্কিত পৌলমী দেবী। ন’বছরের মেয়েকে নিয়ে কীভাবে থাকবেন, সেটাই ভেবে পাচ্ছেন না তিনি। অভিযোগ নেয়নি শান্তিপুর থানা। তাই বাধ্য হয়ে রানাঘাটের এসডিপিও ও নদিয়ার পুলিশ সুপারের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি।

First published: 11:45:44 AM Mar 24, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर