শিলদায় মাওবাদী হানায় শহীদদের সপ্তম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 05:01 PM IST
শিলদায় মাওবাদী হানায় শহীদদের সপ্তম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 05:01 PM IST

#শিলদা: শিলদা ইফআর ক্যাম্পে মাওবাদীদের আক্রমণে নিহত শহিদ জওয়ানদের স্মৃতিতর্পণ ও শোক প্যারেড সহ নানা অনুষ্ঠান পালন করল ঝাড়্গ্রাম পুলিশ জেলা।

এছাড়া পুলিশের উদ্যোগে ম্যারাথন দৌড়, সিআরপিএফ বনাম ঝাড়গ্রাম পুলিশের ভলিবল, স্থানীয় দুঃস্থ মানুষজনদের বস্ত্রবিতরণ, দুঃস্থ মানুষদের বসিয়ে মধ্যাহ্নভোজনের আয়োজন করা হয়েছিল।

বুধবার শিলদার ইএফআর ক্যাম্প হামলার সপ্তমবর্ষ পুর্তি উপলক্ষে হাজির ছিলেন রাজ্য পুলিশের আইজি ( পশ্চিমাঞ্চল) রাজীব মিশ্রা, ডিআইজি ( মেদিনীপুর রেঞ্জ) বাস্তব বৈদ্য সহ জেলা পুলিশ ও সিআরপিএফের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা। এদিন আইজি পশ্চিমাঞ্চল রাজীব মিশ্রা শিলাদার যে ইএফআর ক্যাম্পে হামলা চালিয়েছিল মাওবাদীরা সেই ক্যাম্পে অস্থায়ী শহিদবেদীতে মাল্যদান করেন।

পরে বর্তমান রাজ্যপুলিশের ক্যাম্পে শহিদের স্মৃতির উদ্দেশ্য ২৪ টি গাছে জল দেন। আইজি বলেন, বাংলায় মাওবাদী নেই, তবে যেটুকু মাওবাদী উগ্রপন্থী কার্যকলাপ চলছে, তা সবই সীমান্তের ওপার থেকে। তবে ঝাড়খন্ড সীমান্তে মাওবাদীরা সক্রিয় থাকলেও আমরাও জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তত। তিনি আরও বলেন, শিলদা কান্ডে নিহত জওয়ানদের পরিবারের যারা বিচার পাইনি তারা যেন যোগাযোগ করে।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি মাওবাদীদের হামলায় শিলদার ইএফআর ক্যাম্পে শহিদ হয়েছিলেন ২৪ জন জওয়ান। তাদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ২৪ টি গাছ লাগানো হয়েছিল। আজও সেই শহিদ গাছ গুলি মানুষকে ছায়া প্রদান করছে।

২০১০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি দিনটি মনে হলে আজও শিহরিত হন এলাকার বাসিন্দারা। তখন মাওবাদীদের দাপটে ত্রস্ত জঙ্গলমহল। সারাদিন প্রহরায় দিন কাটছে জওয়ানদের। সারা দিনের পর বিকেলে একটু বিশ্রাম নিতে তারা প্রস্তত নিচ্ছেন সেই অতর্কিতে ইএফআর জওয়ানদের পুরো ক্যাম্প ঘিরে বোমা, গুলি ছুড়তে শুরু করে মাওবাদীরা। গুলি, বোমা বর্ষনের ফলে গোটা ক্যাম্পে আগুন লেগে যায়। পাল্টা জবাব দিতে শুরু করেন ইএফআর জওয়ানরাও। পাল্টা গুলির জবাবে বেশ কয়েকজন মাওবাদী খতম হয়। শেষে ২৪ জন জওয়ান শহিদ হয়েছিল।

First published: 05:01:43 PM Feb 15, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर