সুপারি কিলার দিয়েই স্ত্রী-কে খুন ! জেরায় কবুল কাটোয়ার স্কুল শিক্ষকের

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jul 22, 2017 05:10 PM IST
সুপারি কিলার দিয়েই স্ত্রী-কে খুন ! জেরায় কবুল কাটোয়ার স্কুল শিক্ষকের
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jul 22, 2017 05:10 PM IST

#কাটোয়া: বধূ নির্যাতনের মামলায় ১৩ দিন জেল খেটেছিল স্বামী উজ্জ্বল ভাস্কর ঘোষ, তারই বদলা নিতেই সুপারি কিলার দিয়ে স্ত্রী মহুয়া ঘোষ(২৫) -কে খুন করিয়েছে বলে পুলিশের কাছে চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি স্বামীর।

তিন লাখ টাকার চুক্তিতে সুপারি কিলার দিয়ে নিজের স্ত্রী-কে খুন করানোর অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে ৷  জেরায় উজ্জ্বল জানিয়েছে, সুপারি কিলারদের  ১ লাখ টাকা দিলেও বাকি টাকা এখনও সে দেয় নি। রাতভর জেরায় উজ্জ্বল পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে সুপারি কিলারদের নাম, বাড়ি, তাদের সঙ্গে কে যোগাযোগ করে দিয়েছিল সে সব তথ্য । কিভাবে মহুয়া ঘোষকে খুন করা হয়েছিল সে কথাও পুলিশি জেরায় স্বীকার করেছে উজ্জ্বল ভাস্কর ঘোষ এবং তার মা ছবিরাণী ঘোষ বলে জানা গিয়েছে।

কাটোয়া থানার পুলিশ মহুয়া ঘোষের খুনের অভিযোগে স্বামী উজ্জ্বল ভাস্কর ঘোষ ও তার মা ছবিরাণী ঘোষকে গ্রেফতার করেছে। খুনের অন্যতম প্রত্যক্ষদর্শী মহুয়ার ৭ বছরের ছেলে ইন্দ্রজিৎ ঘোষ পুলিশকে জানিয়েছে, ‘‘ রাতে মা-র চিৎকারে আমি জেগে দেখি ঘর থেকে মা-কে চার জন লোক এসে মুখে ‘চিক’(প্লাস্টিক প্যাকেট) দিয়ে তুলে নিয়ে চলে যায়। বাবা আমার ঘাড় ধরে ঠাকুমার ঘরে দিয়ে আসে। ঠাকুমা আমার গলা ধরে শুইয়ে দেয়। পর দিন বাবা আমাদের ‘মালুন’ গ্রামে (উজ্জ্বলের মামার বাড়ি) যেতে বলে।’’

পুলিশের দাবি, উজ্জ্বল তার শিশু পুত্রের কথা সত্যি বলে মেনে নিয়েছে। পুলিশের প্রশ্ন উজ্জ্বলের বাড়ি কাটোয়ার স্টেডিয়াম পাড়া থেকে মাত্র ২ কিমি দূরে কেন মহুয়ার দেহ ফেলা হল ? তদন্তে পুলিশ জেনেছে মৃতদেহ লোপাট করতে খুনিরা মোটর সাইকেল ব্যবহার করেছিল। কাটোয়া ব্যাণ্ডেল রেলপথের পানুহাটের রেলগেট পরে যাওয়ায় মৃতদেহ বেশি দূর নিয়ে যাওয়া ‘রিস্ক’ হয়ে যাবে বলে রেল গেট থেকে প্রায় ২০০ মিটার আগেই দীঘির পাড়ে চড়কতলার মাঠে ঝোপে ফেলে তারা চম্পট দেয়।

প্রতিবেশী আলাউদ্দিন সেখ অনেকগুলি মোটর সাইকেলের আওয়াজ পাওয়ার কথা বলেন। পুলিশি জেরায় কাছে উজ্জ্বল জানিয়েছিল প্রথমে পলিথিনের প্যাকেট দিয়ে মুখ বন্ধ করা হয় পরে গলায় ওড়না-র ফাঁস দিয়ে শ্বাস রোধ করে খুন করা হয়েছিল। যাতে কেউ মহুয়া ঘোষকে চিনতে না পারে সে জন্য মৃতদেহের মুখে ও শরীর অ্যাসিড দিয়ে বিকৃত করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

উজ্জ্বল ভাস্কর ঘোষ কাটোয়া থানার চর পাতাইহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ইতিহাসের শিক্ষক। খুনের দিন ১৯ জুলাই থেকে স্কুল যায় নি। যদিও ২১শে জুলাই যথারীতি স্কুল যায় এবং ক্লাস নেয় , তার মধ্যে কোনও অস্বাভাবিক আচরণ এর মধ্যে লক্ষ্য করা যায় নি বলে সহশিক্ষকরা জানিয়েছেন।

মহুয়ার বাবা সরোজাক্ষ পাল কাটোয়া থানায় তার মেয়ের খুনী হিসাবে জামাই উজ্জ্বল ভাস্কর ঘোষ, জামাইয়ের মা ছবিরাণী ঘোষ, ননদ তৃপ্তি পাল ও নন্দাই বাবন পালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পূর্ব বর্ধমান জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) রাজনারায়ণ মুখোপাধ্যায় জানান, খুনের ঘটনায় এখনও পর্যন্ত দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে । সুপারি কিলারদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

First published: 05:10:35 PM Jul 22, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर