হাসপাতালে সমস্ত সুবিধা থাকা সত্ত্বেও নার্সিংহোমে পাঠানো হচ্ছে রোগীদের !

Feb 27, 2017 05:11 PM IST | Updated on: Feb 27, 2017 05:11 PM IST

#ঝাড়গ্রাম: হাসপাতালে সমস্ত পরিষেবা বিনামূল্যে থাকা সত্ত্বেও রোগীদের বাধ্য করা হচ্ছে নার্সিংহোমে যেতে। নার্সিংহোমের অপারেশন থিয়েটার থেকে শুরু করে অাউটডোর সমস্ত কিছুই হাসপাতালে উন্নত মানের।এমনকী, ডাক্তার রা সকলেই হাসপাতালের হওয়া সত্ত্বেও চিকিৎসা করতে পছন্দ করেন নার্সিংহোমে। ফলে বিনা পয়সায় উন্নত পরিষেবার বদলে ঘটি বাটি বেঁচে টাকা দিতে বাধ্য হয় জঙ্গল মহলের প্রান্তিক মানুষ গুলোকে।

গলব্লাডারে স্টোন অাছে বলে গীতা পাল ঝাড়গ্রাম হাসপাতালে দু’বার ভর্তি হন, কিন্তু দু’বারি তাকে অপারেশন না করে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। হাসপাতালের ডাক্তার গৈরীক মাঝি অপারেশনের সমস্ত কিছু কিনে অানতে বলেন বলে অভিযোগ। ডা: মাঝি অবশ্য দাবি করেন তিনি রোগীকে কিছুই কিনতে বলেননি। রক্তচাপ অতিরিক্ত থাকার জন্য অপারেশন করা সম্ভব হয়নি। যদিও রোগী গীতা রানি পাল ও তাঁর অাত্মীয় করুনা পালের বক্তব্য তাদেরকে বাধ্য করা হচ্ছে নার্সিং হোমে চলে যেতে। তারা তাই ভিহ্ম্যাকরে টাকার জোগাড় করছেন। করুনা পাল পায়ের ইনফেকশন নিয়ে ডা: মাঝির কাছে গেলে তার অস্ত্রোপচার বাবদ ছ’-সাত হাজার টাকা লাগবে জানায়। হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করাতে চাইলে রোগীর পরিবারের অভিযোগ, ডাঃ মাঝি হাসপাতালে দেরী ও তার ফলে পা বাদ যাওয়ার ভয় ও অজুহাত দিয়ে নার্সিংহোমে চলে যেতে বলেন। এ ব্যাপারেও ডা: মাঝি জানান, তাঁর চেম্বারে অাসা রোগীকে তিনি তার কাছে অপারেশন করাতেই পারেন। হাসপাতালের কোনওরোগীকেই তিনি কখনও অন্য কোথাও পাঠান না।

হাসপাতালে সমস্ত সুবিধা থাকা সত্ত্বেও নার্সিংহোমে পাঠানো হচ্ছে রোগীদের !

ডা: শির্শেন্দু গিরি পেশায় শিক্ষক প্রদীপ মল্লিক এর অস্ত্রোপচার ঝাড়গ্রাম নার্সিংহোমে করেন। অভিযোগ অপারেশন ঠিক না হওয়ায় ফের অপারেশন করেন তিনি। এবারও ঠিক না হওয়াতে  রোগী পরে বাধ্য হয়ে মেদিনীপুরে এক ডাক্তারের কাছে ফের অস্ত্রোপচার করান ৷ ফল স্বরুপ তাঁর একটি অঙ্গহানী ঘটে। যদিও ডা: গিরি এব্যাপারে কিছু বলতে নারাজ। ঝাড়গ্রাম হাসপাতালে সমস্ত সুযোগ থাকলেও এক শ্রেনীর ডাক্তার ও কিছু অসাধু দালাল চক্রের জন্য নার্সিংহোমগুলি নিজেদের ব্যাবসা চালিয়ে যাছে। অথচ নার্সিংহোমে সমস্ত সুযোগ না থাকায় বেগতিক দেখলে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়ার নজিরও ভুরি ভুরি।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES