বীরভূমেই থাকেন চিত্রগুপ্ত, লিখে রাখেন জন্ম-মৃত্যুর তারিখ!

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 05:55 PM IST
বীরভূমেই থাকেন চিত্রগুপ্ত, লিখে রাখেন জন্ম-মৃত্যুর তারিখ!
Photo : AFP
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 05:55 PM IST

#বীরভূম: স্বর্গে বসে অনবরত লিখে চলেছেন মর্ত্যের মানুষের জন্ম থেকে মৃত্যু ৷ হিসেব রাখছেন পাপ-পূণ্যের ৷ চিত্রগুপ্ত ও চিত্রগুপ্তের খাতার কথা সবাই জানেন ৷ ছোটবেলা থেকে রূপকথার গল্পে প্রায় সবাই শুনেছেন চিত্রগুপ্তের কথা ৷ কিন্তু জানেন কি? শুধু স্বর্গে নয়, মর্ত্যেও রয়েছে এক চিত্রগুপ্ত, যিনি টানা ৪০ বছর ধরে হিসেব রাখছেন গ্রামের মানুষদের জন্ম-মৃত্যু-বিবাহের !

বীরভূমে থাকেন মর্ত্যের এই চিত্রগুপ্ত ৷ গ্রামবাসীরা তাঁকে ডাকেন কেষ্ট দা নামেই ৷ ভালো নাম কৃষ্ণেন্দু সিংহ ৷

কৃষ্ণেন্দু সিংহ তিনি জানান, তাঁর বাবা ছিলেন স্থানীয় স্কুল শিক্ষক ৷ কৃষ্ণেন্দু ছাড়া পাঁচ ভাইদের প্রতিদিনের জীবনসূচি নিজেদের খাতায় লিখে রাখতে বলতেন তিনি । তার বাবার কথা মতো লিখতে শুরু করেন কৃষ্ণেন্দু বাবু। লিখতে লিখতে শুরু করেন এলাকার মানুষদের জন্ম মৃত্যু ,বিবাহ। দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী, রাজ্যপাল ,বিভিন্ন প্রভাবশালী মানুষ থেকে সংস্কৃতি জগতের মানুষদের জন্ম মৃত্যু লিখে রাখা তার নেশা বলে জানান।

কৃষ্ণেন্দু সিংয়ের ছেলে নিরুপম সিংহ বাবার মতো চিত্রগুপ্তের কথা না লিখলেও আগামীদিনের কথা ভেবে বাবার সমস্ত তথ্য নিজের কম্পিউটারে নথিভুক্ত করে রাখছেন। কারণ স্থানীয় গ্রাম পঞ্চয়েতে কোনও এলাকাবাসীর জন্ম মৃত্যুর নথি খুঁজে না পেলে সরাসরি কৃষ্ণেন্দু বাবুর বাড়ির ঠিকানা দিতেন ৷ পঞ্চয়েতের বিভিন্ন ভাতা সহ বিভিন্ন দরকারে জন্ম বা মৃত্যুর তারিখ প্রয়োজনও হয় তাই সবাই তার কাছে ছুটে আসেন। এটাই তার পাওনা জানান কৃষ্ণেন্দু বাবু ৷

অনেক পিছিয়ে পড়া মানুষ এই সব জন্ম মৃত্যুর সঠিক তারিখ বেশিদিন নথি রাখতে পারেন না ৷ তার নেশা মানুষের কাজে লাগছে এতেই তিনি খুব খুশি। কিন্তু তার ক্ষোভ একটা আছে তিনি দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে এই কাজ করে আসছেন কোনও সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাকে কোনও বিশেষ সন্মান দেয়নি ।

First published: 05:28:11 PM Feb 15, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर