ছুটি শুরুর আগেই কফিনে চেপে বাড়ি ফিরলেন জঙ্গি হামলায় শহিদ বাঙালি জওয়ান

Jun 05, 2017 04:07 PM IST | Updated on: Jun 05, 2017 04:07 PM IST

#সবং: ১০ জুন ছুটিতে বাড়ি ফেরার কথা ছিল। ছুটি মিলেছে তার আগেই। একেবার চির-ছুটি । সেই ছুটি নিয়েই আজ পশ্চিম মেদিনীপুরের সবংয়ের মশাগ্রামে ফিরলেন দীপক মাইতি। তবে কফিনবন্দি হয়ে। শনিবার জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগে সেনা কনভয়ে জঙ্গি হামলায় নিহত হন দীপক। তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে উপচে পড়া গোটা গ্রাম। গান স্যালুটে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় দীপকের। পরিবারের একজনকে চাকরি ও পাঁচ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর।

স্বামীকে নিয়ে গর্ব যেমন আছে। তেমনই আছে আক্ষেপ। আর আছে অবধারিত সেই প্রশ্ন। কেন বার বার প্রতিবেশী দেশের নিশানা হতে হচ্ছে ভারতীয় সেনাকে? অবুঝ মন বুঝতে চায়নি প্রতিরক্ষার স্ট্রাটেজি।

ছুটি শুরুর আগেই কফিনে চেপে বাড়ি ফিরলেন জঙ্গি হামলায় শহিদ বাঙালি জওয়ান

শনিবার অনন্তনাগে কুলগামে শ্রীনগর - জম্মু হাইওয়েতে টহলদারির সময়ে সেনা কনভয়ে জঙ্গি হামলায় নিহত হন দীপক মাইতি। শনিবার সকাল আটটায় স্ত্রীর সঙ্গে শেষবার ফোনে কথা হয় দীপকের। বেলা তিনটে আসে স্বামীর মৃত্যুর খবর। তারপর থেকেই মাইতি বাড়িতে শোকের ছায়া। বার বার জ্ঞান হারাচ্ছেন বৃদ্ধা মা, স্ত্রী, মেয়ে। শোকে স্তব্ধ ভাই, বোন-সহ গোটা গ্রাম। সোমবার সকালে দীপকের কফিনবন্দী দেহ এসে বাধ ভাঙে শোক।

সবংয়ে নিহত জওয়ানের পরিবারের একজনকে চাকরি ও পাঁচ লক্ষ টাকা দেওয়ার ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গান স্যালুটে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় দীপকের। শেষকৃত্যে হাজির ছিলেন নেতারাও।

১৯৯৭ সালে ভারতীয় সেনায় যোগ দেন দীপক। প্রথমে নাসিক। তারপর জম্মু, কাশ্মীর, পঞ্জাব, ওড়িশায় পোস্টিং। ভারতীয় সেনায় রানার হিসেবে কাজ করতেন দীপক। বছরে দু-তিন বার বাড়ি আসতেন। দু হাজার উনিশে ছিল অবসর। তার আগেই জঙ্গি নিশানায় সব শেষ।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES