‘কাটমানি খাওয়া চলবে না’, মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরও কাটমানি খেয়ে পুকুর সংস্কারের অভিযোগ বারাসতে

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jun 03, 2017 09:35 AM IST
‘কাটমানি খাওয়া চলবে না’, মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরও কাটমানি খেয়ে পুকুর সংস্কারের অভিযোগ বারাসতে
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jun 03, 2017 09:35 AM IST

#বারাসত: কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয় করে বারাসতের লেহেঙ্গাপুকুরের পাড় বাঁধানো হয়েছিল। কিন্তু তিন মাস না পরোতেই তা হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, নিম্ন মানের সামগ্রি এবং পুর কর্তৃপক্ষের কাটমানি খাওয়ার ফলেই নতুন পাড়ের এই হাল। যদিও তা অস্বীকার করেছেন পুরপ্রধান। পাড় ধসে পড়ার দায় KMDA-র ঘাড়েই চাপিয়ে দিয়েছেন তিনি।

হুগলির প্রশাসনিক বৈঠক থেকে প্রকাশ্যেই দলের নেতা-কর্মীদের এই কড়া বার্তাই দেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীকে কেন দিতে হল এমন বার্তা? বারাসত পুর এলাকায় সদ্য সংস্কার হওয়া পুকুরের বেহাল অবস্থাই তা বলে দিচ্ছে।

৭৯ কোটি টাকার নিকাশি প্রকল্পের অধীনে সম্প্রতি বারাসতের লেহেঙ্গাপুকুরটির সংস্কার করা হয়। বাঁধানো হয় পুকুরের চারপাশ। কিন্তু তিন মাস কাটতে না কাটতেই ভেঙে পড়েছে পাড়। জলে গেছে টাকা। কাটমানি খেয়ে, নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করানোর ফলেই এই হাল বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের।

শুধু তাই নয়, পুকুর সংস্কারে পরিকল্পনার অভাব ছিল বলেও দাবি স্থানীয়দের। বারাসতের তিরিশ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের মৃত্যু হওয়ায়, এই ওয়ার্ডের দেখভাল করেন পুরপ্রধান সুনীল মুখোপাধ্যায়। যদিও কাটমানি বা কমিশন খাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। দায় চাপিয়েছেন কেএমডিএর উপর।

তিরিশ নম্বর ওয়ার্ডের নিকাশি ব্যবস্থা সংস্কারের উদ্দেশ্যেই এই পুকুরটির পাড় বাঁধানো হয়। কিন্তু ঠিক বর্ষার আগে পাড় ভেঙে পড়ায় এলাকার নিকাশি সেই তিমিরেই রয়ে যাবে বলে আশঙ্কায় স্থানীয় বাসিন্দারা।

First published: 09:35:25 AM Jun 03, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर