গঙ্গায় অস্থায়ী জেটি ভেঙে দুর্ঘটনা, তলিয়ে গেল বহু যাত্রী

Apr 26, 2017 01:31 PM IST | Updated on: Apr 26, 2017 03:23 PM IST

#ভদ্রেশ্বর:  হুগলির ভদ্রশ্বরে অস্থায়ী জেটি ভেঙে দুর্ঘটনা ৷ নৌকা ধরতে এসে গঙ্গায় তলিয়ে যান বহু যাত্রী ৷  ঘটনায় এখনও পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যুর খবর মিলেছে ৷ ৩০ জনেরও বেশি যাত্রী নিখোঁজ বলে জানা গিয়েছে ৷ স্থানীয়দের তৎপরতায় আপাতত উদ্ধার ২০ জন ৷ সরকারি সূত্রে খবর, এখনও খোঁজ নেই ৩৭ জনের  ৷ উদ্ধারকাজে নেমেছে কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী ৷

জেটি দুর্ঘটনার খবর পেয়ে উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেনকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী ৷

গঙ্গায় অস্থায়ী জেটি ভেঙে দুর্ঘটনা, তলিয়ে গেল বহু যাত্রী

দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ভদ্রেশ্বর তেলিনি পাড়ার নৌকা জেটিতে ৷ ঘড়ির কাঁটায় তখন সকাল এগারোটা ৷ বুধবার সকালে দিনের ব্যস্ত সময়ে নৌকা ধরার জন্য জেটিতে দাঁড়িয়ে ছিলেন প্রায় একশোরও বেশি মানুষ ৷ আচমকা জোয়ারের ঢেউয়ের ধাক্কায় ভেঙে পড়ে অস্থায়ী বাঁশের জেটি ৷ মুহূর্তের মধ্যে গঙ্গায় তলিয়ে যান বহু যাত্রী ৷

জেটি ভেঙে গঙ্গায় হাবুডুবু খাচ্ছেন যাত্রীরা। জলের উপর ভেসে আছে সারি সারি  কালো মাথা। প্রাণপণে বাঁচার চেষ্টায় করছেন বহু মানুষ। ডুবে যাওয়ার ভয়ে হাত-পা ছুড়ে কেউ ঘাটের কাছে আসতে চাইছেন।  কেউ আবার কিছু আঁকড়ে ধরে বেঁচে থাকার আপ্রাণ চেষ্টায়।  ভেসে যাওয়াদের প্রাণ রক্ষায় ঘাটে তখন শোনা গেল কিছু মানুষের অসহায় ঈশ্বর নাম জপ।  বুধবার এই ঘটনার সাক্ষী রইল ভদ্রেশ্বরের তেলিনিপাড়ায় গঙ্গার জেটিঘাট ৷

হাবুডুবু খাওয়া যাত্রীদের উদ্ধারের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে স্থানীয় মানুষ ৷ নৌকা নিয়ে উদ্ধারকাজে নামেন স্থানীয় জেলেরা ৷ তাদের তৎপরতাতেই এখনও ২০ জনেরও বেশি মানুষকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে ৷ এখনও খোঁজ নেই বহু যাত্রীর ৷

এপারে ভদ্রেশ্বরের তেলিনিপাড়া। ওপারে উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগর। মাঝখানে গঙ্গা। পারাপারের মাধ্যম নৌকা বা লঞ্চ। তেলেনিপাড়ার জেটিঘাটে প্রতিদিনের মতোই নৌকা ধরতে দাঁড়িয়েছিলেন বহু মানুষ।  আচমকা গঙ্গায় বান। দু’শো ফুট লম্বা বাঁশ ও কাঠের জেটিটির মাঝ বরাবর প্রায় তিরিশ ফুট হুড়মুড়িয়ে ভেঙে যায়। নিখোঁজদের সন্ধানে চলছে তল্লাশি ৷ ঘটনার সময় জোয়ার থাকায় স্রোতের টানে বহু মানুষ ভেসে গিয়েছে বলে আশঙ্কা ৷

উত্তরবঙ্গ থেকে অন্যান্য মন্ত্রী ও জেলা প্রশাসনকে ফোন করে খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ একইসঙ্গে দ্রুত উদ্ধার ও চিকিৎসার ব্যবস্থার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি ৷ মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে দু’লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES