বৃষ্টির দিনে আরডি ছাড়া আর কে আছেন ?

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jun 27, 2017 03:11 PM IST
বৃষ্টির দিনে আরডি ছাড়া আর কে আছেন ?
Photo : AFP
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jun 27, 2017 03:11 PM IST

#কলকাতা: কথায় আছে, শিল্পীর সৃষ্টিতেই শিল্পী সারা জীবন বেঁচে থাকেন ৷ আর একথা কতটা যে সত্যি, তার একমাত্র প্রমাণ সঙ্গীতকার আরডিম বর্মন ৷ মঙ্গলবার ৭৮-এ পা দিলেন সবার প্রিয় পঞ্চমদা ৷ আজও সেরা বলিউডি গানের তালিকা করতে বসলে, বেশিরভাগই চলে আসে আরডি-সুর ৷ আরডি বর্মন শুধুই সঙ্গীতকার নয়, যেন একটা যুগ ৷ সিনেমার গানে যেন এক্সপেরিমেন্টের ছয়লাপ ৷ সুরে সুরে কখনও রূপকথা লেখা, তো কখনও প্রেম ১০০ শতাংশ ৷ বিরহের গান থেকে নাইটক্লাবের গান, ক্যাবেরে থেকে প্রিয় মানুষকে মনে করার গান সবই আরডি ছাড়া একেবারেই ফিকে ৷

কলকাতা জুড়ে বৃষ্টি সকাল থেকেই ৷ আকাশের মুখ গোমরা ৷ মেঘলা আকাশের মাঝখান থেকে মাঝে মধ্যে সূর্য উঁকি দিলেও, রিমঝিম বৃষ্টিতে মনে কখনও অবসাদ ঘিরে ধরছে ৷ তো কখনও নস্ট্যালজিয়ায় মাতাল ৷ কেউ অফিসে, কেউ বাড়িতে ৷ কেউ আবার ট্র্যাভেলেই ব্যস্ত৷ আর এই সময় যদি আরডি বর্মনের সুরকে ভর করেই দিনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, তাহলে ক্ষতি কী ? এর থেকে বড় উপহার কী আর কিছু হতে পারে ফ্যানদের তাঁকে দেওয়ার ৷

 ১৯৬১ সালে মুক্তি পেয়েছিল ছোটে নবাব ৷ সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আরডি বর্মনের এটাই প্রথম ছবি ৷ কিন্তু গানে সুর দেওয়া অনেক আগে থেকেই ৷ মাত্র ন’বছর বয়সে ‘ফ্যান্টোস’ ছবির একটি গানে প্রথম সুর দেন রাহুল। যে ছবি মুক্তি পায় ১৯৫৬ সালে ৷

একটি সাক্ষাৎকারে আরডি বর্মন জানিয়েছিলেন, তিনি নাকি ঘুমিয়েও গানে সুর দেন ৷ তিনি জানিয়ে ছিলেন, হরে কৃষ্ণ হরে রাম ছবির ‘কাঞ্চি রে’ গানটির সুর স্বপ্নেই বানানো হয়েছিল ৷

 নিজের টিম ছাড়া কখনই কোনও গানের রেকর্ডিং করতেন না আরডি বর্মন ৷ তাই  প্রায় ৪৬ জন সদস্যের সেই দলে ছিলেন দিকপাল বাজনদাররা। আর এদের নিয়ে একের পর সুন্দর সুর সৃষ্টি করেছেন আরডি বর্মন ৷

First published: 01:52:38 PM Jun 27, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर