ভারতে এবার রাসায়নিক হামলার পরিকল্পনা করেছে হিজবুল মুজাহিদ্দিন

Jul 12, 2017 08:36 PM IST | Updated on: Jul 12, 2017 08:36 PM IST

#নয়াদিল্লি: ভারতে এবার রাসায়নিক হামলার ছক হিজবুল মুজাহিদিনের। কাশ্মীরবাসী ও সেনাকে লক্ষ্য করেই রাসায়নিক অস্ত্র করেই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের পরিকল্পনা পাকপন্থী জঙ্গি সংগঠনের। পরিকল্পনার পিছনে সেই পাকিস্তান। এখনই জঙ্গি সংগঠনে হাতে এসে গিয়েছে রাসায়নিক অস্ত্র। শীর্ষস্তরের এক হিজবুল নেতার ফোনের রেকর্ডে সামনে এল এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। আমাদের সহযোগী চ্যানেল আইবিএন নিউজ ১৮ -এর হাতে এসেছে তোলপাড় ফেলে দেওয়া এই ফোন রেকর্ডিং।

সম্পুর্ণ নতুন ধরণের এক হামলা। গুলির লড়াইয়েরও কোনও সম্ভাবনা নেই। শুধু পরিকল্পনা মতো ব্যবহার করা গেলে কোনও ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই শক্রু শিবিরে কাঁপুনি ধরানো যাবে। এমনটা সম্ভব একমাত্র নিষিদ্ধ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করলে। কাশ্মীরে সেনা ও সাধারণ মানুষের ওপর সেই অস্ত্র প্রয়োগের পরিকল্পনা হিজবুল মুজাহিদিনের। হিজবুলের এক শীর্ষ কম্যান্ডারের ফোনের কথোপকথনের রেকর্ড সামনে এল জঙ্গিদের নতুন কৌশল।

ভারতে এবার রাসায়নিক হামলার পরিকল্পনা করেছে হিজবুল মুজাহিদ্দিন

হিজবুল কম্যান্ডারের ভারতের বুকে রাসায়নিক হামলার ছক

-এবার অনেক কিছু হবে। সব বদলে দেব। সব তছনছ করে দেব। দেখে নিন এবার কী করতে পারি। এখন পরিস্থিতি ভালো না। কিন্তু এরকম আর থাকবে না। সব বদলে যাবে। আপনি দেখে নেবেন। আমিও দেখব। যদি বেঁচে থাকি।এবার আমরা রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করব। ঠিক আছে। আগে ভারতীয় সেনার উপর গ্রেনেড, রকেট লঞ্চার দিয়ে হামলা চালাতাম। আর তাতে মাত্র দু’চার জন মারা যেত। এবার অন্য রকম আক্রমণ। এবার সোজা রাসায়নিক অস্ত্র। যার দুর্গন্ধেই বহু লোক মারা যাবে।

রাসায়নিক অস্ত্র ইতিমধ্যেই চলে এসেছে জঙ্গিদের হাতে। তা প্রয়োগের কৌশলও তাদের জানা। ফোনে জঙ্গিনেতাকে হিজবুল কম্যান্ডারের প্রতিশ্রুতি, সেনাক্যাম্পেই রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগের প্রস্তুতি তৈরি। গোটা পরিকল্পনার রাশ যে পাকিস্তানের হাতেও তা নিয়েও রাখঢাক করেননি হিজবুল কম্যান্ডার। বলেছে-

-কিছু হাতিয়ার আমাদের হাতে চলে এসেছে। কিন্তু এখন ওগুলো ব্যবহার করার অনুমতি এখনও নেই। আমাদের সাথীরা যারা রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করবে তাদের বাঁচানোর ব্যবস্থা করতে হবে। চোরাগোপ্তা হামলার দিন শেষ। এবার টার্গেট কোনও বড় সেনাক্যাম্প। যাতে ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়। -ইনশাল্লাহ পাকিস্তানের দিক থেকেও আমরা সাহায্য পাবো। সীমান্তের ও পার নিশ্চয়ই তৈরি থাকবে। সঠিক সময়ে পাকিস্তানও নিশ্চয়ই ভারত বিরোধী অবস্থানের সুর চড়াবে।

একদিকে আইএসআই-পাক সেনা ও সেনা গোয়েন্দা বিভাগ। অন্যদিকে হিজবুলের মতো জঙ্গি সংগঠন। এদের মধ্যে সমন্বয়ের কাজ করছেন কে? উঠে এসেছে ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় থাকা জঙ্গিনেতার ভূমিকাও।

রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধ করতে রাষ্ট্রসংঘের সনদে সই করেছে পাকিস্তান। তবে জেহাদের নামে অন্য দেশে তা প্রয়োগে পাকিস্তানের সমস্যা নেই। উপ-মহাদেশে রাসায়নিক যুদ্ধে মদত দেওয়া আর পরমাণু যুদ্ধ কার্যত একই ব্যাপার। পাক ছক ভেস্তে দিতে নতুন উপায় ভাবতে হচ্ছে কেন্দ্রকে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES