ভারতের ‘অতি সুরক্ষিত’ ২০০০ টাকার নোট জাল করে এদেশেই পাঠাচ্ছে পাকিস্তান

Feb 13, 2017 12:18 PM IST | Updated on: Feb 13, 2017 12:18 PM IST

#নয়াদিল্লি: নকল হওয়া নাকি সম্ভব নয়! নতুন ২০০০ টাকার নোট তৈরিতে এমন সতর্কতা নেওয়া হয়েছে যে পাকিস্তানও নতুন নোটের জাল করতে পারবেন না ৷ রিজার্ভ ব্যাঙ্ক আধিকারিকদের এই দাবিকে ভ্রান্ত প্রমাণ করে নতুন নোটের বাজারে আবির্ভাবের মাত্র তিন মাসের মধ্যেই ‘অতি সুরক্ষিত’ ২০০০-এর নোটের জাল করতে সক্ষম পাকিস্তান ৷ আশঙ্কার খবর, ভারতের অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে সেই জাল নোট সীমানা পেরিয়ে ঢুকছে ভারতেই ৷

কালো টাকার সঙ্গে সঙ্গে ৫০০ ও ১০০০-এর জাল নোট রুখতে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নোট বাতিল ৷ এই সিদ্ধান্তের অন্যতম কারণ হিসেবে কেন্দ্র জানিয়েছিল, ভারতীয় গোয়েন্দাদের মোতাবেক দেশে জাল নোটের বাড়বাড়ন্ত ৷ এই জাল নোট ব্যবহার করেই জঙ্গি জাল বিস্তার করতে চাইছে আইএস, মুজাহিদ্দিন-এর মতো নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনগুলি ৷ জঙ্গিদের এই প্রয়াস ব্যর্থ করতেই রাতারাতি ৫০০ ও ১০০০-এর নোট বাতিল করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷

ভারতের ‘অতি সুরক্ষিত’ ২০০০ টাকার নোট জাল করে এদেশেই পাঠাচ্ছে পাকিস্তান

নোট বাতিল সিদ্ধান্ত ঘোষণার কয়েকদিনের মধ্যেই বাজারে ২০০০ টাকার নতুন নোট আনে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ৷ দাবী করা হয়, এই নোট নকল করা প্রায় অসম্ভব ৷ কিন্তু অল্প সময়েই রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে ভুল প্রমাণ করল প্রতিবেশী দেশ ৷

বেশ কয়েকদিন ধরেই পশ্চিমবঙ্গের সীমান্তের গ্রাম থেকে উদ্ধার হচ্ছিল ২০০০ টাকার জাল নোট ৷ ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করতেই আসল তথ্য বেরিয়ে আসে ৷ সম্প্রতি মুর্শিদাবাদ ও মালদা থেকে ২০০০ টাকার জাল নোট সহ পাকড়াও করা হয়েছে বেশ কয়েকজনকে ৷ পুলিশ সূত্রে খবর, এর মধ্যে আজিজুল রহমান নামে এক যুবক জেরায় স্বীকার করে, জাল নোটগুলি পাকিস্তানে ছাপানো হয়েছে, যা বাংলাদেশ হয়ে ভারতে ঢুকছে ৷ দেশের ভেতর এই জাল ২০০০ টাকার নোটগুলি ছড়িয়ে দেওয়ার দায়িত্ব ছিল ওই যুবকদের উপর ৷

নোটগুলি পরীক্ষা করে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ২০০০ টাকার নোটের ১৭ টি সিকিউরিটি ফিচারের মধ্যে ১১টিই নকল করে ফেলতে সক্ষম হয়েছে পাক জালিয়াতরা ৷ কাগজের মানও প্রায় আসলের মতোই ৷ ফলে খালি চোখে সাধারণ মানুষের পক্ষে তা নির্ধারণ করা সম্ভব নয় ৷ আরও কোনও জাল নোট ভারতের বাজারে ছাড়া হয়েছে কিনা তা জানতে চলছে তদন্ত৷ ৷

দু’হাজার টাকার নোট বাজারে আসার পর একজন উচ্চপদস্থ সরকারি আধিকারিক জানান, রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইং বা RAW, ইনটেলিজ়েন্স ব্যুরো এবং ডিরেক্টরেট অফ রেভেনিউ ইনটেলিজেন্স গত ছ’মাস ধরে গোপনে নতুন নোটগুলি পরীক্ষা করেছে ৷ পরীক্ষা করার পর তারা জানিয়েছেন যে এই নোটগুলিকে সুরক্ষিত রাখার জন্য যে ফিতার্স ব্যবহার করা হয়েছে তা নকল করা প্রায় অসম্ভব ৷

কেন্দ্রীয় অর্থসচিব শক্তিকান্ত দাস আসল নকলের ফারাক বুঝতে জানিয়েছিলেন, আসল ২০০০ হাজার টাকার নোটে ৭টি ব্লিড লাইন থাকবে ৷ টাকার দু’পিঠেই ব্লিড লাইন থাকবে ৷ ২ হাজার টাকার নোটে থাকবে মঙ্গলযানের ছবি ৷ দু’হাজার টাকার নোটের নম্বর বাঁ-দিক থেকে ডানদিকে বড় হবে ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES