চিতা বাঘের আতঙ্কে ঘুম উড়ে গিয়েছে চা বাগানের শ্রমিকদের !

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Mar 29, 2017 03:48 PM IST
চিতা বাঘের আতঙ্কে ঘুম উড়ে গিয়েছে চা বাগানের শ্রমিকদের !
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Mar 29, 2017 03:48 PM IST

#জলপাইগুড়ি : চিতা বাঘের আতঙ্কে কাঁপছে ডুয়ার্সের চা বলয়  ! ঘুম উড়ে গিয়েছে চা বাগানের শ্রমিকদের ৷ স্বভাবতই চিন্তা বাড়ছে বনকর্মীদের ।

ডুয়ার্সের অধিকাংশ চা বাগানে আস্তানা গেড়েছে চিতা বাঘ । আর চিতা বাঘের হামলায় গত ১৫ দিনে ৭ জন চা শ্রমিক আহত হয়েছেন । বিন্নাগুড়ি বন্যপ্রানী স্কোয়াডের অন্তর্গত চা বাগান গুলিতে । আতঙ্কে বাগানে চা পাতা তুলতে যেতে ভয় পাচ্ছেন শ্রমিকরা । বন দফতরের তরফে বাগানে পাতা হয়েছে বাঘ ধরার খাঁচা । ডুয়ার্সের বানারহাট, বিন্নাগুড়ি, মাদারিহাট, বীরপাড়া এলাকার চা বাগানগুলির শ্রমিক-সহ বস্তির বাসিন্দারা মাঝে মধ্যেই চিতাবাঘের হামলায় আহত হচ্ছে। কিন্তু চা বাগান বা লোকালয়ে চিতাবাঘের হামলা বন্ধ করার কোনও পথ খুঁজে পাচ্ছেন না বনকর্মীরা।

চিতাবাঘের হামলায় কেউ আহত হলে তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় বনকর্মীরা। গত এক মাসে ডুয়ার্সের চা বাগান এলাকায় সাত জন শ্রমিক আহত হয়েছেন। পাতা তুলতে বা চা বাগানে অন্য কাজ করতে গিয়ে চিতাবাঘের হামলার মুখে পড়তে হচ্ছে শ্রমিকদের। শ্রমিকদের সম্মিলিত চিৎকার, লাঠি হাতে চিতাবাঘের হামলা প্রতিরোধ করে শ্রমিকরা। যে সব বাগান থেকে চিতাবাঘের হামলার খবর আসে, সেসব বাগানে বা বস্তিতে বাঘ বন্দি করার খাঁচা পাতে বনদফতর।

চা বলয়ে হাতির পাশাপাশি চিতা বাঘের উপদ্রব মাথা ব্যাথার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বনকর্মী থেকে বাগান কর্তৃপক্ষের কাছে । চিতা বাঘ জঙ্গল থেকে চা বাগানে আশ্রয় নেওয়ার পিছনে বেশ কিছু কারণও রয়েছে । চিতা বাঘ চা বাগানের নালায় শাবক প্রসব করার জন্য ডেরা গাড়ে । চা বাগান ঠান্ডা প্রবন হয় আর নিস্তব্ধ হয় এটাও একটা কারণ ৷ চা বাগানগুলি চিতা বাঘের পছন্দের হওয়ার জন্য । তা ছাড়া বাগানে খুব সহজেই তারা খাদ্য হিসাবে পেয়ে যায় চা শ্রমিক দের পালিত মুরগি , ছাগল , শূকর-সহ অন্যান্য গৃহ পালিত প্রানী গুলি ।

বর্তমানে ডুয়ার্সের হলদিবাড়ি, মোগলকাটা, বানারহাট, চুনাভাটি এবং বিন্নাগুড়ি সেনা ছাউনি-সহ আটটি চা বাগানে খাঁচা বসিয়ে রেখেছে বনকর্মীরা। এবং নিয়মিত বাগান গুলিতে গিয়ে বাগান শ্রমিক ও বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আসছেন । পাশাপাশি বাগান শ্রমিকদের পরামর্শ দিয়ে আসছেন সতর্ক কিভাবে থাকতে হবে । পরপর মানুষ জখম করছে কিন্তু খাঁচায় একটিও ধরা পড়ছে না চিতাবাঘ। বনাধিকারিকদের মতে, চা বাগানের জঙ্গল ঘেরা নালায় চিতাবাঘ বাচ্চা প্রসব করে।

চিতার বাচ্চা প্রসবের নিদির্ষ্ট কোন মরশুম নেই। কাজেই অনেক বাগানেই অনেক সময় বাচ্চা প্রসবের জন্য চা বাগানেই জঙ্গল ঘেরা গভীর নালা তাদের পছন্দের জায়গা। শ্রমিকরা চা পাতা তুলতে তুলতে বা অন্য কাজ করার সময় যখন চিতাবাঘ থাকার নালার সামনে চলে আসে তখনই বাচ্চা নিতে এসেছে এই সন্দেহে চিতাবাঘ তাদের হামলা করে। চিতা বাঘের হামলা বাড়ায় চা শ্রমিকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন বনকর্মীরা । বাগানে পাতা তুলতে যাওয়ার আগে পটকা ফাটিয়ে তবেই বাগানে ঢুকতে পরামর্শ দিয়েছেন , এমনকি বাগানে পাতা তোলার সময় টিনের ড্রাম বা কোনও টিনের বাক্স শব্দ করতে করতে বাগানে তুলতে পরামর্শ দিয়েছেন ।

ডুয়ার্সের বিন্নাগুড়ি বন্য প্রান স্কোয়াডের আধিকারিক গোপাল চন্দ্র দে বলেন, “ মাঝে মাঝে চা বাগানগুলিতে চিতাবাঘের হামলা ঘটছে যা চিন্তার বিষয়। গত এক মাসে ডুয়ার্সের বিভিন্ন বাগানে সাত আট জনের মত আহত হয়েছে। বাগানগুলিতে চিতাবাঘ ধরার খাঁচা পেতে অবস্থা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। ”

First published: 03:48:29 PM Mar 29, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर