মোর্চার টানা বনধে বিপাকে পাহাড়ে পড়তে আসা ছাত্রছাত্রীরা

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jun 21, 2017 07:54 PM IST
মোর্চার টানা বনধে বিপাকে পাহাড়ে পড়তে আসা ছাত্রছাত্রীরা
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jun 21, 2017 07:54 PM IST

#দার্জিলিং: মোর্চার টানা বনধে বিপাকে পাহাড়ের ছাত্রছাত্রীরা। বন্ধ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ। সবচেয়ে অসুবিধায় বিদেশি পড়ুয়ারা। থাইল্যান্ড, নেপাল, ভুটানের মত বিভিন্ন দেশের ছেলেমেয়েরা পড়তে আসে পাহাড়ের আবাসিক স্কুলগুলিতে। বনধের জেরে তাদের ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

২৩ জুন পাহাড়ের স্কুল, হস্টেল খালি করতে ছাড় দিয়েছে মোর্চা। সকাল ৬টা থেকে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত পাহাড় থেকে নামতে পারবে স্কুলের গাড়িগুলি।

জানালেন মোর্চা নেতা বিনয় তামাং।

পাহাড়ে অনির্দিষ্টকালীন বনধ ডেকেছে মোর্চা। চরম অসুবিধায় পড়েছে আবাসিক স্কুলগুলি। স্কুলগুলিতে স্থানীয়রা তো বটেই, ভুটান, থাইল্যান্ডের মতো দেশ থেকে পড়তে আসেন বহু পড়ুয়ারা। সবচেয়ে অসুবিধায় পড়েছেন ভিনদেশি পড়ুয়ারা। মাউন্ট হারমান স্কুলে দু’হাজার তেরো সালে ভরতির সময় মোর্চার বনধ দেখেছিলেন এই পড়ুয়ারা। ফের বনধে চোখে মুখে ভয়। সমতলে কীভাবে ফিরবেন? বুঝতে পারছেন না তাঁরা। বাক্স-প্যাঁটরা গুছিয়ে দার্জিলিং ও কার্শিয়ঙে চলে যাচ্ছেন বিদেশি পড়ুয়ারা।

কিভাবে বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের সমতলে পাঠাবেন, বুঝতে পারছেন না স্থানীয় অভিভাবকরা। পড়ুয়াদের অভিভাবকদের কাছে ফেরত পাঠাতে প্রশাসনের সাহায্য চাওয়া হয়।

এই পরিস্থিতিতে স্কুল ও হস্টেল খালি করতে স্কুলের গাড়িগুলিকে ছাড় দিয়েছে মোর্চা। ২৩ জুন সকাল ৬টা থেকে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত সমতলে নামতে পারবে স্কুলের গাড়িগুলি। জানিয়েছে মোর্চা নেতা বিনয় তামাং।

স্কুলগুলিতে পর্যাপ্ত খাবার আছে আর মাত্র কয়েকদিনের। চলছে না গাড়ি-ঘোড়া। শুক্রবার থেকে স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি পড়ছে। বনধে স্কুলের গাড়িগুলিকে ছাড় দেওয়ায় খুশি সেন্ট জোসেফ নর্থ পয়েন্টের পড়ুয়ারা।

স্কুলগুলিতে এইসময় পরীক্ষা চলছে। যান-বাহন না চলায় স্থানীয় ছাত্রছাত্রীরা স্কুলে আসছে না। দশদিনের গরমের ছুটির মধ্যে যদি বনধ প্রত্যাহার হয় তাহলে স্কুল খুললেই পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত কর্তৃপক্ষের। না হলে যেদিন সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা আসতে পারবে সেদিনই পরীক্ষা হবে। জানিয়েছে স্কুলগুলি।

First published: 07:54:43 PM Jun 21, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर