পাহাড়ে শান্তি ফেরানোর দাবিতে দার্জিলিঙে মিছিলে সংখ্যালঘু মানুষেরা

Jun 18, 2017 11:53 AM IST | Updated on: Jun 18, 2017 11:53 AM IST

#দার্জিলিং: অশান্ত দার্জিলিং ৷ আগুন জ্বলছে পাহাড়ে ৷ শান্তি ফিরুক পাহাড়ে ৷ ফের পর্যটকের শোরগোলে ভরে উঠুক ম্যাল, চক বাজার, চাবাগান ৷ এরকমই আশা নিয়ে এবার মোর্চার মিছিলের আগেই শান্তি মিছিলে পাহাড়ে নামলেন দার্জিলিঙের সংখ্যালঘু মানুষেরা ৷ মিছিলে হাঁটলেন পাহাড়ে শান্তি ফেরানোর দাবিতে মিছিলে হাঁটলেন মহিলারা ৷ হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে মিছিলে দেখা গেল শান্তি মিছিল ৷ প্ল্যাকার্ডে লেখা ‘উই ওয়ান্ট পিস’, ‘উই ওয়ান্ট গোর্খাল্যান্ড’ ৷

অগ্নিগর্ভ পাহাড় ৷ মোর্চার পাহাড় বনধ ঘিরে রণক্ষেত্র সিংমারি। পাহাড়ে পুলিশ-মোর্চা সংঘর্ষে মৃত্যু এড়ানো গেল না। প্রায় ত্রিশ বছর পর পাহাড়ে মৃত্যু হল তিন মোর্চা সমর্থকের। সেই মৃত্যুকে কেন্দ্র করেই এবার নতুন রাজনীতির পথে মোর্চা ৷ রবিবার মোর্চা ডাক দিল প্রতিবাদ দিবস ৷ সকাল ১০টা থেকে চকবাজারে প্রতিবাদ দিবস ৷ মোর্চার ৩ সদস্যের দেহ আনা হবে চকবাজারে ৷ সেখানেই বিক্ষোভ প্রদর্শনের ডাক ৷ মোর্চার কর্মসূচি ঘিরে অশান্তির আশঙ্কা ৷

পাহাড়ে শান্তি ফেরানোর দাবিতে দার্জিলিঙে মিছিলে সংখ্যালঘু মানুষেরা

সংঘর্ষে এড়ানো গেল না মৃত্যু। উত্তপ্ত দার্জিলিঙে নতুন করে ঘি ঢালল মোর্চার দাবি ৷ স্থানীয় সংবাদ চ্যানেলের ফেসবুকে পেজে দুই ব্যক্তির রক্তাক্ত ছবি পোস্ট করে মোর্চা দাবি করেছে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে দুই মোর্চা সমর্থকের ৷ পরে প্রকাশিত হয় দুই নয় পুলিশ-মোর্চা সংঘর্ষে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে ৷ আহত ৫। মৃত বিমল শাশঙ্কর, সুনীল রাই ও মহেশ গুরুংয়ের মৃতদেহ সেনা হাসপাতালে আছে ৷

মোর্চা সমর্থকের মৃত্যুর প্রতিবাদে কাল ১২ ঘণ্টার ডুয়ার্স বনধের ডাক দিল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা ৷ জানালেন মোর্চার ডুয়ার্সের সম্পাদক রোহিত থাপা ৷পাহাড়ের বাইরেও আন্দোলন ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা মোর্চার। তিন সমর্থকের মৃত্যুর প্রতিবাদে, রবিবার ১২ ঘণ্টার ডুয়ার্স বনধের ডাক বিমল গুরুংদের। বনধ ঘিরে ডুয়ার্সেও অশান্তির আশঙ্কা।

প্রথমে মোর্চা দাবি করে, পুলিশের গুলিতে তাঁদের এক সমর্থকের মৃত্যু হয়। দার্জিলিং-এর একটি স্থানীয় কেবল চ্যানেলের ফেসবুক পেজে প্রথমে এক সমর্থকের দেহের ছবি আপলোড করা হয়। সেখানে দাবি করা হয়, পুলিশের গুলিতেই মৃত্যু হয় এই সমর্থকের। এরপরে আরও কয়েকজনের মৃত্যু হয় বলে দাবি করে মোর্চা। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে নিয়ে যাওয়া হয় সমর্থকদের দেহ। পুলিশের গুলিতেই মৃত্যু হয়েছে বলে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে মৃতদের পরিবার।

এদিকে মোর্চা সমর্থকদের মৃত্যু ঘিরে শুরু হয়েছে চাপানউতোর। পাহাড়ে পুলিশ গুলি চালায়নি বলে দাবি করেছেন এডিজি আইন-শৃঙ্খলা অনুজ শর্মা।

অন্যদিকে, ডিএসপি পদের এক পুলিশকর্মী খুকরির ঘায়ে আহত হয়ে হাসপাতালে ভরতি। মোর্চার হামলায় IRB-র অ্যাসিস্টন্টেন্ট কম্যান্ডার কিরণ তামাং গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৷ মোর্চা সমর্থকদের হিংসা থামাতে গেলে তারা ওই সেনা জওয়ানকে কুকরির কোপ দেয়৷ শিলিগুড়িতে অস্ত্রোপচার চলছে কিরণের ৷

ষষ্ঠ দিনে জ্বলছে দার্জিলিং। মহিলা মোর্চার পাতলেবাস অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্র সিংমারি। পিছনে তৈরি ছিল যুব মোর্চা ও জিএলপি। মিছিল আচকালে শুরু হয় ধস্তিধস্তি। সংঘর্ষে পুলিশকে লক্ষ করে ইট বোমা, পেট্রোল বোমা ছোড়ে মোর্চা সমর্থকরা। গুলিও ছোড়া হয় বলে অভিযোগ।

পালটা প্রত্যাঘাত পুলিশের। ছোড়া হয় কাঁদানে গ্যাস, লাঠিচার্জ করা হরণক্ষেত্রের চেহারা নেয় এলাকা। দুদিক থেকে পুলিশকে ঘিরে চলে আক্রমণ। প্রথমে বিহ্বল হয়ে পড়লে মুহূর্তে সামলে শুরু হয় প্রত্যাঘাত।

পিছু হঠে সিংমারি আউটপোস্টের কাছে পরপর গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় মোর্চা। ফাঁড়িতে অবাধে ভাঙচুর করা হয়। আহত বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মী। পরিস্থিতি সামলাতে ডাকা হয় সেনা। সামলাতে সেনার মাইকিং। এরিয়া ডমিনেশন।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES