পাহাড়ে নয়া সচিবালয়, মোর্চার বিক্ষোভ সত্ত্বেও উন্নয়ন হাতিয়ার মমতার

Jun 08, 2017 04:48 PM IST | Updated on: Jun 08, 2017 05:24 PM IST

#দার্জিলিং: পাহাড়ে উন্নয়নই হাতিয়ার মুখ্যমন্ত্রীর। সেই লক্ষ্যে এবার উত্তরকন্যার আদলে পাহাড়েও তৈরি হচ্ছে নয়া সচিবালয়। প্রবাদপ্রতিম শেরপা তেনজিন নোরগের নামেই নামকরণ হতে চলেছে ওই প্রশাসনিক ভবনের। দার্জিলিঙে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর ঘোষণা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। একইসঙ্গে মিরিকে শিক্ষাকেন্দ্র তৈরির সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে। দার্জিলিং-মিরিক নয়া বাস পরিষেবারও ঘোষণা হয়েছে।

ক্ষমতায় এসে উত্তরবঙ্গে দীর্ঘদিনের বঞ্চনা মুছে ফেলতে তৎপর হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্যে জলপাইগুড়িতে তৈরি করেন সচিবালয় উত্তরকন্যা। মোর্চার বিক্ষোভ সত্ত্বেও পাহাড়ে উন্নয়নই পাখির চোখ মমতার। সেই লক্ষ্যপূরণে পাহাড়েও সচিবালয় তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হল মন্ত্রিসভার বৈঠকে।

পাহাড়ে নয়া সচিবালয়, মোর্চার বিক্ষোভ সত্ত্বেও উন্নয়ন হাতিয়ার মমতার

পুরসভা ভোটে মিরিকে পা ফেলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। সেই কথা মাথায় রেখে মিরিককে উপহার দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে নয়া শিক্ষাকেন্দ্র তৈরির সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন তিনি।

তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রাজ্যে কয়েকটি নতুন জেলা ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু, প্রশাসন সামাল দিতে সরকারি অফিসারের সংখ্যা নেহাত কম। সেই খামতি পূরণে বিসিএস স্তরের অফিসারদের আইএএস পদমর্যাদা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে রাজ্য।

পাহাড়ে মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক করেন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়। তারপর, চার দশক বাদে দার্জিলিঙে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার বৈঠক। ফলে তাকে ঘিরে আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। বিভেদের চেষ্টা মুছে দিয়ে সেই প্রত্যাশাপূরণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES