শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত চাষের জমি মুখ্যমন্ত্রীকে দেখার আবেদন চাষীদের

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Mar 23, 2017 08:42 PM IST
শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত চাষের জমি মুখ্যমন্ত্রীকে দেখার আবেদন চাষীদের
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Mar 23, 2017 08:42 PM IST

#ময়নাগুড়ি: শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত চাষীরা এবার মুখ্যমন্ত্রীকে সরেজমিনে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষি এলাকা পরিদর্শনের আবেদন জানালেন। গত সোমবার ডুয়ার্সের ময়নাগুড়ি এবং মালবাজার ব্লকে ব্যাপক হারে শিলাবৃষ্টি হয়। প্রাথমিক ভাবে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ ৫ কোটি টাকা বলা হলেও সব গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা থেকে হিসেব পাওয়ার পর সেই ক্ষতির পরিমাণ গিয়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৪ কোটি টাকা !

ময়নাগুড়ি ব্লকে কৃষিক্ষেত্রে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৬ কোটি টাকা, আর মালবাজার ব্লকে ক্ষতির পরিমাণ গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৮ কোটি টাকার কাছাকাছি। আলু, পটল, কুমড়ো, লঙ্কা, বেগুন, ভুট্টা এবং আখ চাষে ক্ষতির পরিমাণ সব থেকে বেশি। ব্লক প্রশাসনের থেকে বিভিন্ন এলাকায় পরিদর্শন করা হলেও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার পরিমান এত বেশি যে সব এলাকায় এখনও প্রশাসনের লোক পৌঁছনো সম্ভব হয়নি।

তাই কিছু ক্ষেত্রে গ্রামবাসিরাই উদ্যোগী হয়ে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ হিসেব করে ব্লক প্রশাসনের হাতে পৌঁছে দিচ্ছে। এদিন ময়নাগুড়ি ব্যাঙ্কান্দি এলাকার বাসিন্দারা নিজেরাই তাঁদের চাষবাসের ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণের তালিকা বানিয়ে ময়নাগুড়ির বিডিওর হাতে তুলে দেন। ব্যাঙ্কান্দি এলাকার বাসিন্দা, নয়ন সরকার, দেবব্রত সরকার, সুব্রত দাস-দের বক্তব্য, এলাকার প্রতিটি মানুষ কৃষির ওপরেই নির্ভরশীল।

প্রতিবছর এলাকায় বিভিন্ন সবজি ভালই ফলন হয়। এলাকার অনেক বাসিন্দাই রয়েছেন যাঁরা লোন নিয়ে এই চাষবাস করে থাকেন। পরে উৎপাদিত ফসল বাজারে বিক্রির পর তারা লোন শোধ করে দেন। কিন্তু এবছর হঠাৎ এত ব্যাপক হারে শিলাবৃষ্টি হবার কারনে এলাকার সব চাষবাস নষ্ট হয়ে গিয়েছে।

অনেকের জমিতে জল দাঁড়িয়ে গিয়ে ফসলে পচন ধরেছে। কারোর আবার শিলের কারনে গাছ নষ্ট হয়ে গিয়েছে। সব মিলিয়ে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন তারা। তাই কিভাবে আগামি দিনে বিজ কিনে অন্য চাষ শুরু করবেন কিংবা যাদের লোন নিয়ে চাষাবাদ করা, তারা কিভাবে লোন শোধ করবেন, এই ভেবেই কুল পাচ্ছেন না তারা।

এলাকার বাসিন্দাদের বক্তব্য, ইতিপূর্বে যেখানেই কোনো বিপর্যয় ঘটেছে সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী ছুটে গিয়েছেন। আগামী সপ্তাহে মুখ্যমন্ত্রীর জলপাইগুড়ি জেলা সফর রয়েছে। তাই সেই সফরের সময় যাতে মুখ্যমন্ত্রী নিজে এসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন সেই আবেদন করেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা। ক্ষতিগ্রস্তদের বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রী নিজে এসে এলাকা পরিদর্শন করলে তারা সরকারিভাবে বিভিন্ন ক্ষতিপুরণ পাবেন। এবং তাদের সমস্যার কিছুটা সুরাহা হবে। এদিন, ময়নাগুড়ি ব্লকের কৃষকরা মিলিত হয়ে ময়নাগুড়ির বিডিওর কাছে তাদের আবেদন তুলে দেন। ময়নাগুড়ি পঞ্চায়েত সমিতির কৃষি কর্মাধ্যক্ষ মনোজ রায় জানান, শিলের কারনে সাম্প্রতিক কালের মধ্যে এত বেশি ক্ষয়ক্ষতি এই এলাকায় হয়নি। শিলের কারনে চাষের জমির বিভিন্ন ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে। তাই ক্ষতিগ্রস্তদের যাতে ক্ষতিপুরণের ব্যবস্থা করা যায়, সেব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ময়নাগুড়ি ব্লক কৃষি আধিকারিক সঞ্জীব দাস জানান, সবজি চাষে ক্ষতির পরিমাণ সব থেকে বেশি। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা। বিভিন্ন এলাকায় কৃষি দফতরের কর্মীরা পৌঁছে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ জানার চেষ্টা চালাচ্ছেন। ময়নাগুড়ির বিডিও শ্রেয়সি ঘোষ জানান, কৃষি দফতর থেকে হিসেব নিয়ে সেটা জেলা প্রশাসনকে জানানো হচ্ছে। চাষীরা কিভাবে ক্ষতিপূরণ পান সেব্যাপারেও আলোচনা চলছে।

First published: 08:31:39 PM Mar 23, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर