জঙ্গি আন্দোলনকে আরও জোরালো করতে মোর্চার অস্ত্র জিএলপি

Jun 20, 2017 10:47 AM IST | Updated on: Jun 20, 2017 10:48 AM IST

#দার্জিলিং: নতুন করে লড়াইয়ে বাহিনী তৈরি করছে মোর্চা। পাঁচ-দশ বছর আগে যাঁদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল তাঁদের নতুন করে কাজে লাগানো হচ্ছে। গোর্খাল্যান্ড পার্সোনেল বা জিএলপির সেই বাহিনীকেই আবার সক্রিয় করছে মোর্চা। গত কয়েকদিন যারা রাজ্য পুলিশ, আধা সামরিক বাহিনী বা সেনা বাহিনীকে পিছু হঠিয়েছে। সেই জিএলপি আবার সংগঠিত হচ্ছে।

পাহাড়ে ফের জোরালো আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মোর্চার। ভবিষ্যতে জঙ্গি আন্দোলনকে আরও জোরালো করতে নয়া স্ট্রাটেজি নিচ্ছে গুরুঙরা। লড়াইয়ের পুরনো বাহিনী গোর্খাল্যান্ড পার্সোনেল বা জিএলপিকে আবারও সক্রিয় করছে মোর্চা।

জঙ্গি আন্দোলনকে আরও জোরালো করতে মোর্চার অস্ত্র জিএলপি

কি এই জিএলপি?

- জিএলপি বা গোর্খাল্যান্ড পার্সোনেল

- ২০০৭ সালে মোর্চা তৈরির সময়ই জিএলপি তৈরি হয়

- মোর্চার একটি শাখা সংগঠন এই জিএলপি

- প্রথমে জিএলপির সদস্য সংখ্যা ছিল ১৩,০০০

- বর্তমানে সক্রিয় গোর্খাল্যান্ড পার্সোনেলের সংখ্যা প্রায় ৫০০০

রাজ্য পুলিশ-প্রশাসনের সঙ্গে লড়াইতে কেন জিএলপির উপর এত ভরসা করছে মোর্চা? কারণ, সংগঠিত বাহিনীর মোকাবিলা করতে সক্ষম জিএলপির সদস্যরা।

- প্রাক্তন সেনা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে তৈরি ভারতীয় সৈনিক মোর্চা

- তাঁদের নেতৃত্বেই চলেন গোর্খাল্যান্ড পার্সোনেলের সদস্যরা

- জিএলপির সদস্যদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে

- অস্ত্র ছাড়া সম্মুখ সমরে পারদর্শী জিএলপির সদস্যরা

- ব্যক্তি নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রেও এদের প্রশিক্ষণ রয়েছে

- জনসংযোগ করার ক্ষেত্রেও জিএলপির সদস্যরা পারদর্শী

আর তাই জিএলপির সেই বাহিনীকেই আবার সক্রিয় করছে মোর্চা।

শুধু পুরনোদের সক্রিয় সরাই নয়। নতুন জিএলপি সদস্য তৈরিতেও জোর দেওয়া হচ্ছে।

জিএলপির সদস্যরা রাজ্যপুলিশ, আধা সামরিক বাহিনী বা সেনা বাহিনীকে কতটা বেগ দিতে সক্ষম, তা গত কয়েকদিনের পাহাড়ের সংঘর্ষের ছবিতেই স্পষ্ট।

শুধু জঙ্গি আন্দোলন নয়, মোর্চা সুপ্রিম বিমল গুরুং-সহ অন্য শীর্ষ নেতাদের নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রেও জিএলপির সদস্যদের ব্যবহার করবে মোর্চা।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES