রাতভর রেকর্ড বৃষ্টি, জলপাইগুড়িতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

Aug 12, 2017 04:49 PM IST | Updated on: Aug 12, 2017 04:49 PM IST

#কলকাতা: মরসুমের সর্বাধিক বৃষ্টি। রাতভর রেকর্ড ২৯৫ মিলিমিটার বৃষ্টি জলপাইগুড়িতে। যার জেরে জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

জলমগ্ন গোটা শহর। সবথেকে খারাপ অবস্থা জলপাইগুড়ির আটটি ওয়ার্ডের। জল বেড়েছে তিস্তা ও করলার। তিস্তা ব্যারাজের ছাড়া জলে প্লাবিত বিস্তীর্ণ এলাকা। জলমগ্ন জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতাল। আরও বৃষ্টির পূর্বভাস থাকায় আশঙ্কা বেড়েছে। জলবন্দি বেশকিছু মানুষকে ত্রাণ শিবিরে সরান হয়েছে।

রাতভর রেকর্ড বৃষ্টি,  জলপাইগুড়িতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

রাতভর টানা বৃষ্টির সঙ্গে ভুটান পাহাড়ের জলে বন্য পরিস্থিতির অবনতি কোচবিহারে। বিপদ সীমার উপর দিয়ে বইছে মানসাই, কালজানি, গদাধর নদী।

বলরামপুরে জলে ভেসে গিয়ে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। কোচবিহারের দেউচরাইতে জলবন্দি মানুষকে উদ্ধারে বিএসএফ জওয়ানদের নামন হয়েছে। বন্ধ কোচবিহার থেকে অসম ও মাথাভাঙা থেকে শিলিগুড়ি যান চলাচল। জল বাড়ায় দিনহাটার কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা বাংলাদেশে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। এদিন বন্য পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। ত্রাণ বিলি করেন তিনি। জেলাজুড়ে কয়েকশো ত্রাশ শিবির খোলা হয়েছে।

ভুটান পাহাড় ও ডুয়ার্সে টানা বৃষ্টি। যার জেরে তিস্তা, তোর্সা, জলঢাকা, রায়ডাক, গিলান্ডি, ডুডুয়া ও বিরকিটি নদীর জলস্তর বেড়েছে। হাতিনালা দিয়ে ভুটান পাহাড়ের জল ঢুকছে বিন্নাগুড়িতে। জল বেড়াছে ধূপগুড়ি ব্লকেও। রবিবার ভোট। তার আগে জলমগ্ন বহু ভোট কেন্দ্র। খারাপ অবস্থা ধূপগুড়ির ষোলেটি ওয়ার্ডেরই। একত্রিশ ডি নম্বর জাতীয় সড়ক ও বিন্নাগুড়ি স্টেশনে আশ্রয় নিয়েছেন দু্র্গতরা। জলমগ্ন একত্রিশ নম্বর জাতীয় সড়কও। শহরের পাশাপশি জলমগ্ন গ্রামীন এলাকাও। জলবন্দি প্রায় পনেরো হাজার মানুষ। ডুয়ার্সে একাধিক ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে।

বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন জেলাশাসক ও মহকুমা শাসক। জলবন্দিদের উদ্ধারে গিয়ে ডুডুয়ার বারোহালিয়ায় উলটে যায় নৌকা।

টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন আলিপুরদুয়ারও। কালজানি নদীর জলস্তর বেড়ে বিস্তীর্ণ এলাকায় কোমর সমান জল। জলবন্দি কয়েকহাজার মানুষ। তাঁদের উদ্ধারে এসএসবিকে নামান হয়েছে। ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়েছে জেলার বেশ কয়েকটি স্কুল। বিচ্ছিন্ন কোচবিহার-আলিপুরদুয়ার যোগাযোগ। বন্ধ আলিপুরদুয়ার জংশন-বামনহাট ট্রেন চলাচল।

রাতভর টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন শিলিগুড়ি মহকুমার বিস্তীর্ণ এলাকা। জল বাড়ছে মহানন্দা ও বালাসন নদীর। জল জমেছে শিলিগুড়ি শহরের বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডেও। জলমগ্ন চম্পাসারি, মিলনমোড়, ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ির কিছু এলাকাও। জল ছাড়া হয় মহানন্দা ক্যানাল থেকে। সেবক রোড ও সুভাষ পল্লিতে গাছ পড়ে সমস্যা বাড়ে। ব্যাহত হয় ট্রেন চলাচলও। সাতটি ট্রেন বাতিল করা হয়। রাজধানী-সহ একাধিক ট্রেন দেরিতে চলে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES