মোর্চার বনধে সাড়া দিল না দার্জিলিং, আতঙ্ক কাটিয়ে স্বাভাবিক ছন্দেই ছিল পাহাড়

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jun 12, 2017 07:07 PM IST
মোর্চার বনধে সাড়া দিল না দার্জিলিং, আতঙ্ক কাটিয়ে স্বাভাবিক ছন্দেই ছিল পাহাড়
Photo : AFP
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jun 12, 2017 07:07 PM IST

#দার্জিলিং: শুধুমাত্র সরকারি অফিস ও ব্যাঙ্কেই বনধ ডাকা হয়। কিন্তু মোর্চার সেই ডাকে সাড়া দিল না পাহাড়। মোর্চার আন্দোলনকে ভোঁতা করতে প্রস্তুত ছিল প্রশাসন। পথে নেমে নজরদারি চালালেন পুলিশ, প্রশাসনের শীর্ষকর্তারা। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে চলল দফায় দফায় বৈঠক। প্রশাসনে আস্থা রেখে সরকারি অফিস ও ব্যাংকে কর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মত। বিভিন্ন সরকারি অফিসে হাজিরা ছিল প্রায় পঁচানব্বই শতাংশ।

আতঙ্ক ছিল। ছিল আশঙ্কাও । তবে মোর্চার অন্যান্য বনধের মত স্তব্ধ হয়নি পাহাড়। অনেকেই আতঙ্ক কাটিয়ে পথে নেমেছেন। অফিসে গেছেন। গেছেন ব্যাঙ্কেও। দোকানপাট খোলা। হয়েছে কেনা-বেচা। এটাই ছিল মোর্চার বনধের প্রথমদিনের ছবি। পুলিশ, র‍্যাফ, রোবোকপ, সিআরপিএফ, মহিলা প্রশিক্ষিত বাহিনী, কমব্যাট পুলিশ , কেন্দ্রীয় বাহিনী। নিরাপত্তার চাদরে মোড়া পাহাড়। সব সরকারি দফতরের সামনে কড়া নজরদারি। সকাল থেকেই রাস্তায় ঘুরেছেন দার্জিলিঙের জেলাশাসক ও নতুন এসপি। অফিসের বাইরে যখন মোর্চা সমর্থকদের হইচই, ভিতরে বসে মণিটরিং-য়ে ব্যস্ত কালিম্পঙের জেলাশাসক।

মোর্চার ডাকা বনধ মোকাবিলায় রাজ্য সরকার যে কড়া মনোভাব নেবে তা আগেই জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার বনধকে উপেক্ষা করেই দার্জিলিংয়ের একাধিক সরকারি অফিসে হাজিরা ছিল। একই ছবি GTA দফতরগুলিতেও । পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে দার্জিলিঙে বৈঠকে বসেন তিন আইপিএস অফিসার। জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠক করেন জাভেদ শামিম, সিদ্ধিনাথ গুপ্তা ও অজয় নন্দা। পরে রাস্তায়েও ঘুরে বেড়ান তাঁরা। সকাল থেকেই বিভিন্ন সরকারি অফিসের সামনে ছিল মোর্চার কর্মসূচি। তবে কড়া প্রশাসনের নজরদারি এড়িয়ে বড় সড় কোনও অঘটন ঘটেনি। আতঙ্ক কাটিয়ে স্বাভাবিক ছন্দেই ছিল পাহাড়। বনধের প্রথম দিন জোর ধাক্কা মোর্চার ।

First published: 07:07:55 PM Jun 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर