কেরিয়ারের গ্রাফ দ্রুত বাড়াতে এয়ারলাইন্সের চাকরি কেন বেশি লাভজনক ?

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 29, 2017 10:54 PM IST
কেরিয়ারের গ্রাফ দ্রুত বাড়াতে এয়ারলাইন্সের চাকরি কেন বেশি লাভজনক ?
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 29, 2017 10:54 PM IST

#কলকাতা: অনেক অল্প বয়স থেকেই আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন অনেকেরই থাকে ৷ কেরিয়ারে উন্নতির শিখরে পৌঁছনোটা বর্তমান সময় অন্তত যেকোনও মানুষেরই ফার্স্ট প্রায়োরিটি ৷ কিন্তু অনেক সময়েই সেটা হয়তো কোনও না কোনও কারণে হয়ে ওঠে না অধিকাংশ মানুষের জীবনেই ৷ তখনই আসে ডিপ্রেশন ৷ ‘জেন নেক্সট’ যুগে অধিকাংশ ছেলেমেয়েরই ধৈর্য্যশক্তি অনেকাংশেই কম ৷ খুব অল্প সময়ের মধ্যেই জীবনের স্বপ্নগুলি বাস্তবায়িত না হলেই আর কোনও কিছুতেই যেন তাদের মন লাগতে চায় না ৷ স্কুল-কলেজ পাশ করার পর উচ্চ শিক্ষার অনেক ডিগ্রি হাতে থাকলেও অনেক সময়েই কেরিয়ার ঠিকঠাক ক্লিক করে না ৷ এর ফলে অনেকেই নিজের ইচ্ছা-স্বপ্নগুলি চেপে রেখে নিজের অপছন্দের চাকরি করতেই বাধ্য হয় ৷ আবার অনেকেই রয়েছেন, যাঁরা পছন্দের চাকরি করেও নিজের দক্ষতা অনুযায়ী বেতন পান না ৷ বছরের পর বছর এমন চললে কারই বা ভাল লাগে ৷ কিন্তু বাজারে চাকরির অভাবে সহজেই চাকরি ছাড়াটা কারোর পক্ষেই সম্ভব হয় না ৷ এই একটা বিষয় হয়তো অন্যান্য প্রফেশনের থেকে কিছুটা হলেও এগিয়ে রয়েছে এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি ৷ যেখানে পরিশ্রম হয়তো অনেক বেশি ৷ কিন্তু পারিশ্রমিকও ততোধিক ৷

দেশের বিমান শিল্পে গত কয়েকবছরে দারুণ বৃদ্ধি লক্ষ্য করা গিয়েছে ৷ অন্তর্দেশীয় বিমান চলাচলে জাপানকে সরিয়ে ইতিমধ্যেই তৃতীয় স্থান অধিকার করে নিতে সফল ভারত ৷ একাধিক নতুন বেসরকারি বিমানসংস্থা যেভাবে বিমান ব্যবসায় পা রাখছে ৷ তাতে এয়ারলাইন্স ব্যবসায় প্রতিযোগিতা যেমন বাড়ছে, তেমন দেশের বিমান শিল্পও লাভবান হচ্ছে ৷ বহুবছর পর আবার লাভের মুখ দেখেছে রাষ্ট্রায়াত্ত্ব সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়া ৷ তেমনি ইন্ডিগো, স্পাইসজেট, গো এয়ার-এর মতো লো কস্ট এয়ারলাইন্সগুলিও অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবায় এখন যাত্রীদের হট ফেভারিট ৷ নিত্য-নতুন স্কিম এনে যাত্রীদের যেভাবে বিমানে চড়ার জন্য আকর্ষণ করা হচ্ছে, তাতে মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষও এখন ট্রেনের থেকে বিমানকেই কোথাও যাওয়ার জন্য ফার্স্ট চয়েজ হিসেবে ধরছেন ৷ গত কয়েক বছরে দেশের এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রির এই ব্যাপক বৃদ্ধির ফলেই বর্তমানে এটা সম্ভব হয়েছে ৷ পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকেও দেশে আরও বেশি সংখ্যক বিমানবন্দর তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ৷ এর ফলে অনেক ছোট ছোট শহরেও বিমান ওঠানামা সম্ভব হয়েছে ৷ অনেক কম সময়েই এর ফলে যাত্রীরা পৌঁছতে পারছেন নিজেদের গন্তব্যে ৷ এই ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক বেশি কর্মসংস্থানও এর ফলে সম্ভব হচ্ছে ৷

অনেকেই ভাবেন বিমানসেবিকা বা কেবিন ক্রু-র চাকরি অনেক বেশি গ্ল্যামারে ভরা ৷ কিন্তু বাস্তবে কী তাই ? এর উত্তর দিয়েছেন দেশের এক নম্বর এয়ারহোস্টেস ট্রেনিং ইনস্টিটিউট ফ্র্যাঙ্কফিনের গ্রুপ চেয়ারম্যান কে. এস কোহলি ৷ কলকাতায় সংস্থার একটি সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘‘বিমানসেবিকার চাকরি মোটেই গ্ল্যামারে ভরা নয় ৷ কিন্তু জীবনকে ‘গ্ল্যামারাস’ করার জন্য এই চাকরি অত্যন্ত লাভজনক ৷ ’’ তার প্রথম এবং প্রধান কারণই হল এই চাকরিতে বেতন অস্বাভাবিকরকম ভাল ৷একমাত্র এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রিতেই অত্যন্ত কম বয়সে অনেক বেশি টাকা বেতন পাওয়ার সুযোগ রয়েছে ৷ ইনফ্লাইট চাকরির ক্ষেত্রে বেতন যেমন বেশি তেমনি গ্রাউন্ডস্টাফদের মাসিক বেতনও মন্দ নয় ৷ আর এর জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা প্রয়োজন মাত্র ১০+ ২ পাশ ৷  কেবিন ক্রু-র চাকরিতে ঢুকেই ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বাধিক ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা পর্যন্ত মাসিক বেতন পাওয়া সম্ভব ৷ যা অন্যান্য অনেক সেক্টরেই হয়তো পাওয়া যায় না ৷ এই প্রফেশনে গায়ের রং বা সুন্দর দেখাটাই আসল নয়, ‘স্মার্টনেস’ এবং অসম্ভব পরিশ্রম করার ক্ষমতা থাকাই একজন বিমানসেবিকা এবং ফ্লাইট স্টিওয়ার্টের সবচেয়ে বড় গুণ ৷ দেশের এয়ারলাইন্স সেক্টরে ভাল এবং দক্ষ কেবিন ক্রু তৈরি করার কাজটা বছরের পর বছর ধরে করে আসছে ফ্র্যাঙ্কফিন ৷ সংস্থার পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২২ সালের মধ্যে বিমান পরিষেবাতেও দেখা যেতে চলেছে ‘এয়ার ফ্র্যাঙ্কফিন’-কে ৷ শুরুতে শুধুমাত্র ৩-৪টে বিমান দিয়েই তাদের পরিষেবা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন কে.এস কোহলি ৷ এছাড়া পূ্র্ব ভারতেও নিজেদের এয়ারহোস্টেস ট্রেনিং ব্যবসা এবছর আরও বাড়াতে উদ্যোগী হয়েছে ফ্র্যাঙ্কফিন ৷ এর জন্য পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারত মিলিয়ে ৩০টি নতুন ট্রেনিং সেন্টার তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে সংস্থার ৷ শুধুমাত্র কলকাতাতেই আরও ৫টি সেন্টার ২০১৭-১৮ বছরে খুলবে ফ্র্যাঙ্কফিন ৷ এভিয়েশন, হসপিটালিটি, ট্রাভেল অ্যান্ড কাস্টমার সার্ভিস সব বিভাগেই ছাত্র-ছাত্রীদের দক্ষ করে তোলাই হল সংস্থার একমাত্র লক্ষ্য ৷

First published: 10:41:11 PM Jun 29, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर