কেন্দ্রের সহযোগিতা নেই, সৌরশক্তি ব্যবহার বৃদ্ধির প্রকল্পে ধাক্কা খেল রাজ্য সরকার

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Aug 28, 2017 03:35 PM IST
কেন্দ্রের সহযোগিতা নেই, সৌরশক্তি ব্যবহার বৃদ্ধির প্রকল্পে ধাক্কা খেল রাজ্য সরকার
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Aug 28, 2017 03:35 PM IST

#কলকাতা: ভবিষ্যতের কথা ভেবে চিরাচরিত পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন কমিয়ে সৌরশক্তির ওপর জোর দিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। কিন্তু রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগ ধাক্কা খাচ্ছে কেন্দ্রের অসহযোগিতায়।

পশ্চিমবঙ্গ-সহ সব রাজ্যকে সোলার পার্ক তৈরি করার জন্য আগেই প্রস্তাব দিয়েছে কেন্দ্র। তার জন্য এক লপ্তে যে পরিমান জমির প্রয়োজন, তা পাওয়া সম্ভব নয় পশ্চিমবঙ্গে। তাই এর বিকল্প প্রস্তাব দিয়েছিল রাজ্য। কিন্তু তাতে সাড়া দিচ্ছে না কেন্দ্র। আটকে রয়েছে কেন্দ্রের অনুদানও। ফলে বাধা পাচ্ছে রাজ্যের কয়লার ব্যবহার কমিয়ে ‘সৌরশক্তি প্রজেক্ট’-র পরিকল্পনা।

তিন বছর আগে নরেন্দ্র মোদি কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর সব রাজ্যকে সোলার পার্ক তৈরির প্রস্তাব দেওয়া হয়। প্রকল্পের শর্ত অনুযায়ী প্রতিটি পার্ক ৫০০ মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষম হতে হবে। এর জন্য এক মেগাওয়াট প্রতি ২০ লক্ষ টাকার অনুদান দেবে কেন্দ্র। কিন্তু এক মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য দরকার চার একর জমির। অর্থাৎ ৫০০ মেগাওয়াট প্রকল্পের জন্য দরকার ২০০০ একর জমির।

পশ্চিমবঙ্গে এক লপ্তে এত জমি অধিগ্রহণ করা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য, রাজ্যের জন ঘনত্বের হার অন্যান্য অনেক রাজ্যের থেকে বেশি। তাই কেন্দ্রকে বিকল্প প্রস্তাব দিয়েছে রাজ্য। এরাজ্যের প্রস্তাব ছিল বাস্তব পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে ছোট ছোট প্রকল্পের অনুমতি দিক কেন্দ্র। এক সঙ্গে না হলেও কয়েকটি কেন্দ্রের মাধ্যমে ৫০০ মেগাওয়াটের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করবে রাজ্য। কিন্তু এই প্রস্তাব মানতে নারাজ কেন্দ্র। ফলে এই প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ অর্থ পাচ্ছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

পাশাপাশি রাজ্য সরকারের অধীনে থাকা স্কুলগুলোর মধ্যে প্রায় ১৫০০ স্কুলে সৌরশক্তির দ্বারা চালিত বিদ্যুৎ ব্যবস্থার পরিকল্পনা নিয়েছিল। এই ব্যবস্থা পুরোপুরি রূপায়িত হলে দিনে প্রায় এক লক্ষ ৫০ হাজার কিলো কার্বাইড অক্সাইড উৎপাদন কম হবে। ইতিমধ্যেই ২৯০ স্কুলে গ্রিড মারফত ১০ কিলো ওয়াট করে সৌর বিদ্যুৎ ব্যবস্থা চালু হয়েও ইতিমধ্যেই। তার সুফলও পাচ্ছে স্কুলগুলো। এর মধ্যে অন্যতম সন্তোষপুর মডার্ন ল্যান্ড বালিকা বিদ্যালয়।

দু’বছর আগে এই স্কুলে ১০ কিলো ওয়াটের সৌর বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হয়। এই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা অনন্যা রায় চৌধুরীর দাবি, সৌর বিদ্যুৎ বসানোর আগে বছরে গড়ে এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকার মত বিদ্যুৎ বিল মেটাতে হত। এখন যা দাঁড়িয়েছে, তাতে বছরে মাত্র ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা বিদ্যুৎ বিল দিতে হয়।

স্কুল প্রতি সৌর বিদ্যুৎ ব্যবস্থা করতে খরচ প্রায় ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। অর্থাৎ বাকি ১৫০০ স্কুলের জন্য খরচ হবে ৯৭ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা। এই টাকার মধ্যে ১০০০ স্কুলের খরচ দেওয়ার কথা কেন্দ্রীয় সরকারের। সেই মত রাজ্যকে সবুজ সঙ্কেতও দিয়েছিল কেন্দ্র। কিন্তু কাজ শুরু করার পর কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের অংশের টাকা দিতে গড়িমসি করছে। ফলে কাজে নেমে সঙ্কটে পড়েছে রাজ্য সরকার। ফলে কয়লার ব্যবহার কমিয়ে সৌরশক্তির ব্যবহার বাড়ানোর যে চেষ্টা পশ্চিমবঙ্গ সরকার করছে, তা কতটা বাস্তবায়িত হবে তা ভবিষ্যতই বলবে।

রিপোর্টার: সৌজন মণ্ডল

First published: 03:35:43 PM Aug 28, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर