১ সপ্তাহ গাছ কাটা যাবে না যশোর রোডে, নির্দেশ আদালতের

Apr 28, 2017 08:14 PM IST | Updated on: Apr 28, 2017 08:14 PM IST

#কলকাতা: আগামী সাতদিন যশোর রোডের দুধারে কোনও গাছ কাটা যাবে না। নির্দেশ অস্থায়ী প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের। বারাসত থেকে পেট্রাপোল পর্যন্ত রাস্তা চওড়া করতে কাটা পড়ছে শতাব্দী-প্রাচীন মেহগনি,শিরীষ, জারুল, বট-সহ বিভিন্ন গাছ। গাছ কাটা আটকাতে হাইকোর্টে দুটি মামলা হয়। মামলার শুনানিতে আপাতত গাছ কাটা বন্ধের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। এক সপ্তাহ পর ফের মামলার শুনানি।

বারাসতের ডাকবাংলো মোড় থেকে বনগাঁর পেট্রাপোল সীমান্ত। ৩৫ নম্বর জাতীয় সড়কে একষট্টি কিলোমিটার রাস্তা চওড়া করতে দুধারে গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র। নোডাল এজেন্সি করা হয় রাজ্যকে। কাটা পড়বে প্রায় চার হাজার গাছ। ইতিমধ্যেই কোপ পড়ে শতাব্দীপ্রাচীন বেশ কিছু দুষ্প্রাপ্য গাছে। গাছ কাটা রুখতে হাইকোর্টে মামলা করে যশোর রোড গাছ বাঁচাও কমিটি। শুক্রবার সেই মামলার শুনানি হয় হাইকোর্টের অস্থায়ী প্রধান বিচারপতি নিশিতা মাত্রে ও তপোব্রত চক্রবর্তীর ডিভিশন বেঞ্চে। এভাবে গাছ কাটার ফলে পরিবেশের ভারসাম‍্য নষ্ট হচ্ছে। হাইকোর্টে সওয়াল মামলাকারীর আইনজীবীর।

১ সপ্তাহ গাছ কাটা যাবে না যশোর রোডে, নির্দেশ আদালতের

মামলাকারীর আইনজীবীর বক্তব্য

---২২ জুলাই ২০১৬ জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণে শর্তসাপেক্ষে গাছ কাটার অনুমতি দেয় বন দফতর

---ছমাসের মধ্যে শেষ করতে হবে গাছ কাটার প্রক্রিয়া

---ষাটদিনের মধ্যে একই রকম গাছ লাগাতে হবে

--এই শর্তের কিছুই মানা হয়নি

---ইতিমধ্যে ছমাস সময়সীমা শেষ হয়ে গেছে

---গাছ কাটতে বন দফতরের কোনও অনুমতি নেই এখন

এই যুক্তিতে গাছ কাটার উপর নিষেধাজ্ঞা জারির আবেদন করেন মামলাকারীর আইনজীবী। রাজ্যের তরফে হাইকোর্টে জানানো হয়---

---এটা জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ

---রাজ্যকে নোডাল এজেন্সি হিসেবে রেখে কাজ করা হচ্ছে

---এতে রাজ্যের খুব বেশি কিছু করণীয় নেই

---বন দফতর অনুমতি দেওয়ার কারণেই গাছ কাটা হচ্ছে

দুপক্ষের সওয়াল-জবাব শোনার পর আপাতত গাছ কাটা বন্ধের নির্দেশ দেন অস্থায়ী প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। আগামী সাতদিন যশোর রোডের দুধারে গাছ কাটা বন্ধ থাকবে।

হাইকোর্টের রায়ে খুশি মামলাকারীরা। রাস্তা চওড়া করতে গাছ না কেটে বিকল্প পথেরও সন্ধান দেন তাঁরা।

গাছ কাটা নিয়ে মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআর-ও মামলা করে হাইকোর্টে। আগামী শুক্রবার একইসঙ্গে দুটি মামলার শুনানি ।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES