আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

Mar 05, 2017 09:50 AM IST | Updated on: Mar 05, 2017 09:52 AM IST

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ রবিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

anandabazar11

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

১)বারাণসীই কুরুক্ষেত্র: মন্দিরে মন্দিরে মোদী, পথে রাহুল-অখিলেশ-মায়া

বারাণসীর প্রাচীন ‘কালভৈরব’ মন্দিরে পুজো দিলে পাপ স্খালন তো হয়ই, মনোবাসনাও পূর্ণ হয়— মন্দিরের দেওয়ালে লেখা এটাই স্থানীয় বিশ্বাস। সকাল সকাল কাশী বিশ্বনাথের দর্শন সেরে সেই ‘জাগ্রত কালভৈরব’-এরই পুজো দিলেন নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর মনোবাসনা পূর্ণ হলো কি না, তার জন্য অপেক্ষা আর মাত্র সাত দিনের। যুদ্ধের ফল বেরোবে সে দিন।

উত্তরপ্রদেশের ষষ্ঠ দফায় আজ যখন ভোট চলছে মুলায়ম সিংহের আজমগড় আর যোগী আদিত্যনাথের গোরক্ষপুরে, সেই সময়েই বারাণসীতে মোদীর ওই মন্দির-দর্শনে ভ্রূ কুঁচকেছেন বিরোধীরা। প্রশ্ন উঠেছে, হিন্দুত্বের সুড়সুড়ি দিয়ে কি তবে প্রতিবেশী এলাকার ভোটে সুকৌশলে ছাপ ফেলতে চাইলেন প্রধানমন্ত্রী? রাহুল গাঁধী, আর সস্ত্রীক অখিলেশ সিংহ যাদবও এ দিন কাশী বিশ্বনাথের মন্দিরে পুজো দিয়েছেন। তবে তত ক্ষণে সন্ধে নেমে এসেছে। ষষ্ঠ দফায় ভোট নেওয়ার পালা তখন শেষ।

২)বৃহন্মুম্বই পুরসভায় শিবসেনাকে সমর্থন, বিজেপি পাল্টি খেল

শেষ পর্যন্ত রণে ভঙ্গ দিল বিজেপি-ই। স্নায়ুর যুদ্ধে হেরে বৃহন্মুম্বই পুরসভায় শিবসেনাকে সমর্থনের কথা ঘোষণা করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডণবীস। গত কাল অবধি নিজেদের অবস্থানে অনড় থাকা বিজেপি আজ কিছুটা নাটকীয় ভাবেই জানিয়ে দিল, মুম্বই পুরসভায় তারা মেয়র কিংবা ডেপুটি মেয়র পদে প্রার্থী দেবে না। ক্ষমতাধর স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান পদও দাবি করবে না। আবার বিরোধী আসনেও বসবে না। বরাবরের মতো শিবসেনার প্রার্থীকেই সমর্থন করবে। ফডণবীসের বক্তব্য, রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে গত কালও যোগ দিয়েছিলেন শিবসেনার মন্ত্রী। ফলে রাজ্যে বিজেপি-শিবসেনা সরকারেরও কোনও বিপদই নেই।

৩)ট্রাম্পের দেশে ফের খুন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী

শ্রীনিবাস কুচিভোটলার পর হার্নিশ পটেল। ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমেরিকায় মাত্র আট দিনের ব্যবধানে খুন হয়ে গেলেন দু’জন ভারতীয়।

৪৩ বছরের ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী হার্নিশকে বৃহস্পতিবার রাতে সাউথ ক্যারোলাইনার ল্যাঙ্কাস্টার কাউন্টিতে তাঁর বাড়ির কাছেই গুলি করে খুন করা হয়। আততায়ী অধরা। স্থানীয় শেরিফ ব্যারি ফেল বলেছেন, ‘‘নেপথ্যে বর্ণবিদ্বেষ আছে বলে মনে হয় না।’’ বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ২০ নাগাদ নিজের দোকান বন্ধ করে বাড়ি রওনা হয়েছিলেন হার্নিশ। গাড়িতে দোকান থেকে বাড়ি ১০ মিনিটের পথ। সাড়ে ১১টা নাগাদ হার্নিশের পাড়ার এক মহিলা গুলির আওয়াজ আর আর্তনাদ শুনে ৯১১ নম্বরে ফোন করেন। পুলিশ এসে হার্নিশের বাড়ির সামনে থেকেই তাঁর দেহ উদ্ধার করে।

৪) অহেতুক পরীক্ষায় বাঁধ, চাল হলে ছাড় পাবে না নিজস্ব চেম্বার

শুধু বেসরকারি হাসপাতাল নয়, এ বার প্রাইভেট ডাক্তারদের চেম্বারেও যদি একই পরীক্ষা ‘অপ্রয়োজনে’ বার বার করতে বলা হয়, কিংবা নির্দিষ্ট কোনও ল্যাবরেটরি থেকেই করতে চাপ দেওয়া হয়, তা হলে তার বিরুদ্ধেও নয়া কমিশনের দ্বারস্থ হতে পারবেন রোগীরা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় নয়া ক্লিনিক্যাল এস্টাবলিশমেন্ট বিল পাশ করার পরের দিনই এই ইঙ্গিত দিয়েছেন স্বাস্থ্যকর্তারা। তাঁরা জানিয়েছেন, যদি নিজস্ব চেম্বারে চিকিৎসক রোগীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন বা অপ্রয়োজনে বিপুল টাকার ওষুধ কেনান, তা হলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা থাকছে।

bartaman_big11

১) বিশ্বনাথের পুজো দিয়েই প্রচারে ঝড় মোদির

শেষ দফার ৪০টি আসন এখন পাখির চোখ নরেন্দ্র মোদির। শুধু বিশ্বনাথ মন্দিরে পুজো দিলেই পূণ্যফল সম্পূর্ণ হবে না। কাশীর কালভৈরব মন্দিরে গিয়েও মাথা ঠুকতে হবে। কালভৈরব হলেন বাবা বিশ্বনাথের দ্বাররক্ষী। তাঁকে সন্তুষ্ট না করে বিশ্বনাথের দর্শন অসমাপ্ত। আড়াই বছর হয়ে গেল তিনি এখান থেকে এমপি হয়ে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত হয়ে গেলেন, অথচ একবারও সময় হল না কালভৈরব মন্দির দর্শনের? তাই এবার কাশী থেকে শূন্য হাতে ফিরতে হবে নরেন্দ্র মোদিকে। গত কিছুদিন ধরে বিরোধীদের এই প্রচার এমনিতে তুমুল জনপ্রিয় মোদিকে স্পর্শ করার কথাই নয়। তিনি অগ্রাহ্যই করবেন ধরে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আজ নরেন্দ্র মোদি বারাণসীতে এসে কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের পাশাপাশি কালভৈরব দর্শন করে পুজো দিয়ে প্রচারে ঝড় তোলায় রাজনৈতিক মহল ধরে নিচ্ছে মোদি এবার কোনও ঝুঁকি নিতে রাজি নন।

২)মিড ডে মিলেও আধার আবশ্যিক, ক্ষুব্ধ মমতা

এর আগে ১০০ দিনের কাজে আধার কার্ড বাধ্যতামূলক করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তাতে তীব্র আপত্তি জানিয়ে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার আইসিডিএস, স্কুলের মিড ডে মিলেও আধার কার্ড বাধ্যতামূলক করল কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্র থেকে সেই চিঠি নবান্নে এসেছে। কেন্দ্রের নির্দেশে নবজাতকদের আধার কার্ড করতে বলা হয়েছে। যা দেখে ভীষণ ক্ষুব্ধ হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার তিনি এক ট্যুইট বার্তায় বলেন, মিড ডে মিল ও আইসিডিএস জন্য আধার কার্ড লাগবে? এটা অবিশ্বাস্য। এখন থেকে স্কুলের শিশুদেরও কি আধার কার্ড লাগবে? এটা হয় নাকি? আজ যে জন্মাবে কাল তার আধার কার্ড করতে হবে? এর আগে ১০০ দিনের কাজও বাদ যায়নি। গরিব, খেটে খাওয়া মানুষ, এমনকী আমাদের প্রিয় শিশুদের তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে কেন?

৩) শিশু বিক্রির বখরা যেত ধৃত সুরক্ষা আধিকারিকের কাছে

জলপাইগুড়ির হোমের কর্ত্রী চন্দনা চক্রবর্তীর শিশু বিক্রির কারবারে মুনাফার একটা বড় বখরা পেতেন দার্জিলিং জেলা শিশু সুরক্ষা আধিকারিক মৃণাল ঘোষ। এক একটি শিশু বিক্রির জন্য আলাদা আলাদা লেনদেন হতো। সিআইডি তদন্তে এমন বেশ কিছু তথ্য মিলেছে। প্রসঙ্গত, ওই আধিকারিককে জেলা প্রশাসন চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োগ করেছিল। এদিকে, যার হাতে শিশু সুরক্ষার দায়িত্ব ছিল সেই আধিকারিকের নামই শিশু পাচারে জড়িয়ে যাওয়ায় অনেকেই বিস্মিত। দীর্ঘ জেরার পর শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয় ওই আধিকারিককে। তাঁকে জেরা করে সিআইডি নিশ্চিত হয়েছে রীতিমতো পরিকল্পনা করে চন্দনা চক্রবর্তীর হোম থেকে শিশু পাচার হতো। আর সেই শিশুকে দত্তক দেওয়ার ভুয়ো সরকারি কাগজপত্র বানিয়ে দেওয়ার কাজ করতেন মৃণাল। বিনিময়ে চন্দনার কাছ থেকে তিনি মোটা টাকা পেতেন।

৪)হাওড়া স্টেশনে উদ্ধার ১৮টি আগ্নেয়াস্ত্র

শুক্রবার রাতে হাওড়া স্টেশনের ৮ নং প্ল্যাটফর্মের ১০ নং পিলারের কাছ থেকে একটি পরিত্যক্ত স্কুলব্যাগ থেকে পাওয়া গিয়েছে ১৮টি অসম্পূর্ণ নাইন এমএম পিস্তল। এই ঘটনায় হাওড়া স্টেশনে তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ওই আগ্নেয়াস্ত্রগুলি আপ অমৃতসর মেলে করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা হচ্ছিল বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। কারণ ওই মেল ছাড়ার কিছু আগে স্কুলব্যাগটি পরিত্যক্ত অবস্থায় আরপিএফ পড়ে থাকতে দেখে। রেলপুলিশ ব্যাগ খুলে দেখে, তার মধ্যে সাজানো রয়েছে ওই ১৮টি অসম্পূর্ণ পিস্তল। এগুলিতে ট্রিগার লাগানো ছিল না। উত্তরপ্রদেশের নির্বাচন উপলক্ষে ওই আগ্নেয়াস্ত্রগুলি সেখানে পাচার করা হচ্ছিল কি না, পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। আরপিএফ ব্যাগসমেত ওই আগ্নেয়াস্ত্রগুলি হাওড়া জিআরপি’র হাতে তুলে দেয়। শনিবার পর্যন্ত এই ঘটনায় কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। এতদিন মুঙ্গের থেকে এ রাজ্যে এই ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র ট্রেনে পাচার হলেও উদ্ধার হওয়া পিস্তলগুলি যে এ রাজ্যে তৈরি করে তা বিহার বা উত্তরপ্রদেশে পাচার করা হচ্ছিল, সে বিষয়ে রেলপুলিশ অনেকটাই নিশ্চিত।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES