নারদকাণ্ডে সৌগত রায়কে হাজিরার নোটিস সিবিআইয়ের, ম্যাথুর সামনে বসিয়ে জেরার সম্ভাবনা

Jul 11, 2017 06:06 PM IST | Updated on: Jul 11, 2017 06:20 PM IST

#কলকাতা: নারদকাণ্ডে এবার ডাক পড়ল শাসকদলের সাংসদ সৌগত রায়ের ৷ স্টিং ফুটেজ কাণ্ডের তদন্তে এবার সৌগত রায়কে নোটিস দিল সিবিআই ৷ নোটিসে বুধবার নিজাম প্যালেসে সিবিআই দফতরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এই তৃণমূল নেতাকে ৷ অন্যদিকে, বুধবার সিবিআই দফতরে আসছেন নারদকর্তা ম্যাথু স্যামুয়েল ৷ তাই দুঝনকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরার জল্পনা তৈরি হয়েছে ৷

নারদ কর্তা ম্যাথু স্যামুয়েলের জমা দেওয়া ৫৩ ঘণ্টার ভিডিও ফুটেজে সৌগত রায়ের ভিডিও ক্লিপও ছিল ৷ সেই নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই সিবিআই ডেকে পাঠিয়েছে সাংসদকে ৷ এর আগে খানাকুলের তৃণমূল বিধায়ক ইকবাল আহমেদ ও সৈয়দ মির্জাকেও ডেকে পাঠিয়েছিল তদন্তকারী দল ৷

নারদকাণ্ডে সৌগত রায়কে হাজিরার নোটিস সিবিআইয়ের, ম্যাথুর সামনে বসিয়ে জেরার সম্ভাবনা

২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটের আগে প্রকাশ‍্যে আসে নারদ স্টিং ফুটেজ। ১২ তৃণমূল নেতা এবং এক আইপিএস-এর বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। তদন্তের পর সব মিলিয়ে নারদকাণ্ডে ১৩ জনের বিরুদ্ধে দিল্লিতে এফআইআর দায়ের করে সিবিআই ৷

এই ১৩ জন অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন--

১)মুকুল রায়,

২)শুভেন্দু অধিকারী,

৩)সুব্রত মুখোপাধ্যায়,

৪)সৌগত রায়,

৫)মদন মিত্র,

৬)শোভন চট্টোপাধ্যায়

৭)সুলতান আহমদ

৮)ইকবাল আহমেদ

৯)ফিরহাদ হাকিম

১০) অপরূপা পোদ্দারের

১১) প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের,

১২) সৈয়দ মির্জার,

১৩) কাঁকলি ঘোষ দস্তিদার

সোমবার সিবিআই হানা দিল অভিনেত্রী ও তৃণমূল সাংসাদ শতাব্দী রায়ের বাড়িতে ৷ সল্টলেকের বাড়িতে প্রায় ২ ঘণ্টা ধরে শতাব্দী রায়কে জিজ্ঞাসাবাদ চালায় সিবিআই ৷ সারদাকাণ্ডের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় শতাব্দীকে ৷

অন্যদিকে, নারদ কাণ্ডের তদন্তে মেয়র শোভন চট্টাপাধ্যায়কে ফের তলব করেছে ইডি ৷ ২৫ জুলাই ফের সিজিও কমপ্লেক্সে তলব কলকাতার মেয়রকে। এর আগে ইডি-র চিঠি পেলেও তার বিষয় পরিস্কার নয় বলে আগেই দাবি করেছিলেন শোভন চট্যোপাধ্যায়।

নারদ তদন্তে সিবিআইয়ের কাছে নতুন একটি ভিডিও ফুটেজ জমা দিয়েছেন ম্যাথু স্যামুয়েল। তাতে নারদকর্তার সঙ্গে এসএমএইচ মির্জার কথোপকথনের ফুটেজ রয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে খবর। ওই দিন সেখানে উপস্থিত দুই ব্যবসায়ীর বয়ান রেকর্ড করার কথা সিবিআই-এর। নারদকাণ্ডে ইকবাল আহমেদের ভূমিকা কি ? সিবিআইয়ের কাছে রিপোর্টে তলব করে কলকাতা হাইকোর্ট।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES