মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যেই সক্রিয় প্রশাসন, দখলদার সরাতে সকালে বৈঠক হয় টিটাগড় থানায়

May 31, 2017 06:17 PM IST | Updated on: May 31, 2017 06:17 PM IST

#কলকাতা: গতকালই তোপ দেগেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তার চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যেই টিটাগড় ওয়াগনের দখলদারি হটাতে সক্রিয় হল উত্তর চব্বিশ পরগনা প্রশাসন। টিটাগড় থানায় বৈঠক। পরে এলাকা পরিদর্শন। দখলদারিদের দ্রুত এলাকা থেকে সরে যাওয়ার নির্দেশ

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যেই সক্রিয় প্রশাসন, দখলদার সরাতে সকালে বৈঠক হয় টিটাগড় থানায়

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যেই সক্রিয় প্রশাসন। দখলদার সরাতে সকালে বৈঠক হয় টিটাগড় থানায়। তারপর এলাকা পরিদর্শনে যান ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং ও বারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত। এলাকায় যান টিটাগড়ের পুরপ্রধান ও আইসি । গতকালই প্রশাসনিক বৈঠকে কারখানার জমি দখল ঘিরে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসনকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। তারপরই আজ সকাল থেকে কারখানার দুটি গেটের সামনে জবরদখলকারী সরাতে তৎপর হয় প্রশাসন। জবরদখলকারীদের দ্রুত এলাকা থেকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয় দখলদারদের

জোর করে জমি অধিগ্রহণ নয়। সরকারি এই নীতির মতো এবার গরিব মানুষের জন্য আরও এক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিল তৃণমূল সরকার। উন্নয়নের জন্য কাজে আসবে না এমন জমিতে বসবাসকারীদের জমির পাট্টা দেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

টিটাগড়ের জাহাজ কারখানার জমিতে বেআইনি দখলদার। ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রীর ধমক পুলিশ থেকে দলীয় নেতাকেও। জোর করে জমি অধিগ্রহণ নয়। সরকারের এই নীতির সঙ্গে নয়া সংযোজন আধাশহরেও এবার পাট্টা বিলি।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES