কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

Jan 05, 2017 09:55 AM IST | Updated on: Jan 05, 2017 09:55 AM IST

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

anandabazar11

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

টিম বিরাট তৈরির সুযোগ করে দিয়ে গেল ধোনি

পুণের মাঠে ১৫ জানুয়ারি ইয়ন মর্গ্যানের সঙ্গে টস করতে নামছে বিরাট কোহালি, বুধবার রাত পর্যন্ত এই দৃশ্যটার কথা ভাবতেই পারিনি। যতক্ষণ না মহেন্দ্র সিংহ ধোনির ওয়ান ডে ও টি টোয়েন্টি ক্যাপ্টেন্সি ছাড়ার খবরটা এসে পৌঁছয়। পরে যখন ভাবতে বসলাম, কেন এমন করল ‘ক্যাপ্টেন কুল’, তখন উপলব্ধি করলাম, সিদ্ধান্তটা তো মোটেই খারাপ নেয়নি এমএস।

ঘনিষ্ঠতম বন্ধুও জানতেন না এমন সিদ্ধান্ত আসছে

অধিনায়ক মহেন্দ্র সিংহ ধোনি মানেই কোনও না কোনও চমক। কখনও যোগিন্দর শর্মাকে দিয়ে বল করিয়ে, কখনও নিজেকে ব্যাটিং অর্ডারে উপরে তুলে এনে, কখনও সুরেশ রায়নাকে দিয়ে বল করিয়ে। বিদায়বেলাতেও চমক দিয়ে গেলেন ক্যাপ্টেন কুল। টেস্ট থেকেও সরে দাঁড়িয়েছিলেন সম্পূর্ণ আকস্মিক ভাবে। বহির্বিশ্বকে অন্ধকারে রেখে। ওয়ান ডে এবং টি-টোয়েন্টি ক্যাপ্টেন্সিও ছাড়লেন একই রকম নাটকীয় ভাবে। ঘুণাক্ষরেও আগে থেকে কাউকে জানতে দিলেন না কী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এমনকী জানতেন না তাঁর ঘনিষ্ঠতম বন্ধু ও ম্যানেজার অরুণ পাণ্ডেও।

রোজভ্যালি থেকে ১৭ লক্ষ টাকা নিয়ে ইউরোপ ঘুরেছিলেন সুদীপ

বছর চারেক আগে বিদেশ ভ্রমণের জন্য তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের যে ২২ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছিল, তার ১৭ লক্ষ টাকাই রোজ ভ্যালির অ্যাকাউন্ট থেকে গিয়েছিল বলে দাবি করল সিবিআই। মঙ্গলবার কলকাতার সিজিও কমপ্লেক্সে জেরা করার পরে সুদীপকে গ্রেফতার করে সিবিআই। রাতেই তাঁকে উড়িয়ে আনা হয় ভুবনেশ্বর। বুধবার তৃণমূলের লোকসভার নেতা সুদীপকে ভুবনেশ্বর আদালতে তোলা হয়।

তদন্তের নামে সারদার নথি নষ্ট করেছেন পুলিশ কমিশনার, অভিযোগ

কলকাতার পুলিশ কমিশনারের বিরুদ্ধে সারদা-কাণ্ডের নথি নষ্ট করার অভিযোগ আনলেন বিজেপির সর্বভারতীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। বুধবার তিনি জানান, চিটফান্ড নিয়ে পুলিশ কমিশনারের ভূমিকা খতিয়ে দেখার দাবি জানাবেন সিবিআইয়ের কাছে। সিপিএম-ও একই অভিযোগ করেছে। তাদের বক্তব্য, সারদা-কেলেঙ্কারির তদন্ত করতে ‘সিট’ গঠন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তার মাথায় ছিলেন কলকাতার বর্তমান পুলিশ কমিশনার। সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীর দাবি, সিটের কাজই ছিল সারদার তথ্যপ্রমাণ লোপাট করা।

bartaman_big11

সুদীপের কার্ড দেখিয়ে টাকা তুলত দেহরক্ষী

লোকসভায় তৃণমূল পরিষদীয় দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভিজিটিং কার্ড দেখিয়ে রোজভ্যালি অফিস থেকে টাকা তুলত তাঁর দেহরক্ষী। প্রথমদিকে ভিজিটিং কার্ডের পিছনে টাকার পরিমাণ লেখা থাকলেও, পরবর্তীতে কার্ডের রঙের ফারাকে চাহিদা বুঝে যেতেন রোজভ্যালির ক্যাশ কাউন্টারের কর্মীরা। প্রতিবার দেহরক্ষীকে দেখা গেলেও, কখনও সেখানে দেখা যায়নি সুদীপবাবুকে। চিটফান্ড সংস্থার অফিস থেকে সংগৃহীত ক্লোজ সার্কিট টেলিভিশনের (সিসিটিভি) এহেন ফুটেজ থেকে বানানো সিডি এখন তাদের হেপাজতে বলে দাবি করল সিবিআই। রোজভ্যালি সংস্থা থেকে নিয়মিত টাকা তোলার এই সিডি সুদীপবাবুর বিরুদ্ধে অকাট্য প্রমাণ বলে বুধবার তদন্তকারী সংস্থার এক আধিকারিকের দাবি। সিবিআই সূত্রের খবর, সুদীপবাবুর সেই দেহরক্ষী এখন তাদের ‘স্ক্যানারে’ রয়েছে। ঠিক সময়ে তাঁকেও ডেকে পাঠানো হবে। তদন্তকারী সংস্থা সূত্রে জানা গিয়েছে,চিটফান্ড সংস্থার দপ্তরের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে স্পষ্ট, সেখানে বারবার টাকা তুলতে গিয়েছেন সুদীপবাবুর দেহরক্ষী। তৃণমূল সংসদ সদস্যের ভিজিটিং কার্ড দেখিয়ে সই করলেই মিলে যেত অর্থ। ফুটেজ থেকে সিবিআই জেনেছে, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রঙের কার্ড ব্যবহার করা হত। তদন্তকারী সংস্থা মনে করছে, কখন কত টাকা পাঠাতে হবে, তা বোঝানোর জন্য এটা এক ধরনের সংকেত।

নোট বাতিলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছি বলেই গ্রেপ্তার, কোর্টে তোপ সুদীপের

দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, নোট বাতিল নিয়ে সরব হওয়াতেই মোদি সরকার সিবিআইকে দিয়ে তাঁদের একের পর এক নেতাকে গ্রেপ্তার করাচ্ছে। নেত্রীর বক্তব্যেরই প্রতিধ্বনি বুধবার ভুবনেশ্বর আদালতে শোনা গেল তৃণমূল এমপি সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলাতে। আদালতে নিজেই সওয়াল করতে গিয়ে সুদীপবাবু বলেন, নোট বাতিল নিয়ে সংসদে সবচেয়ে বেশি সরব হয়েছিলাম আমি। এই নিয়ে আন্দোলনে তাঁর মুখ চিনে গিয়েছে ১২৫ কোটি ভারতবাসী। এ জন্যই সিবিআইকে দিয়ে এসব করানো হচ্ছে। কেন্দ্রীয় এই তদন্তকারী সংস্থাকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি তিনি। তাঁর কথায়, ১৯৯৮ সালে দ্বাদশ লোকসভায় তিনি সিবিআইয়ের কাজকর্মের প্রশংসা করেছিলেন। এই তদন্তকারী সংস্থার প্রতি তাঁর আস্থা ছিল। কিন্তু এখন এরা যা করছে, তাঁর অন্য ধারণা হবে। সুদীপবাবুর দাবি, যদি তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে পারে সিবিআই, তাহলে সমস্ত পদ থেকে তিনি সরে যাবেন।

পাঁচ রাজ্যে ভোটের দিন ঘোষণা কমিশনের, অগ্নিপরীক্ষা মোদির

তাঁকে প্রমাণ করতে হবে দিল্লি ও বিহার বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর জোরদার প্রচার সত্ত্বেও দলের শোচনীয় পরাজয় নেহাতই ছিল ব্যতিক্রম। তাঁকে প্রমাণ করতে হবে ২০১৪’র লোকসভা ভোটের প্রাক্কালে প্রচারে দেওয়া প্রতিশ্রুতির একটিও রক্ষিত না হলেও আজও তাঁকে মানুষ বিশ্বাস করে। তাঁকে প্রমাণ করতে হবে ২০১৪ সালে তাবৎ দলকে উড়িয়ে দিয়ে ৮০ আসনের উত্তরপ্রদেশে একক ঝড়ে তিনি যেভাবে প্রায় সব আসনই দখল করে নিয়েছিলেন সেই জনপ্রিয়তার অশ্বমেধের ঘোড়াটি আজও ধাবমান। সর্বোপরি তাঁকে প্রমাণ করতে হবে, নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরোধীরা যতই এই পদক্ষেপকে সর্বনাশা তকমা দিক না কেন, আদতে সাধারণ মানুষ তাঁকেই সমর্থনই করেছে। এবং তাঁকে প্রমাণ করতে হবে নরেন্দ্র মোদি নামক ব্র্যান্ডভ্যালু এখনও অমলিন। ক্ষমতায় আসার ৯ মাসের মধ্যেই দিল্লিতে অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং দেড় বছর পর বিহারে নীতীশকুমার, লালুপ্রসাদ যাদব প্রমাণ করে দিয়েছিলেন মোদিঝড় বলে কিছু হয় না।

সুদীপের গ্রেপ্তারির প্রতিবাদে তৃণমূলের রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ, অবরোধ, ভাঙচুর

দলের দুই এমপি গ্রেপ্তার হওয়ার পর যে তৃণমূল চুপ করে থাকবে না, তা মঙ্গলবারই কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষিপ্ত গোলমালের ঘটনায় প্রমাণিত হয়ে গিয়েছিল। খোদ তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও দলকে পথে নামার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই মতো বুধবার সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা বিক্ষোভ শুরু করেন। কিন্তু যেখানে দলীয় নেত্রী বারবারই অবরোধ-পন্থার বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন, সেখানে তাঁর দলের লোকজনের অবরোধের জেরে এদিন নিত্যযাত্রীরা দিনভর হয়রান হলেন। জেলায় জেলায় জাতীয় সড়ক এবং রেল অবরোধও করলেন তৃণমূল কর্মীরা। বিধাননগর স্টেশন সংলগ্ন কাঁকুড়গাছিতে ট্রেন দাঁড় করিয়ে সেখান থেকে কেবিনম্যানকে ধাক্কা দিয়ে ফেলার অভিযোগও উঠল তৃণমূলের এক বিধায়ক এবং তাঁর দলবলের বিরুদ্ধে। এছাড়াও রেল অবরোধ হয় কোচবিহারের ঘুঘুমারি, নিউ আলিপুরদুয়ার, গড়িয়া, বাগবাজার, শেওড়াফুলি, তারকেশ্বর, ডানকুনি, ব্যান্ডেল-বাঁশবেড়িয়াসহ একাধিক জায়গায়। ফলে চরম ভোগান্তি হয় সাধারণ মানুষের।

ei samayমমতাকে হুমকি কৈলাসের, হুঙ্কার তৃণমূলের

দিল্লিতে তৃণমূল সাংসদরা স্লোগান তুললেন, ‘মোদি এসে বিজেপির রাজ্য পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় হুণশিয়ারি দিলেন, ‘এক গালে চড় খেয়ে আমরা আর এক গাল বাড়িয়ে দিতে শিখিনি ৷’

সওয়াল করে চ্যালেঞ্জ ছুড়েও সিবিআই হেফাজতেই সুদীপ

রোজভ্যালি-যোগের প্রমাণ দিতে পারলে তিনি পদ ছেড়ে দেবেন বলে চ্যালেঞ্জ করলেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ দু’পক্ষের আইনজীবীর প্রায় সোয়া এক ঘণ্টার সওয়াল জবাবের মধ্যে লোকসবায় তৃণমূলের দলনেতা নিজেই এজলাসে অঠে দাঁড়িয়ে পাঁচ মিনিট সময় চান তাঁর বক্তব্য জানানোর জন্য ৷

কী করব, গুলি চালাব? কেশরীকে প্রশ্ন সিপি-র

মঙ্গলবার বিজেপি রাজ্য দফতরে তৃণমূলের হামলার ঘটনা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের কাছে রিপোর্ট পাঠালেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী ৷

ধোনির খেয়াল শাপে বরই হল ইন্ডিয়ার

ফিসফিসানিটা বাড়ছিল ৷ আর কতদিন ? কেন ছাড়ছে না ? প্রশ্নটা সেই ফিসফিসানির স্তরেই থেকে গেল ৷ কারণ সেটা গর্জনের স্তরে পৌঁছে যাওয়ার কোনও সুযোগই কাউকে দিলেন না মহেন্দ্র সিং ধোনি ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES