কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Feb 09, 2017 09:08 AM IST
কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন
Photo : AFP
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Feb 09, 2017 09:08 AM IST

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবারের  গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

anandabazar11

বিধানসভায় তুলকালাম, বিল ঘিরে ধস্তাধস্তি, অসুস্থ মান্নান বেরোলেন স্ট্রেচারে

সম্পত্তি ভাঙচুরে কড়া শাস্তির বিধান দিতে বিল পেশ করল রাজ্য সরকার। আর সেই বিল পেশের দিনেই ধুন্ধুমার বাধল বিধানসভায়! সরকারি নিরাপত্তারক্ষী ও বিরোধী পক্ষের বিধায়কদের ধস্তাধস্তিতে অসুস্থ বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানকে হাসপাতালে পাঠাতে হল। সভার মধ্যেই তাঁদের আক্রমণ ও শ্লীলতাহানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ আনলেন বিরোধী শিবিরের অন্তত দু’জন মহিলা বিধায়ক। এই কুরুক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া বিধানসভার আসবাবের মূল্য নির্ধারণের নির্দেশ দিলেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রেমিকই মেয়ের মৃত্যুর জন্য দায়ী, থানায় গেলেন বিতস্তার মা

অভিনেত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় অভিযোগের আঙুল উঠছে প্রেমিকের দিকে। বিতস্তা সাহা মৃত্যু-কাণ্ডে বুধবার গরফা থানায় এফআইআর করেন মা গীতাদেবী। তাঁর অভিযোগ, আয়কর দফতরের এক আধিকারিক বিতস্তাকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দিয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাইপাসের ধারে এক অভিজাত আবাসন থেকে আঠাশ বছরের বিতস্তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। গীতাদেবী তাঁর মেয়ের মৃত্যুর জন্য সরাসরি দায়ী করেছেন ওই ব্যক্তিকে। তাঁর দাবি, বিতস্তা বরাবরই কাজে মনোযোগী ছিলেন। মায়ের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু গত তিন-চার মাস ধরে সেই সম্পর্কে চিড় ধরে। ওই ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়ার পরে বদলে যান বিতস্তা। গীতাদেবী জানান, গভীর রাত পর্যন্ত ওই ব্যক্তির সঙ্গে বাইরে ঘুরতেন বিতস্তা। এই সম্পর্কে গীতাদেবী আপত্তি জানানোয় তিন মাস আগে পি মজুমদার রোডের বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যান বিতস্তা।

আমেরিকা যেতে চাওয়াই কি কাল হল আকাঙ্ক্ষার?

কেন খুন হতে হয়েছিল বাঁকুড়ার আকাঙ্ক্ষা শর্মাকে—মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার দিনভর উদয়ন দাসকে জেরা করে দু’টি সম্ভাবনায় গুরুত্ব দিচ্ছে বাঁকুড়া পুলিশ। তার একটি— মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চাকরিস্থলে কবে সে আকাঙ্ক্ষাকে নিয়ে যাবে, লাগাতার এই প্রশ্নের মুখে অস্বস্তিতে পড়েছিল উদয়ন। দ্বিতীয় সম্ভাবনা— উদয়নের জীবনে আকাঙ্ক্ষা ছাড়াও একাধিক বান্ধবীর অস্তিত্ব, যাদের এক জন ভোপালের সাকেতনগরেরই বাসিন্দা বলে জেরায় পুলিশ জেনেছে। বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার সুখেন্দু হিরা বলেন, ‘‘তদন্ত একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। ঠিক কী কারণে এই খুন এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না।’’

চেন্নাইয়ে শুরু বিধায়ক-বন্দি খেলা

এক জনের অস্ত্র ‘আম্মার আত্মা’। অন্য জনের দাবি, প্রায় সব বিধায়কই তাঁর দিকে। চেন্নাইয়ের কুর্সি নিয়ে দু’জনের লড়াইয়ে বল কিন্তু রাজ্যপালের কোর্টে! ইস্তফা দেওয়ার পরে তদারকি মুখ্যমন্ত্রী পনীরসেলভম এখন দাবি করে যাচ্ছেন, বিধানসভায় গরিষ্ঠতার প্রমাণ দেবেন তিনি। কিন্তু দলের ১৩৪ জন বিধায়কের মধ্যে ১৩০ জনই কার্যত শশিকলা নটরাজনের ‘কব্জায়’। তিনটি বাসে করে তাঁদের চেন্নাইয়ের একটি বিলাসবহুল হোটেলে নিয়ে গিয়েছে শশিকলা শিবির। এই ব্যবস্থা, কারণ তাঁরা যাতে পনীরসেলভমের শিবিরে যোগ দিতে না পারেন। এডিএমকে-র শীর্ষনেত্রী যখন বিধায়ক গোছাতে ব্যস্ত, তখন পনীরসেলভমের বাড়ির সামনে জড়ো হয়ে তাঁকে সমর্থন জানিয়েছেন হাজার হাজার কর্মী-সমর্থক ও রাজ্যের বহু বিশিষ্ট জন। দিনভর, এমনকী রাতেও।

bartaman_big11

সম্পত্তি ভাঙচুর বিল নিয়ে তুলকালাম, সাসপেন্ড মান্নান, ভরতি হাসপাতালে বিধানসভায় ধস্তাধস্তি, ধুন্ধুমার

জনসম্পত্তি ধ্বংসে ক্ষতিপূরণ আদায় সংক্রান্ত ‘দি ওয়েস্ট বেঙ্গল মেইনটেন্যান্স অব পাবলিক অর্ডার (সংশোধনী) বিল’ পেশ করাকে কেন্দ্র করে বুধবার বিধানসভায় ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে যায়। অধিবেশন কক্ষে হইচই এবং রুলিং না মানার জন্য স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় দু’দিনের জন্য সাসপেন্ড করেন বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নানকে। প্রথমে তাঁকে কক্ষ ত্যাগ করার নির্দেশ দেন স্পিকার। এর প্রতিবাদে ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন বিরোধী বিধায়করা। ছিঁড়ে ফেলা হয় বিলের কপি। কক্ষত্যাগ করার নির্দেশ কার্যকর না হওয়ায় বিরোধী দলনেতাকে সাসপেন্ড করার পাশাপাশি স্পিকার এবার মার্শাল ডেকে মান্নান সাহেবকে বের করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। মার্শাল ও নিরাপত্তারক্ষীরা মান্নান সাহেবকে বের করতে গেলে একযোগে বাধা দেন বাম ও কংগ্রেস বিধায়করা। সিপিএমের সুজন চক্রবর্তী, তন্ময় ভট্টাচার্য এবং আরএসপি’র বিশ্বনাথ চৌধুরিরা নেমে পড়েন আসরে। দু’পক্ষে শুরু হয় টানাটানি ও ধস্তাধস্তি। ভেঙে যায় বিরোধী দলনেতার বসার আসনসহ মাইক এবং ইলেকট্রনিক্সের নানা সরঞ্জাম। ধস্তাধস্তিতে জখম হন কয়েকজন বিধায়ক এবং মার্শালসহ মোট ১১ জন নিরাপত্তাকর্মী। রাজ্য বিধানসভার ইতিহাসে বিরোধী দলনেতাকে সাসপেন্ড করাটা বিরল ঘটনা বলেই ধরা হচ্ছে।

হলিউডের সিনেমা দেখেই লাশ লোপাটের ছক কষেছিল উদয়ন

হলিউডের সিনেমায় দেখা লাশ গায়েবের পদ্ধতি অনুসরণ করেই খুনের পর প্রেমিকা আকাঙ্ক্ষা শর্মার দেহ লোপাট করেছিল উদয়ন। জেরায় একথা সে স্বীকার করেছে বলে বুধবার বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার সুখেন্দু হীরা জানিয়েছেন। পাশাপাশি, তার কথাবার্তা থেকে নানা বিষয় শুনে তদন্তকারীদের ধারণা হয়েছে, বাবা-মায়ের তরফে বড় ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার জন্য চাপ ও বন্ধুদের লাগাতার তাচ্ছিল্য সহ্য করতে না পেরেই উদয়ন দাস অল্পবয়স থেকেই ক্রমশ বিপথে চালিত হয়েছিল। মঙ্গলবারই বাঁকুড়া সিজেএম আদালতে তুলে পুলিশ উদয়নকে আটদিনের হেপাজতে নিয়েছে। বাঁকুড়া জেলা পুলিশ লাইনে নিয়ে গিয়ে তাকে দফায় দফায় জেরা করা হচ্ছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, জেরায় যে সব তথ্য পাওয়া গিয়েছে তার মধ্যে আকাঙ্ক্ষার দেহ গায়েবের ঘটনা সবচেয়ে রোমহর্ষক। উদয়ন জানিয়েছে, শ্বাসরোধ করে সে আকাঙ্ক্ষাকে খুন করে।

কলকাতা হাইকোর্টের কর্মরত বিচারপতিকে সশরীরে হাজিরা দিতে নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

এক নজিরবিহীন রায়ে এই প্রথম কোনও কর্মরত বিচারপতিকে শুনানিতে ব্যক্তিগত হাজিরা দিতে নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি জে এস খেহরের নেতৃত্বাধীন সাত সদস্যের বেঞ্চ এদিন নির্দেশ দিয়েছে পরবর্তী শুনানির দিন ১৩ ফেব্রুয়ারি কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সি এস কারনানকে ব্যক্তিগত হাজিরা দিয়ে ব্যাখ্যা করতে হবে, কেন তাঁর বিরুদ্ধে অবমাননার মামলা করা যাবে না। একই সঙ্গে বিচারবিভাগীয় ও প্রশাসনিক কাজ থেকে তাঁকে কেন বিরত রাখা হবে না, তার ব্যাখ্যাও সেদিন দেবেন বিচারপতি কারনান। মাদ্রাজ হাইকোর্টের বর্তমান বিচারপতি ও সুপ্রিম কোর্টের এক প্রাক্তন বিচারপতি সম্পর্কে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সি এস কারনান। সেই চিঠির প্রেক্ষিতেই এদিন সুপ্রিম কোর্টের সাত সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চে সুয়ো মোটো শুনানি হয়। শুনানিতে অ্যাডভোকেট জেনারেল মুকুল রোহাতগি শীর্ষ আদালতের কাছে আবেদনে বলেন, বিচারপতি কারনান বিচারব্যবস্থা সম্পর্কেই ‘কুৎসাজনক’ ও ‘মর্যাদাহানিকর’ মন্তব্য করেছেন।

২০ তারিখ থেকে সেভিংসে তোলা যাবে ৫০ হাজার

দেশের মানুষকে আরও একটু স্বস্তি দিতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এদিনই আরবিআইয়ের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে সেভিংস ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সাপ্তাহিক টাকা তোলার ঊর্ধ্বসীমা বেড়ে হচ্ছে ৫০ হাজার টাকা। আর ১৩ মার্চ থেকে এই ঊর্ধ্বসীমাই একেবারে তুলে দেওয়া হচ্ছে। তবে সাধারণ মানুষকে কিছুটা স্বস্তি দিলেও কর্পোরেট সেক্টরের মুখে হাসি ফোটাতে পারল না আরবিআই। গত ডিসেম্বরেও এই রেটে কোনও বদল হয়নি। অর্থাৎ, এই নিয়ে টানা দু’বার রেপো রেট বা সুদের হার অপরিবর্তিত রাখল শীর্ষ কেন্দ্রীয় ব্যাংক। গত ৮ নভেম্বর ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পাশাপাশি এটিএম থেকে টাকা তোলার ঊর্ধ্বসীমা দু’হাজার টাকা করে দেয় সরকার। সেভিংস থেকে শুরু করে কারেন্ট অ্যাকাউন্টেও টাকা তোলায় বিধি নিষেধ আরোপ থাকায় বিপাকে পড়েছিলেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ছোট ব্যবসায়ীরা। সরকার কারেন্ট অ্যাকাউন্টে সাপ্তাহিক এক লক্ষ টাকা তোলার ঊর্ধ্বসীমা আরোপ করেছিল।

ei samay

ভাঙড়ের মানুষ সাব-স্টেশনের প্রয়োজন বুঝুন, আর্জি মমতার

‘মানুশ চাইলে হবে ৷ না চাইলে হবে না ৷ ‘ভাঙড়ে জমি আন্দোলন নিয়ে এই প্রথম মুখ খুলে বিধানসভায় এ কথাই বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ আবার পরক্ষণে তিনি নিজেই আবার প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তাও ব্যাখাও করেছেন ৷

মা-বাবার শ্রাদ্ধ করতে চায় ঘাতক উজয়ন

যাঁদের খুন করতে তার হাত কাঁপেনি, এখন তাঁদের পারলৌকিক ক্রিয়ার সাধ হয়েছে উদয়নের ৷ পুলিশের কাছে সে নিজেই জানিয়েছে, সে-ই বাবা-মাকে খুন করেছে ৷ খুনের জন্য তার কোনও অনুশোচনাও নেই ৷

সম্পত্তি রক্ষায় পাশ বিল

বিক্ষোভ-আন্দোলনের নামে সরকারি বা বেসরকারি সম্পত্তির ক্ষতি করল, এবার থেকে কড়ায় গন্ডায় ক্ষতিপূরণ আদায় করবে রাজ্য সরকার ৷ ১৯৭২ সালের বিলে সংশোধনী এনে নতুন আইন চালু করল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ৷

বিদ্রোহী বিএসএফ জওয়ান এবার হঠাৎই নিখোঁজ, জল্পনা

বিদ্রোহী বিএসএফ জওয়ান তেজ বাহাদুর যাদবের নাকি খোঁজ মিলছে না ৷ তাঁর পরিবারের দাবি অন্তত তাই ৷

First published: 09:06:38 AM Feb 09, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर