হাইকোর্টের হস্তক্ষেপে খুলল সুইমিং পুল

Apr 04, 2017 05:02 PM IST | Updated on: Apr 04, 2017 05:02 PM IST

#কলকাতা: হাইকোর্টের হস্তক্ষেপে খুলে গেল সুইমিং পুল। পাটুলির এই সাঁতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটির নাম ‘ভাসমান’। স্থানীয় কাউন্সিলর জোরজবরদস্তি সুইমিং-পুলটিতে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছিলেন। তাঁর দাবি ছিল, পুরসভার সঙ্গে চুক্তি মানছে না কর্তৃপক্ষ। যুক্তি, পালটা যুক্তিতে মামলা গড়ায় হাইকোর্ট পর্যন্ত। আদালত সুইমিং-পুলটির পরিচালন সমিতির পক্ষেই রায় দিয়েছে। যদিও মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমারের দাবি পুরসভার টাকা নয়ছয় করেছে ‘ভাসমান’।

ঠিকানা একশো এক নম্বর ওয়ার্ড। পাটুলির কানুনগো পার্ক। সাঁতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘ভাসমান’। এখানে সব মিলিয়ে প্রায় আড়াই হাজার সদস্য সাঁতার কাটেন। সুইমিং-পুলটি কলকাতা পুরসভার জমিতে। এ নিয়ে পুরসভার সঙ্গে নির্দিষ্ট চুক্তিও রয়েছে। চলতি বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি ‘ভাসমানে’ দলবল নিয়ে হাজির হন স্থানীয় কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্ত। ভাসমানে তালা ঝুলিয়ে দেন তিনি। তাঁর অভিযোগ, পুরসভার সঙ্গে চুক্তি মানা হচ্ছে না। যদিও কাউন্সিলরের অভিযোগ মানতে নারাজ ‘ভাসমান’ কর্তৃপক্ষ।

হাইকোর্টের হস্তক্ষেপে খুলল সুইমিং পুল

তাদের দাবি, আইন মেনেই তৈরি হয়েছে ‘ভাসমান’

------------------------------------------

-২০১০ সালে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের পজেশন দেয় পুরসভা

-২০১১ পর্যন্ত পুরসভার সঙ্গে ৫ বছরের চুক্তি ছিল

-পরিবর্তনের সরকার ১ বছর চুক্তি বাড়ায়

-২০১২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত লিখিত চুক্তি হয়

-ভূমি-রাজস্ব দফতরের কাছে লিজের জন্য আবেদন

-৯৯ বছরের লিজ চেয়ে আবেদন করে ‘ভাসমান’

-এরপর চুক্তি বাড়ানো নিয়ে প্রতি বছর চিঠি

-পুরসভা ও ভূমি রাজস্ব দফতরকে চিঠি দেয় ‘ভাসমান’

-চিঠির কোনও উত্তর মেলেনি

চুক্তি মেনে ভাসমানের নিরাপত্তার দায়িত্বে কলকাতা পুরসভা। রক্ষীও নিয়োগ করেছিল তাঁরা। কিন্তু ভাসমান কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, কোনও কাজই করতেন না তাঁরা। তাই একরকম বাধ্য হয়ে সুইমিং-পুল পরিচালন সমিতিকে নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করতে হয়।

এই অচলাবস্থা কাটাতেই মামলা গড়ায় হাইকোর্টে। কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্তর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা করে ভাসমান কর্তৃপক্ষ। আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার পুলিশ পৌঁছে খুলে দেয় ভাসমান। যদিও মেয়র পারিষদ উদ্যান দেবাশিস কুমারের দাবি, পুরসভার টাকা নয়ছয় করেছে ভাসমান।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES