বাড়ল অপেক্ষার মেয়াদ, আরও একদিনের জন্য পিছিয়ে গেল শিক্ষক নিয়োগ মামলার শুনানি

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 02, 2017 03:47 PM IST
বাড়ল অপেক্ষার মেয়াদ, আরও একদিনের জন্য পিছিয়ে গেল শিক্ষক নিয়োগ মামলার শুনানি
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 02, 2017 03:47 PM IST

#কলকাতা: কবে সম্পন্ন হবে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগ? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে অপেক্ষার মেয়াদ বাড়ল আরও একদিন ৷ নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে দায়ের হওয়া মামলার শুনানি ছিল বৃহস্পতিবার ৷ এদিন অনিবার্য কারণবশত শুনানির তারিখ পিছিয়ে শুক্রবার করা হয় ৷ আগামীকাল বিচারপতি আর শর্মার বেঞ্চে হবে এই মামলার শুনানি ৷

আইনি জটিলতায় আটকে নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া ৷ আদালতে বিচারাধীন একাধিক মামলা ৷ চাকরিপ্রার্থীদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে সমস্ত পক্ষের সওয়াল শুনে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ফলপ্রকাশ স্থগিত রাখার আদেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট ৷ স্থগিতাদেশের মেয়াদ শেষ হয়েছে মঙ্গলবার ৷ মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য ইতিমধ্যেই আদালতে আর্জি জানিয়েছে স্কুল সার্ভিস কমিশন ৷

মার্চের মধ্যেই শিক্ষক নিয়োগ সম্পূর্ণ করতে চায় সরকার, কিন্তু আদালতের নির্দেশ ছাড়া ফলপ্রকাশ সম্ভব নয় ৷ অন্যদিকে, বুধবারের প্রাথমিক শিক্ষক মামলার রায় পরোক্ষভাবে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগের মামলায় প্রভাব ফেলবে বলে আশা মামলাকারীদের ৷

নবম,দশম এবং একাদশ, দ্বাদশ এই চার শ্রেণীর অর্থাৎ উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক পদের যোগ্যতামান হিসেবে বিএড ডিগ্রি আবশ্যক ৷ এই ডিগ্রি ছাড়া নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেওয়া যাবে না বলে জানিয়েছিল স্কুল সার্ভিস কমিশন ৷ এই নিয়মের বিরোধিতা করে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করে আরসিআই ট্রেনিংপ্রাপ্ত সুনীল দাস সহ ১১৯ জন ৷ তাদের দাবি ছিল Rehabilitation Council Of India-এর ডিগ্রি বিএড-এর সমতুল্য ৷ NCTE-র মান্যতা নিয়ে শুরু হয় সওয়াল ৷

সেই মামলা চলাকালীনই হাইকোর্ট NCTE-কে এই ১২০ জনকে পরীক্ষায় বসার সুযোগ দেওয়ার নির্দেশ দেন ৷ স্টেট লেবেল সিলেকশন টেস্ট (SLST) পরীক্ষা সম্পন্ন হলেও Rehabilitation Council Of India-এর ডিগ্রি বিএড-এর সমতুল্য কিনা এই প্রশ্নের সমাধান না হওয়া পর্যন্ত হাইকোর্টের নির্দেশ ছাড়া পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা যাবে না বলে জানায় হাইকোর্ট ৷

বুধবারের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ মামলার রায়ে নতুন করে আশায় বুক বাঁধছেন স্কুল সার্ভিস কমিশনের বেশ কিছু পরীক্ষার্থী ৷ এদিনের মামলায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে Rehabilitation Council Of India-এর স্পেশাল এডুকেশনে ডিপ্লোমাধারীদের প্রশিক্ষিতের মর্যাদা ও মান্যতা দিয়েছে বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ সেই মতোই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদকে নতুন করে মেধাতালিকা তৈরির নির্দেশও দিয়েছে হাইকোর্ট ৷ এই রায়ে আশা জেগেছে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগে মামলাকারীদের ৷

একই রকম ভাবে নবম দশম ও একাদশ দ্বাদশ শ্রেনির শিক্ষক নিয়োগে বাধ্যতামূলক বিএড। নবম-দশম এবং একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক পদে আবেদনকারীদের অনেকেই স্পেশাল বিএড-এর সার্টিফিকেট রয়েছে ৷ আরটিআই অনুমোদিত স্পেশাল বিএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের স্বীকৃতি দিতে নারাজ বোর্ড। প্রশিক্ষণের মর্যাদা চেয়ে সেই মামলাও বিচারাধীন। স্পেশাল ডিএলএড-দের এই জয়ে আশাবাদী এই মামলাকারীরাও। ফলে জটিলতা কাটলে কালই ফল প্রকাশ হতে পারে বলে আশা ৷

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘোষণা, ১৫ মার্চের মধ্যে সব স্তরে শিক্ষক নিয়োগ সম্পন্ন করবে উচ্চশিক্ষা দফতর ৷ একইসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী জানান, কোর্টের স্থগিতাদেশ থাকায় ফল প্রকাশ করা যাচ্ছে না ৷ স্থগিতাদেশ সরলেই প্রকাশিত হবে মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক স্তরের মেধাতালিকা ৷

First published: 03:47:50 PM Mar 02, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर