তৃণমূল সরকারের বর্ষপূরণ, দেখে নিনি সরকারের সাফল্যের রূপরেখা

May 26, 2017 05:12 PM IST | Updated on: May 26, 2017 05:12 PM IST

#কলকাতা: সিপিএম ও কংগ্রেসকে সাফ করে একচ্ছত্র আধিপত্য প্রতিষ্ঠা। জাতীয় রাজনীতিতে বিজেপি বিরোধী মুখ হিসেবে উঠে উত্থান। পাহাড়ে মোর্চাকে স্তিমিত করে মিরিক জয়। রাজনীতির ময়দানে সাফল্যের শিখরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। তবে শুধু রাজনীতির অঙ্কেই জয় হাসিল নয়, শিক্ষা, স্বাস্থ্য বা প্রশাসনিক দিকে উন্নয়নের মন্ত্র এই সরকারের। পাহাড়কে মূলস্রোতের রাজনীতিতে যুক্ত করা বা জঙ্গলমহলের অটুট শান্তি। তৃণমূলের উন্নয়নের ট্রাম্পকার্ডেই পর্যুদস্ত বিরোধী শিবির।

পাহাড় ও জঙ্গলমহলকে শান্ত রাখার চ্যালেঞ্জ নিয়ে শুরু হয়েছিল মমতার সরকারের পথ চলা। টানা জনসংযোগ, দু’টাকার চাল বিলি ও প্রশাসনিক ত‍‍ৎপরতায় ছ’বছরের মাথায় জঙ্গলমহল ও পাহাড়ে শান্তি ফিরেছে। বাম ও কংগ্রেস জোটকে কার্যত অপ্রাসঙ্গিক করে বিপুল জয়লাভে শাসকদলের কাছে রাজনৈতিক জয়ের ভিত্তি তৈরি হয়েছে। পুরনির্বাচনে মিরিকে তৃণমূলের জয় হোক বা কাঁথি উপনির্বাচন। ধুয়েমুছে সাফ হয়ে গিয়েছে বিরোধী শিবির। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, প্রশাসন, সামাজিক সুরক্ষা। সবক্ষেত্রেই উন্নয়নের মাপকাঠি যে তুঙ্গে তা আরও একবার প্রমাণ করেছে জোড়াফুলের সরকার।

তৃণমূল সরকারের বর্ষপূরণ, দেখে নিনি সরকারের সাফল্যের রূপরেখা

স্বাস্থ্য

- প্রথম ৫ বছরে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরিষেবার নীতিগত ঘোষণার পরে তৈরি হয়েছিল ন্যায্যমূল্যের ওষুধের দোকান

- নতুন সরকারের এক বছরের পথ চলায় বেসরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থায়ও সরকারি নিয়ন্ত্রণ এসেছে

- তৈরি হয়েছে ক্লিনিক্যাল এসটাব্লিশমেন্ট অ্যাক্ট বিল পাশ করে স্বাস্থ্য কমিশন

- বিল পাশের ফলে হাসপাতাল ভাঙচুরের মতো ঘটনায় শাস্তির নিদান এসেছে

- চিকিৎসায় গাফিলতিতে কড়া শাস্তির নিদানও এনেছে সরকার

- বিল পাশের আগে বেসরকারি হাসপাতালের কর্তাদের ধমক

- বেসরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণের বাইরে না, বিল পাশে তা স্পষ্ট

-----------

স্বাস্থ্যের পাশাপাশি শিক্ষব্যবস্থার রাশ শক্ত হাতে ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

শিক্ষা

---------------

- প্রাথমিকে জুতো বা ব্যাগ দেওয়ার নীতিগত ঘোষণা

- চলতি বছরে প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষক পদে ৪২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ

- আদিবাসী ভাষা-সহ কয়েকটি ভাষাকে মর্যাদা দেওয়া

- স্কুলগুলিতে বাংলা ভাষা শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা

- কার্শিয়ঙে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস তৈরি

- কোটার বাইরে অনলাইনে ভরতির বেনিয়মে রাশ টানা

- কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্বাচনে অশান্তি রুখতে কড়া ব্যবস্থা

পাশাপাশি বেসরকারি শিক্ষার প্রতিষ্ঠান বিরোধী কাজের নিয়ন্ত্রণেরও চেষ্টায় মরিয়া সরকার। ৩১ মে বেসরকারি স্কুলকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এতো গেল শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের উন্নয়নের আলোচনা। স্বরাষ্ট্র ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রেও যে কোনও ফাঁক রাখতে চায় না এই সরকার, এক বছরের খতিয়ানে তা স্পষ্ট ।

স্বরাষ্ট্র ও প্রশাসন

------------

- বর্ধমান ভেঙে পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান জেলা ঘোষণা

- কালিম্পংকে জেলা ঘোষণা করা

- বিভিন্ন দফতরের সংযুক্তিকরণ

- মাওবাদী সমস্যা মোকাবিলায় জঙ্গলমহলে বিকল্প চাষের ব্যবস্থা

- পাহাড়ে কথায় কথায় বনধে রাশ টানা

- গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বন্ধের রাজনীতি অনেকটাই ম্লান

- সবশেষে মিরিকে ঘাসফুলের ছাপ রেখে সাফল্য অর্জন

সামাজিক সুরক্ষার পূর্ণতা দিতে বদ্ধপরিকর রাজ্য সরকার।

সামাজিক সুরক্ষা

-কন্যাশ্রী প্রকল্পে প্রায় ৪০ লক্ষ ছাত্রীকে যুক্ত করা

- ছাত্রী ও ছাত্রদেরও সাইকেল বিলি

- সবুজশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে শিশুর জন্মের পরে একটি গাছের চারা তুলে দেওয়া

- বৈতরণী প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামে গ্রামে বৈদ্যুতিক চুল্লি তৈরি

- সমব্যথী প্রকল্পের মাধ্যমে দরিদ্রদের দাহকাজে অনুদান

সামাজিক সুরক্ষা, বিনামূল্যে সরকারি স্বাস্থ্য পরিষেবা, কন্যাশ্রী, সবুজসাথী সব মিলিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের অভিমুখ রাজ্যের সাধারণ মানুষ। জেলায় জেলায় নবান্নের ভ্রাম্যমান প্রশাসনিক সভার মাধ্যমে আরও কাছে পৌঁছেছে রাজ্য সরকার। এভাবেই বাম-কংগ্রেস জোটকে অস্তিত্বহীন প্রমাণ করে আর বিজেপিকে কোণঠাসা করে সর্বভারতীয় মুখ হিসেবে উঠে আসছেন তৃণমূল নেত্রী। উঠে আসছে তাঁর সরকারের সাফল্যের রূপরেখাও।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES