বামকর্মী সলিল বসুর মৃত্যু নিয়ে বিতর্ক, পুলিশের লাঠিচার্জে আহত বলে অভিযোগ

Jun 04, 2017 05:31 PM IST | Updated on: Jun 04, 2017 05:31 PM IST

#কলকাতা: মারা গেলেন নবান্ন অভিযানে অংশগ্রহণকারী বামকর্মী সলিল বসু। তাঁর মৃত্যুর পরই শুরু বিতর্ক। পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হয়েই মৃত্যু বলে দাবি সিপিএমের। যদিও ডেথ সার্টিফিকেটের ভিত্তিতে পুলিশের পালটা দাবি, বাথরুমে পড়ে গিয়ে জখম হয়েছিলেন সলিল বসু। দলীয় কর্মীর মৃত্যুর প্রতিবাদে সোমবার রাজ্যজুড়ে ধিক্কার মিছিলের ডাক দিয়েছে সিপিএম।

২২ মে বামেদের নবান্ন অভিযানে অংশ নিয়েছিলেন সলিল বসু। সেদিন পুলিশের লাঠিচার্জে তিনি জখম হন বলে দাবি পরিবার ও দলের। যদিও পরের দিন ২৩ তারিখ প্রতিবাদ মিছিলেও অংশ নেন তিনি। সেখানেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। ২৫ তারিখ তাঁকে ভরতি করা হয় আরজি কর হাসপাতালে। রবিবার সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ মৃত্যু হয় সলিল বসুর।

বামকর্মী সলিল বসুর মৃত্যু নিয়ে বিতর্ক, পুলিশের লাঠিচার্জে আহত বলে অভিযোগ

হাসপাতাল থেকে দমদমের নয়াপট্টির বাড়িতে সলিল বসুর দেহ নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে দেহ আসে আলিমুদ্দিনে। নবান্ন অভিযানে অংশগ্রহণকারীর মৃত্যুর পরই শুরু বিতর্কের। মৃতের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে, পুলিশের দিকেই আঙুল তুলছে সিপিএম।

যদিও লাঠির ঘায়ে বামকর্মীর মৃত্যু হয়েছে, তা মানতে নারাজ পুলিশ। ডেথ সার্টিফিকেটের কথা উল্লেখ করে কলকাতা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার সুপ্রতিম সরকারের দাবি

বামকর্মীর মৃত্যুতে পুলিশের যুক্তি

- সিপিএম-এর দাবি সত্যি নয়

- বাথরুমে পড়ে গিয়েছিলেন সলিল বসু

- ডেথ সার্টিফিকেট অনুযায়ী মৃত্যুর কারণ ‘হেমারোহেজিক স্ট্রোক’

- যে কোনও মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক। তার থেকে বেশি দুর্ভাগ্যজনক রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পুলিশের বদনাম করা

- এই ঘটনার নিন্দা করছি। যদি এইভাবে পুলিশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চলে, তাহলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে

পুলিশ যাই দাবি করুক না কেন, নিজেদের অবস্থান থেকে সরছে না সিপিএম। কুড়ি বছরের সক্রীয় বামকর্মীর মৃত্যুর প্রতিবাদে সোমবার জেলায় জেলায় ধিক্কাম মিছিলের ডাক দিয়েছে সিপিএম।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES