২৩ সপ্তাহের গর্ভস্থ ভ্রূণের হৃদযন্ত্রে সমস্যা, গর্ভপাতের অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ বারাসতের দম্পতি

Jun 22, 2017 07:42 PM IST | Updated on: Jun 22, 2017 07:42 PM IST

#কলকাতা: ২৩ সপ্তাহের গর্ভস্থ ভ্রূণের হৃদযন্ত্রে বড়সড় সমস্যা। গর্ভপাতের অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ বারাসতের দম্পতি। প্রথম বার সন্তানের মুখ দেখতে চলেছিলেন দম্পতি। কিন্তু ভ্রূণ পরীক্ষা করতেই ধরা পড়ল হৃদযন্ত্রে বড়সড় সমস্যা।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন জন্মের তিন মাসের মধ্যে একাধিকবার ওপেন হার্ট সার্জারি করতে হবে শিশুর। তারপরও বাঁচার নিশ্চয়তা নেই। ভ্রূণের বয়স ২৩ সপ্তাহ হওয়াই আইনত গর্ভপাত করাতে পারবেন না। তাই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন বারাসতের দম্পতি। বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়, সঞ্জয় কিষেন কউলের বেঞ্চ কেন্দ্রীয় সরকার ও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মত জানাতে চেয়েছে। ভ্রূণের বয়স ২৩ সপ্তাহ তাই, দুদিনের মধ্যে সরকারের মত জানতে চাওয়া হয়েছে। শুক্রবার ফের মামলার শুনানি।

২৩ সপ্তাহের গর্ভস্থ ভ্রূণের হৃদযন্ত্রে সমস্যা, গর্ভপাতের অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ বারাসতের দম্পতি

অন্যদিকে আইনসিদ্ধ গর্ভপাতের নিয়ম অনুযায়ী, ২০ সপ্তাহ পর্যন্ত ভ্রূণের শর্তসাপেক্ষে গর্ভপাত

প্রসূতির প্রাণের আশঙ্কা থাকলে গর্ভপাতে সায় ৷ সন্তানের জন্মের পর মায়ের শারীরিক বা মানসিক স্বাস্থ্য খারাপ হওয়ার আশঙ্কা থাকলে ৷ শিশুটি শারীরিক বা মানসিক ভাবে অস্বাভাবিক হওয়ার আশঙ্কা থাকলে গর্ভপাত হতে পারে ৷

চলতি বছরের জানুযারী মাসে শারীরিক সমস্যার কারণে গর্ভাবস্থার ২৪ তম সপ্তাহে মুম্বইয়ের এক প্রসূতিকে গর্ভপাতের অনুমতি দিল শীর্ষ আদালত ৷ প্রাণ সংশয় হতে পারে, তাই ২৪ সপ্তাহেরও বেশি বয়সী ভ্রূণকে নষ্ট করার অনুমতি দিল আদালত ৷

২৪ সপ্তাহ কেটে গিয়েছে,এখনও তৈরি হয়নি ভ্রুণের মাথার খুলি ৷ জটিল এই ক্রুটির কারণেই বিচারক এস এ বোবদে এবং এল নাগেশ্বর রাওয়ের বেঞ্চ ২২ বছরের অন্তঃসত্ত্বার গর্ভপাতের আবেদন মঞ্জুর করে ৷ ২০ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে অন্তঃসত্ত্বা কোনও মহিলাকে মেডিক্যাল গ্রাউন্ডে ব্যতিক্রমীভাবে গর্ভপাতের অনুমতি দিল সুপ্রিম কোর্ট ৷

দেশের বর্তমান আইন অনুযায়ী, ভ্রুণের বয়স ২০ সপ্তাহ পেরোলে গর্ভপাত করানো যায় না। কিন্তু বছর বাইশের ওই মহিলার গর্ভে থাকা ভ্রুণটি অপরিণত। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এই সন্তান ভূমিষ্ঠ হলেও মাথার খুলি ছাড়া বেঁচে থাকা অসম্ভব ৷ তাই ভূমিষ্ঠ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ভ্রূণের মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী ৷ এই মেডিক্যাল রিপোর্টের ভিত্তিতেই ২৪ তম সপ্তাহেও গর্ভপাতের অনুমতি দিল সুপ্রিম কোর্ট।

প্রসূতির শারীরিক পরীক্ষা করে সাত চিকিৎসকের মেডিক্যাল টিমের দেওয়া রিপোর্টটি পড়ে বিচারক এস এ বোবদে এবং এল নাগেশ্বর রাওয়ের বেঞ্চ বলেন, মেডিক্যাল রিপোর্টেই স্পষ্ট যে এই জটিল শারীরিক ক্রুটির কারণে ভ্রূণের বেঁচে থাকার কোনও আশা নেই ৷ তাই প্রসূতিকে এই গর্ভাবস্থা অব্যাহত রাখতে বাধ্য করার কোনও কারণ নেই ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES