মোর্চার পাহাড় বনধকে বেআইনি, ঘোষণা হাইকোর্টের

Jun 16, 2017 05:33 PM IST | Updated on: Jun 16, 2017 05:33 PM IST

#কলকাতা: পাহাড়ে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বনধকে বেআইনি ঘোষণা করল হাইকোর্ট। বনধ নিয়ে পাহাড়েই চাপের মুখে পড়া মোর্চা এবার আইনি লড়াইতেও প্রবল অস্বস্তিতে। বনধে জনজীবন স্বাভাবিক রাখতে রাজ্য প্রশাসনকে নির্দেশ হাইকোর্টের। বনধের দিনগুলোতে মোর্চার তাণ্ডবে যে ক্ষতি হয়েছে, তার হিসাব দিতেও রাজ্যকে নির্দেশ হাইকোর্টের। এই টাকা মোর্চার থেকেই ক্ষতিপূরণ বাবদ আদায় করা হতে পারে। হাইকোর্টের রায়ে সেই সম্ভাবনাও স্পষ্ট।

পাহাড়ে বনধ নিয়ে এবার আইনি অস্বস্তিতে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা। মোর্চার অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা বনধ বেআইনি ঘোষণা কলকাতা হাইকোর্টের? কেন এই নির্দেশ, তাও স্পষ্ট হাইকোর্টের রায়ে,

মোর্চার পাহাড় বনধকে বেআইনি, ঘোষণা হাইকোর্টের

অনির্দিষ্টকালের জন্য বনধে জনজীবন ব্যাহত হতে বাধ্য

বনধ মোকাবিলায় সাধারণ মানুষের সমস্যা হচ্ছে

বিভিন্ন আদালতে একাধিকবার বনধ বেআইনি ঘোষণা করা হয়েছে

২০১৩ সালেও মোর্চার বনধ বেআইনি ঘোষণা করে হাইকোর্ট

তারপরেও বনধ চালিয়ে যাওয়ার যুক্তি নেই

বনধ বেআইনি। তাই প্রশাসনিক ভাবে বনধ মোকাবিলা করতেও রাজ্য প্রশাসনকে নির্দেশ হাইকোর্টের। ২০১৩ সালের জুলাই মাসে একই ভাবে মোর্চার ডাকা বন্্ধ মোকাবিলার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। সেই দাওয়াই প্রয়োগ করেও এবারও পাহাড়ে বন্্ধের পরম্পরায় রাশ টানার নির্দেশ ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি নীশিথা মাত্রে ও বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তীর ডিভিশন বেঞ্চের। ৩ টি বিষয় নিশ্চিত করার নির্দেশ হাইকোর্টের।

হাইকোর্টের নির্দেশ,

পাহাড়ে সরকারি-বেসরকারি পরিবহণ স্বাভাবিক রাখতে ব্যবস্থা নিতে হবে

জোর করে বনধের চেষ্টা হলে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা

বনধের শুরু থেকে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ হিসাব করে জানাতে হবে

২০১৩ সালে জুলাই ও অগস্ট মাসেও একই ভাবে প্রথমে বনধ ও পরে আর্থিক অবরোধের নামে অচলাবস্থা তৈরি করে মোর্চা। সেই সময় ১৫ দিনে ৬৯ কোটি টাকা ক্ষতির হিসাব দাখিল করেছিল রাজ্য প্রশাসন। সেই মামলা এখনও বিচারাধীন। তারই মধ্যে শুক্রবারের রায়ে নতুন করে অস্বস্তিতে পড়ল মোর্চা। হাত শক্ত হল রাজ্য সরকারের।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES