ছাত্র সংসদের বিকল্প হিসেবে এই নয়া বিধি তৈরি করছে সরকার

Jun 07, 2017 09:10 AM IST | Updated on: Jun 07, 2017 09:10 AM IST

#কলকাতা: ছাত্র নির্বাচন ঘিরে ধুন্ধুমার এড়াতে, কলেজে শুদ্ধিকরণ প্রক্রিয়া শুরু করল সরকার। আর্থিক ক্ষমতা তুলে নেওয়ার পাশাপাশি একাধিক সংশোধন করে নয়া বিধি তৈরি করা হচ্ছে। সেন্ট জেভিয়ার্স, লেডি ব্রেবনের আদলে ছাত্রবিধি তৈরি করা হলেও, নির্বাচন প্রক্রিয়াতে যাদবপুর, প্রেসিডেন্সির পদ্ধতিই অনুসরন করা হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর সম্মতি মিললেই কার্যকর হবে নয়াবিধি।

ছাত্রভোটে রদবদল নিয়ে চলতি বছরে বিধানসভা অধিবেশনে প্রস্তাব দেওয়া হয়। সেই মতোই ছাত্র সংসদের বিকল্প হিসেবে নয়া বিধি তৈরি করছে সরকার। তাতে থাকছে

ছাত্র সংসদের বিকল্প হিসেবে এই নয়া বিধি তৈরি করছে সরকার

নয়া ছাত্রবিধি

- ছাত্র সংসদের বদলে নাম হবে ছাত্র কাউন্সিল

- সভাপতি হবেন অধ্যক্ষ বা অধ্যক্ষ মনোনিত কোনও অধ্যাপক

- খর্ব করা হচ্ছে ছাত্র সংসদের ক্ষমতাও

- কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব সামলাবেন কোনও অধ্যাপক

- সেই অধ্যাপকের নামও ঠিক করবেন অধ্যক্ষ

- ক্লাস প্রতিনিধি আসনেও আর নির্বাচন হবে না

- সাধারণ সম্পাদক, সহকারি সাধারণ সম্পাদকের মতো ইউনিয়নের পদগুলির জন্যই সরাসরি নির্বাচন

- কোনও ছাত্র-ছাত্রী টানা দু'বারের বেশি সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হতে পারবেন না

- কারও বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ, শাস্তিমূলক পদক্ষেপের উল্লেখ থাকলে প্রার্থী হওয়া যাবে না

- ছাত্রদের ৬০ শতাংশ উপস্থিতি থাকতে হবে

তবে সেন্ট জেভিয়ার্স মডেল বলছে, ছাত্র নির্বাচনে রাজনীতির প্রবেশ নেই। অর্থাৎ কোনও ছাত্র সংগঠনের ব্যনারে নির্বাচন হয় না। শুধু তাই নয়, ছাত্ররাই নিজেদের মধ্যে ঠিক করে দেন, কে সাধারণ সম্পাদক হবেন। আলাদা করে কোনও দলের নাম আসে না। তবে রাজ্যের নয়া বিধিতে এই পদ্ধতি অনুসরন করা হবে কিনা তা স্পষ্ট করেননি শিক্ষামন্ত্রী।

রাজ্যে ক্ষমতায় আসার সময় উচ্চশিক্ষা সংসদের তৎকালীন চেয়ারম্যান সুগত মার্জিত, ছাত্রভোটের ক্ষেত্রে লিংডো কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার কথা বলেন। বিশেষজ্ঞদের মতে নয়া বিধিতে সেই লিংডো কমিশনেরই অনেক সুপারিশ কার্যকর করা হচ্ছে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES