ফের আইনের ফাঁসে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ, উঠল গুরুতর অভিযোগ

Feb 13, 2017 05:43 PM IST | Updated on: Feb 13, 2017 05:44 PM IST

#কলকাতা: আইনি বেড়াজাল আর শেষ হচ্ছে না ৷ টেট পরীক্ষা থেকে শুরু করে নিয়োগ প্রতি পদে আইনি মামলার জটিলতায় বাঁধা পড়ছে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ৷ ফলপ্রকাশের পর এখন নিয়োগ প্রক্রিয়ার শেষ ধাপে উঠল আদালত অবমাননার অভিযোগ ৷ ফলে নিয়োগ নিয়ে ফের দেখা দিল আশঙ্কা ৷

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে মানা হয়নি হাইকোর্টে নির্দেশ ৷ এই অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ এই মুহূর্তে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে কোনও অন্তবর্তী স্থগিতাদেশ না দিলেও প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য ও প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সচিব সহ বেশ কয়েকজন পর্ষদ আধিকারিককে আদালত অবমাননার জবাব চেয়ে নোটিস পাঠাল ৷ জনস্বার্থ মামলাকারী রীতা হালদারের দায়ের করা মামলা অনুসারেই এই নির্দেশ হাইকোর্টের ৷ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ তুলেছেন মামলাকারী ৷

ফের আইনের ফাঁসে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ, উঠল গুরুতর অভিযোগ

২০১৬ সালে ২০ অক্টোবর পুজোর ছুটির অবকাশ বেঞ্চ বিচারক দীপঙ্কর দত্ত ও সিদ্ধার্থ চট্টোপাধ্যায় টেট মামলার শুনানিতে একটি নির্দেশ দেন ৷ কেস নম্বর WB 24882 WBof2016 ৷ সেই নির্দেশে বলা হয়, ‘হাইকোর্টে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জনস্বার্থ মামলা বিচারাধীন ৷ মামলার ভবিষ্যতের উপর নির্ভর করবে শিক্ষকদের নিয়োগ ৷ তাই নিয়োগপত্রে উল্লেখ থাকতে হবে মামলার কথা ৷’ রাজ্যে ইতিমধ্যেই নিযুক্ত ২৭ হাজারের বেশি প্রাথমিক শিক্ষক ৷ কিন্তু তাদের কারোরই নিয়োগপত্রে উল্লেখ নেই কোর্টের নির্দেশের ৷ হাইকোর্টের নজরে এই বিষয়টি আনেন মামলাকারী ৷ এর ভিত্তিতেই পর্ষদ সভাপতি মাণিক বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সচিব সহ পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যানকে আদালত অবমাননার নোটিস ধরিয়ে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পর্ষদের জবাব তলব করেছে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ ৷ উত্তর যথাযথ নাহলে আদালত অবমাননার মামলার হুঁশিয়ারিও দিয়েছে আদালত ৷

অন্যদিকে, নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে উঠছে একের পর এক অভিযোগ ৷ প্যানেল প্রকাশ,অস্বচ্ছতা, প্রশিক্ষিতরা অগ্রাধিকার পাচ্ছেন না ইত্যাদি অভিযোগে আদালতে বিচারাধীন প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে অন্য একটি মামলা ৷ এদিনই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘোষণা করেন, এই মাসের মধ্যেই সম্পন্ন হবে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES