বোম-কাঁদানে গ্যাস-জলকামানে ধুন্ধুমার, পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে বিজেপির লালবাজার অভিযান

May 25, 2017 08:19 PM IST | Updated on: May 25, 2017 08:20 PM IST

#কলকাতা: বোম, আগুন, লাঠি, কাঁদানে গ্যাস, জলকামানে রণক্ষেত্র কলকাতা। বিজেপির লালবাজার অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার। কোথাও বোমা। কোথাও পুলিশের গাড়িতে আগুন। টি বোর্ড, ব্রেবোর্ন রোড, বেন্টিঙ্ক স্ট্রিটে পুলিশের ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করে বিজেপি কর্মী, সমর্থকরা। পুলিশের লাঠির ঘায়ে আহত বেশ কয়েকজন কর্মী, সমর্থক। আটক দিলীপ ঘোষ, কৈলাশ বিজয়বর্গী-সহ বিজেপি নেতা, কর্মীরা।

বিজেপির লালবাজার অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্র রাজপথ। মিছিল আটকাতে ব্যাপক লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস, জলকামান। সাক্ষী থাকল কলকাতা ।

বোম-কাঁদানে গ্যাস-জলকামানে ধুন্ধুমার, পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে বিজেপির লালবাজার অভিযান

লালবাজার

বামেদের স্টাইলে যান চলাচলের সুযোগে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে লালবাজারের সামনে চলে আসে তিনটি বাস ভরতি বিজেপি কর্মীরা। তড়িঘড়ি তাদের গ্রেফতার করা হয়।

টি বোর্ড

বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে হাওড়া থেকে মিছিল এসে পৌঁছয় টি-বোর্ডে। প্রথম ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করেন বিজেপির কর্মী, সমর্থকরা। আচমকা মিছিল থেকে উড়ে আসে বোমা। শুরু হয় পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর,ইট বৃষ্টি।

মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে প্রথমে লাঠিচার্জ। তারপর জলকামান।

বিজেপিকর্মী, সমর্থকদের ধাওয়া করে হটিয়ে দেয় পুলিশ। ধস্তাধস্তির মধ্যে পড়ে যান দিলীপ ঘোষ। তাকে সরিয়ে নিয়ে যান কর্মীরা। পুলিশের লাঠির ঘায়ে আহত কয়েকজন রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। রাস্তার পাশে দোকানে আগুন লাগানোর চেষ্টা করে মিছিলকারীরা।

ফিয়ার্স লেন

কলেজ স্কোয়ার থেকে কৈলাশ বিজয়বর্গীর নেতৃত্বে মিছিল ততক্ষণে পৌঁছে গিয়েছে ফিয়ার্স লেনে। ব্যারিকেড ভাঙতে গেলে এখানেও লাঠিচার্জ করে পুলিশ। রাস্তায় পড়ে কাতড়াতে থাকেন কয়েকজন। আটক করা হয় কৈলাশ বিজয়বর্গী-সহ সমর্থকদের। আন্দোলনকারীদের বিবি গাঙ্গুলী স্ট্রিটের দিকে সরিয়ে দেয় পুলিশ। ফুটপাথের রেলিংয়ের পাশে পড়ে থাকতে দেখা যায় বিজেপি সমর্থকদের।

আরও পড়ুন

লাঠি চলতেই ময়দান ত্যাগ দিলীপ ঘোষের!

বি বি গাঙ্গুলি স্ট্রিট

ছত্রভঙ্গ মিছিল থেকে ছড়িয়ে পড়ে হিংসা। পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর। এক ওসির গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ভাঙচুর করা একটি অ্যাম্লবুলেন্স।

তুহিনের পিটিসি--

সেন্ট্রাল মেট্রো

পুলিশের মার থেকেবাঁচতে মিছিলকারীরা ঢুকে পড়েন সেন্ট্রাল মেট্রো স্টেশনে। তাতেও শেষরক্ষা হয় নি। মেট্রো স্টেশনের ভিতর থেকে আন্দেলনতারীদের নের করে নিয়ে আসে পুলিশ।

বেন্টিঙ্ক স্ট্রিট

মিছিলে হিংসার প্রস্তুতি ছিল অনেক আগেই। সকালেই ধর্মতলায় বাঁশ, লাঠি নিয়ে জড়ো হয়েছিলেন বিজেপি কর্মী, সমর্থকরা। কিন্তু পুলিশ কেড়ে নেয় সেই অস্ত্র।

এস এন ব্যানার্জি রোড হয়ে আসা মিছিল আটকে দেওয়া হয় বেন্টিঙ্ক স্ট্রিটের মুখেই। রাস্তায় বসে পড়েন রূপা , রাহুল। পুলিশের সঙ্গে শুরু হয় তর্কাতর্কি।

এখানেও বোমা ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে। এরপরই পুলিশের দিকে তেড়ে যায় আন্দোলনকারীরা। আহত এক পুলিশ কর্মীকে সাহায্য করতে এগিয়ে যান ইটিভি নিউজ বাংলার প্রতিনিধি।

এরমধ্যে ফের টি বোর্ডে মিছিল করে পৌঁছন লকেট ও জয়প্রকাশ মজুমদার। লালবাজারের দিকে এগোতে গেলে পুলিশের সঙ্গে ফের ধস্তাধস্তি। রাস্তায় বসে পড়েন বিজেপি নেতারা। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই রাস্তা ফাঁকা করে দেয় পুলিশ।

লালবাজার

আটক নেতাদের ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে লালবাজারের সামনে বসে পড়ে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মীরা।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES