কলকাতা ও হাওড়ায় জোড়া অস্ত্র কারখানার হদিশ

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:May 16, 2017 05:19 PM IST
কলকাতা ও হাওড়ায় জোড়া অস্ত্র কারখানার হদিশ
Photo : AFP
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:May 16, 2017 05:19 PM IST

#কলকাতা: কলকাতা সংলগ্ন এলাকায় জোড়া অস্ত্র কারখানার হদিশ। রবীন্দ্রনগরের দক্ষিণ বিধানগড় এলাকায় এক লক্ষ টাকা বাড়ি ভাড়া দিয়ে রমরমিয়ে চলছিল কারবার। অস্ত্র কারবারে কত লাভ তা বাড়ি ভাড়ার অঙ্ক থেকেই স্পষ্ট। নিজেদের আড়াল করতে অভিযুক্তরা রাজ্য সরকারের স্টিকার লাগানো গাড়ি ব্যবহার করত। হাওড়ার টিকিয়াপাড়াতেও অস্ত্র কারখানার হদিশ মিলেছে।

কলকাতা ও হাওড়ায় জোড়া অস্ত্র কারখানার হদিশ। গত কয়েকমাসে এই নিয়ে তৃতীয়বার। ফের রবীন্দ্রনগর থানা এলাকায় অস্ত্র কারখানার খোঁজ মিলল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে দক্ষিণ বিধানগড়ে একটি বাড়িতে হানা দেয় রবীন্দ্রনগর থানার পুলিশ ও CID।

- পিস্তল ৩৮টি

- ম্যাগাজিন ৩৮টি

- উদ্ধার অস্ত্র তৈরির প্রচুর সর‍ঞ্জাম

দক্ষিণ বিধানগড়ের গৌতম রায়ের বাড়ির একতলায় মুঙ্গেরের বাসিন্দা মহম্মদ নজরুল ও মহম্মদ সাব্বির আলম অস্ত্র কারখানা চালাচ্ছিল বলে অভিযোগ। বাড়ি ভাড়া বাবাদ এক লক্ষ টাকা দেওয়া হত বলে দাবি স্থানীয়দের।

পেশায় গাড়ি চালক গৌতম রায়। তাঁর গাড়িতে রাজ্য সরকারের স্টিকার লাগানো রয়েছে। এই গাড়িতেই অস্ত্র পাচার হত বলেও অভিযোগ। বাড়ির সর্বত্রেই অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম ছড়ানো ছেটানো রয়েছে।

ঘটনায় বাড়ির মালিক গৌতম রায়-সহ তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতের দশ দিনের সিআইডি হেঝাপতের নির্দেশ দিয়েছে আলিপুর আদালত।

অস্ত্র কারখানার হদিশ মিলেছে হাওড়ার টিকিয়াপড়াতেও। কয়েকদিন আগে গ্রেফতার হয় শেখ মোর সেলিম। তাঁকে জেরা করেই হাওড়ার টিকিয়াপাড়ায় নুর মহম্মদ লেনে অস্ত্র কারখানার সন্ধান মেলে। সোমবার ইরশাদের বাড়িতে হানা দেয় কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ ও হাওড়া পুলিশ।

- পিস্তল ৩০টি

- ড্রিল মেশিন ও পিস্তল তৈরির সরঞ্জাম

ইরশাদের বাড়ি ভাড়া নিয়ে অস্ত্র কারখানা চালাত ফিরোজ নামে এক যুবক। বাড়ির মালিক ইরশাদকে আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। টিকিয়াপাড়ায় তৈরি পিস্তলের সরঞ্জামগুলি মুঙ্গেরে পাচার হত। পরে সেখানে অ্যাসেম্বেলের পর সেগুলি বিক্রি করা হত বলে দাবি সেলিমকে। অস্ত্র কারখানার হদিশ মিললেও তৈরি অস্ত্রগুলি কোথায় বিক্রি করা হত? বিক্রির সঙ্গে কারা জড়িত সেই বিষয়ে কোনও তথ্য সংগ্রহ করতে পারেনি পুলিশ।

First published: 05:19:46 PM May 16, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर