সিনেমার বাস্তব, স্পেশাল ২৬-এর আদলে ভুয়ো সিআইডি অফিসারদের হানা উলুবেড়িয়ায়

Jun 14, 2017 06:27 PM IST | Updated on: Jun 14, 2017 06:27 PM IST

#হাওড়া: জাল ডাক্তার, আইনজীবীর পর এবার জাল CID অফিসার। ভুয়ো ডাক্তার ধরতে গিয়ে, ধরা পড়ে গেল ভুয়ো CID অফিসাররাই। উলুবেড়িয়ার ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করল CID। শিলিগুড়ির ফাঁসিদেওয়ায় সার ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে, গ্রেফতার আরও তিন ভুয়ো CID অফিসার। ধৃতদের মধ্যে একজন প্রাক্তন RPF জওয়ান।

ফারাক শুধু এক জায়গায়। বাকি গল্প প্রায় এক। নিরাজ পাণ্ডের সিনেমায় এই চারজন CBI অফিসারের ভুয়ো পরিচয় বিভিন্ন জায়গায় হানা দিতেন। ভয় দেখিয়ে লুঠ করতেন লক্ষ লক্ষ টাকা। বাস্তবে একইভাবে লুঠপাট চালাতে গিয়ে, রাজ্যের একাধিক জায়গায় ধরা পড়ল কয়েকজন ভুয়ো CID অফিসার।

সিনেমার বাস্তব, স্পেশাল ২৬-এর আদলে ভুয়ো সিআইডি অফিসারদের হানা উলুবেড়িয়ায়

Movie Still Taken from google

উলুবেড়িয়ার মহিশালির বাসিন্দা সুধাংশু মণ্ডল পেশায় ফার্মাসিস্ট। ১০জুন সিআইডি অফিসার পরিচয় দিয়ে কয়েকজন তাঁর চেম্বারে আসে। অবৈধভাবে চিকিৎসা করার অভিযোগ তুলে জেরা করা হয় শুভ্রাংশু মণ্ডলকে। বাড়িতে তল্লাশির নামে লুঠ করে কয়েক লক্ষ টাকা।

ফের ফোন আসায় সন্দেহ বাড়ে সুধাংশু মণ্ডলের। ভবানীভবনে যোগাযোগ করেন তিনি। এক অভিযুক্তের ফোন ট্যাপ করেন তদন্তকারীরা। ধরা পড়তে থাকে একের পর এক জাল সিআইডি অফিসার।

উলুবেড়িয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় কৃষ্ণ শর্মা, অমিয় চক্রবর্তী, শেখ আশরাফকে। জগন্নাথ রায়কে বারাসত ও প্রদীপ পাহাড়িকে তারকেশ্বর থেকে গ্রেফতার করা হয়। এরই মধ্যে জাল CID অফিসারের চক্রে জড়িয়ে গেল নোটবাতিলের ইস্যুও।

শিলিগুড়িতেও ছড়িয়েছে ভুয়ো সিআইডি অফিসারদের জাল। ২৫ মে ফাঁসিদেওয়ার চটের হাট এলাকায়, সার ব্যবসায়ী মেহবুব আলমের দোকান ও গুদামে হানা দেয় কয়েকজন। ব্যবসা সংক্রান্ত ঠিকঠাক কাগজ দেখাতে না পারায়, তাঁর কাছে ২০ লক্ষ টাকা দাবি করা হয়। শেষমেশ এক লক্ষ দশ হাজার টাকা দিতে পারেন ব্যবসায়ী। এরপরও বারবার ফোন করে টাকা চাওয়া হয়।

ভুয়ো সিবিআই অফিসারদের কথা মতো মঙ্গলবার চটের হাটে টাকা দিতে যান ব্যবসায়ী। সঙ্গে ছিলেন CID অফিসাররা। হাতেনাতেই ধরা পড়ে প্রাক্তন RPF জওয়ান সুবোধ রায়, ফল ব্যবসায়ী ভরত দাস ও গাড়ির চালক রঞ্জিত চৌধুরী। আরও কয়েকজনের খোঁজে চলছে তল্লাশি।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES