ডাক্তার হওয়ার লক্ষ্যে খুলতে হল অন্তর্বাস, জিনস

May 08, 2017 10:23 AM IST | Updated on: May 08, 2017 10:25 AM IST

#কান্নুর: ডাক্তার হতে হলে পাশ করতে হয় কঠিন পরীক্ষায় ৷ কিন্তু এমন কঠিন হবে তা বোধহয় স্বপ্নেও কেউ ভাবেননি ৷ পরীক্ষায় বসতে হলে খুলতে হবে অন্তর্বাস ৷ খুলে ফেলতে হবে পরনের জিনস ৷ মেডিক্যালের অভিন্ন প্রবেশিকা NEET দিতে এসে অদ্ভুত ‘হেনস্থা’ ৷ কেরলের কান্নুর জেলায় মেডিক্যালের অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা দিতে এসে এমনই অদ্ভুত নির্দেশের মুখোমুখি হলেন পড়ুয়ারা ৷ পরীক্ষা কেন্দ্রে এর আগে ঘড়ি-মোবাইল ফোন-গয়নার উপর ব্যানের কথা শোনা গিয়েছে ৷ কিন্তু মহিলাদের অন্তর্বাস থেকে জিনস এমনকি লম্বা হাতার টপ পর্যন্ত নিষিদ্ধ করার নজির গড়ল কান্নুরের এক পরীক্ষাকেন্দ্র ৷

ডাক্তারি পড়ার স্বপ্ন নিয়ে সারাবছর দিন রাত এক করে NEET-এর জন্য তৈরি হয়েছিলেন স্বাথী নটরাজন ৷ কিন্তু পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছে যে পরিস্থিতির মুখোমুখি হন, তাই জন্য একেবারেই প্রস্তুত ছিলেন না নটরাজন ৷ সিকিউরিটি চেকিংয়ের সময় তাঁকে টপ খুলে দেখাতে হয় ৷ এমনকী তাতেও সন্তুষ্ট না হওয়ায় সিকিউরিটি অফিসার তাঁকে অন্তর্বাস খুলে বাইরে রেখে আসতে বলেন ৷ হতভম্ব স্বাথী কারণ জিজ্ঞেস করলে জানানো হয় ধাতব কোনও জিনস পরীক্ষাকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি নেই ৷ অন্তর্বাসের হুকটি ধাতব পদার্থ দিয়ে তৈরি ৷

ডাক্তার হওয়ার লক্ষ্যে খুলতে হল অন্তর্বাস, জিনস

অনন্যা স্বামীনাথনের অভিজ্ঞতাও একইরকম ৷ অন্তর্বাস পরীক্ষাহলের বাইরে জমা রাখার পর তাঁকে জিনসের ধাতব বোতামে আপত্তি থাকায় পরনের জিনস খুলে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয় ৷ বোতাম ছিঁড়ে ফেললে নতুন করে জিনসের পকেট নিয়ে আপত্তি জানানোয় শেষ পর্যন্ত জিনস খুলেই অনন্যাকে পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢুকতে বাধ্য করা হয় বলে অভিযোগ ৷ মেয়ের লজ্জা ঢাকতে অনন্যা স্বামীনাথনের বাবা প্রায় ৪ কিমি হেঁটে মেয়ের জন্য একটি লেগিংস কিনে আনেন ৷

অনন্যা, স্বাথী কোনও বিচ্ছিন্ন অভিজ্ঞতার অভিযোগ করেননি ৷ ওই পরীক্ষাকেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে এসে এমন অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন প্রায় হাজারখানেক পড়ুয়া ৷ পরীক্ষাকেন্দ্রের গেটেই অন্তর্বাস খুলে সঙ্গে আসা অভিভাবকের কাছে জমা রাখতে মিলেছে তবে ভেতরে যাওয়ার অনুমতি ৷ পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, কাউকে তো আবার কাঁচি দিয়ে নিজের কুর্তি-টপের লম্বা হাতা কেটে পরীক্ষা দিতে বসতে হয় ৷

পরীক্ষাকেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক জানিয়েছেন, নকল রুখতেই এই ব্যবস্থা ৷ মেটাল ডিটেকটারে মেটাল জিনিস যা ধরা পড়ছে তা পরীক্ষা হলে নিষিদ্ধ ৷ কর্তৃপক্ষের নির্দেশিকা মেনেই তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে দাবি ৷

যদিও পরীক্ষার্থীরা জানিয়েছে, অ্যাডমিট বা পরীক্ষাকেন্দ্রে কোথাও লিখিতভাবে অন্তর্বাস বা পরনের পোশাক নিষিদ্ধ করার কথা জানানো হয়নি ৷ পরীক্ষা দিতে এসে এই অদ্ভুত ফতোয়ায় ক্রুদ্ধ পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা ৷ যদিও পরীক্ষা বাতিল হয়ে যাওয়ার ভয়ে কেউ কোনও প্রতিবাদ করেননি৷

রবিবার সারা দেশই ছিল মেডিক্যালের অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা অর্থাৎ NEET (ন্যাশনাল এলিজেবিলিটি কাম এনট্রান্স টেস্ট) পরীক্ষা । দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলিতে অ্যাডমিশনের জন্য চলতি বছর থেকেই চালু হয়েছে এই পরীক্ষা ৷

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES