উত্তরপ্রদেশে কসাইখানা বন্ধের প্রতিবাদ জানিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটে মাংসবিক্রেতারা

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Mar 27, 2017 09:52 AM IST
উত্তরপ্রদেশে কসাইখানা বন্ধের প্রতিবাদ জানিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটে মাংসবিক্রেতারা
Photo : AFP
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Mar 27, 2017 09:52 AM IST

#লখনউ: শপথ গ্রহণের দু’দিনের মধ্যেই বিজেপির নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণে উদ্যোগী হয়েছিলেন নয়া মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ৷ অবিলম্বে বেআইনী কসাইখানা ও গরু পাচার বন্ধের জন্য রাজ্য পুলিশকে অ্যাকশন প্ল্যান তৈরির কড়া নির্দেশ দেন যোগী ৷ সরকারের নির্দেশ মেনে বন্ধ করে দেওয়া হয় রাজ্যের একাধিক মাংসের দোকান ৷

মুখ্যমন্ত্রীর এই নির্দেশের প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন গো বলয়ের মাংস বিক্রেতারা। মৎস্যবিক্রেতারাও এই প্রতিবাদ যোগ দিতে চেলেছে বলে জানা গিয়েছে ৷

বেআইনী কসাইখানা বন্ধ করার জেরে লখনউয়ের বিভিন্ন হোটেলে তৈরি হচ্ছে না টুন্ডে কাবাব৷ কাবাব বিক্রেতারা জানিয়েছেন, ‘টুন্ডে কাবাব লখনউয়ের ঐতিহ্য ৷ আর মাংসই যদি পাওয়া না যায়, তাহলে কীভাবে তৈরি হবে কাবাব ৷ আমরা ব্যবসাও কীভাবে চালাব ৷’ এর জেরে গো মাংসের পরিবর্তে চিকেন ও মাটনের কাবাব বিক্রি হচ্ছে।

নির্বাচনের আগে দুগ্ধ শিল্প ক্ষতির মুখে পড়ছে এই যুক্তিতে গরুপাচার বন্ধ করতে চেয়েছিল বিজেপি ৷ রাজ্যে নির্বাচনী প্রচারের সময় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলেছিলেন, ক্ষমতায় এলে সমস্ত কসাইখানা বন্ধ করে দেওয়া হবে ৷

ফলে ক্ষমতায় আসার পর সেই প্রতিশ্রুতি পূরণে বদ্ধ পরিকর নতুন মুখ্যমন্ত্রী। বিভিন্ন জেলায় এখন অভিযান চালানো হচ্ছে ৷ একের পর এখ কসাইখানা বন্ধ করে দেওয়ায় ব্যবসায় বিপুল পরিমান ক্ষতির মখে পড়তে হয়েছে মাংস ব্যবসায়ীদের ৷ এর প্রতিবাদ জানিয়েই তারা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন ৷

বিজেপির মুখপাত্র জানিয়েছেন, আইনমেনেই কসাইখানা বন্ধ করা হচ্ছে ৷ এটা ধর্মীয় কারণে নয় বরং রাজ্যের মানুষের স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে ৷ অন্যদিকে,  কংগ্রেস নেতা অখিলেশ প্রতাপ সিং জানিয়েছেন, এই অভিযোনে কেবল ক্ষুদ্র মাংস বিক্রেতাদের টার্গেট করা হচ্ছে ৷

First published: 09:52:22 AM Mar 27, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर