পেটে ঘন ঘন ব্যথা ? আপনার ‘ডিসপেপসিয়া’ হয়নি তো ?

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jul 21, 2017 07:23 PM IST
পেটে ঘন ঘন ব্যথা ? আপনার ‘ডিসপেপসিয়া’ হয়নি তো ?
Photo : AFP
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jul 21, 2017 07:23 PM IST

#কলকাতা: পেট ব্যথা এবং পেট খারাপ ৷ এই দুই সমস্যা তো যে কোনও মানুষেরই হয় ৷ তবে এই সমস্যা যদি ঘন ঘন হতেই থাকে তাহলে অবশ্যই চিন্তার কারণ রয়েছে ৷ এর চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেরি করবেন না ৷ দৈনন্দিন ব্যস্ত জীবনে শরীর-চর্চা অনেকের পক্ষেই করা সম্ভব হয় না ৷ এর পাশাপাশি অলসতা তো রয়েছেই ৷ অফিসে বসে বসে কাজের পাশাপাশি অসময় খাবার খাওয়া, ফাস্ট-ফুড বা ঘনঘন কফি-সিগারেট খাওয়া ৷ কোনওটাই যে পেটের জন্য খুব ‘উপকারি’ নয়, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না ৷ এছাড়া পেটে একটু ব্যথা হলেই নিজের ডাক্তারি করাও লেগে থাকে ৷ হাজার রকম ওষুধ খাওয়ার পরেও পেটে বাসা বেঁধেছে যে রোগ, তার নাম ‘ডিসপেপসিয়া’ ৷ গ্যাস-অম্বল-বদহজম এর নিত্যসঙ্গী ৷

ডিসপেপসিয়া কেন হয় ?

কিছু মানুষের পাকস্থলী অত্যন্ত সেনসিটিভ ৷ কিছু অনিয়ম হলেই ডিসপেপসিয়া দেখা যেতে পারে ৷ এছাড়া সঠিক পরিমাণমতো না খাওয়াটাও একটা কারণ ৷ খাবার অনেকক্ষণ না খেলে বা খাবার খাওয়ার পরপরই শুরু হয় বুকের নীচে বা পেটের উপরের অংশে ব্যথা ৷ অনেকক্ষণ পেট খালি রাখলেও এই সমস্যা দেখা দিতে পারে ৷ কিছু ক্ষেত্রে চর্বিজাতীয় খাবার হজমে অসুবিধা হয় ৷ তৈলাক্ত খাবার বেশি খেলে পেট ফুলতে শুরু করে ৷ মহিলাদের গর্ভাবস্থাতেও ডিসপেপসিয়া হয় ৷ এছাড়া খালি পেটে মদ খাওয়া , তার সঙ্গে সিগারেট যোগ হলে তো কথাই নেই ৷ পাকস্থলী সেনসিটিভ হলে সমস্যা অবধারিত ৷

গ্যাস, অম্বল, টক ঢেঁকুর, পেটভার, পেট ফুলতে থাকা, গা বমি ইত্যাদি উপসর্গগুলি দেখা দিলেই বুঝতে হবে ডিসপেপসিয়া হয়েছে ৷ এমন বিষয়গুলো বছরে দু-চারবার প্রত্যেকেরই হয় ৷ কিন্তু লাগাতার হতে থাকলে সত্যি চিন্তার বিষয় ৷ ডিসপেপসিয়া হলে এমনিতে ভয়ের কিছু নেই ৷ কিন্তু বয়স ৫০-র বেশি হলে, খাবার গিলতে কষ্ট হলে , চেষ্টা ছাড়াই ওজন কমতে শুরু করলে, জ্বর অথবা জন্ডিস হলে, বা কোনও কারণ ছাড়াই অ্যানিমিয়া হলে তখন কিছু পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া উচিৎ ৷

যে খাবারে অস্বস্তি বাড়ে তা খাবেন না ৷ সাধারণত দুধ, চর্বিযুক্ত বা তৈলাক্ত খাবার, ভাজা, প্যাকেটের ফলের রস, টক, বাদাম ইত্যাদি না খাওয়াই ভাল ৷ একবারে অনেকটা খেতে পারেন ৷ আবার একটু একটু করে নিয়মিত সময়ের ব্যবধানে খাবার খান ৷ তাই বলে অনবরত টুকটাক মুখোরোচক খাবার না খাওয়াই ভাল ৷ রাতে খাবার বেশি দেরি করে খাবেন না ৷ আর খেয়েই শুয়ে পড়াটা অত্যন্ত খারাপ লক্ষণ ৷ এই সমস্ত বিষয়গুলি মেনে চলতে পারলে ডিসপেপসিয়া থেকে তাড়াতাড়ি মুক্তি পাওয়া সম্ভব ৷

First published: 07:22:05 PM Jul 21, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर