মনোহরেই আস্থা বিজেপির, ইস্তফা দিচ্ছেন না হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Aug 26, 2017 06:03 PM IST
মনোহরেই আস্থা বিজেপির, ইস্তফা দিচ্ছেন না হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী
File Photo
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Aug 26, 2017 06:03 PM IST

#নয়াদিল্লি: হিংসা নিয়ন্ত্রণে চূড়ান্ত ব্যর্থতার জন্য আদালতের তীব্র,তীক্ষ্ন ভর্ৎসনা ! তারপরও হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টরেই আস্থা বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের।

দলীয় সূত্রে খবর, ডেরা-ভক্তদের বেলাগাম তাণ্ডবের দায় নিয়ে এখনই সরতে হচ্ছে না খট্টরকে। কারণ তাহলে ভুল বার্তা যাবে বাবা গুরমিত রাম রহিমের সমর্থকদের কাছে। আর হাত শক্ত হবে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের।

শুক্রবার ডেরা সচ্চা সওদার ধর্মগুরু বাবা গুরমিত রাম রহিম সিং ইনসানকে একটি ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেছে পাঁচকুলার বিশেষ সিবিআই আদালত। এরপরই অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে হরিয়ানা, পঞ্জাব,রাজস্থান, দিল্লি ও উত্তরপ্রদেশ। সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। ডেরা অনুগামীদের তাণ্ডব নিয়ে এদিন চাঁছাছোলা ভাষায় হরিয়ানা সরকারকে বিঁধেছে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট।

 কাঠগড়ায় খট্টর-প্রশাসন

রাজনৈতিক স্বার্থেই পাঁচকুলাকে জ্বলতে দেওয়া হয়েছে ৷ ডেরা ভক্তদের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে প্রশাসন ৷ পরিস্থিতিকে হাতের বাইরে যেতে দিয়েছে রাজ্য ৷------মন্তব্য পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের

হরিয়ানার পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। তাতে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব এবং গোয়েন্দাসংস্থা আইবি-র প্রধান। বৈঠক থেকে বেরিয়েই হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টরকে কার্যত ক্লিনচিট দেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব।

একশো চুয়াল্লিশ ধারা জারি করার পরও কীভাবে পাঁচকুলার আদালত চত্বরে লক্ষাধিক ডেরা অনুগামীরা কীভাবে ঢুকে পড়লেন, তা নিয়ে আগেই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। প্রশাসনিক ব্যর্থতার অভিযোগ ঢাকতে শনিবার একগুচ্ছ সাফাই দিয়েছেন হরিয়ানার মুখ্যসচিব।

পিঠ বাঁচাতে সাফাই

আদালত চত্বরে বহু মানুষের জমায়েত ছিল ৷ অত লোক দেখে পুলিশকর্মীরা ঘাবড়ে যান ৷ উন্মত্ত জনতার তাড়া খেয়ে পিছু হটে পুলিশ ৷ ৩ ঘণ্টার মধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসে ৷ ডেরা-ভক্তদের চণ্ডীগড় পর্যন্ত যেতে দেওয়া হয়নি ৷----সাফাই হরিয়ানার মুখ্যসচিবের

হিংসা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার জন্য হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টরকে ছেঁটে ফেলার প্রস্তুতি নিয়েছিল বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। খট্টরকে দিল্লিতে তড়িঘড়ি তলবও করা হয় দলের পক্ষ থেকে। কিন্তু বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের একটি অংশ তাতে বেঁকে বসে। কারণ তাঁদের যুক্তি,

এখনই খট্টরকে সরালে ভুল বার্তা যাবে ৷ বিজেপি থেকে মুখ ফেরাবে ডেরা ভক্তরা ৷ হাতছাড়া হবে নিশ্চিত 'ভোটব্যাঙ্ক' ৷ খট্টরের অপসারণ শক্তি যোগাবে বিরোধীদের ৷

বিজেপি সূত্রে দাবি, মনোহরলাল খট্টরকে রাজধর্ম পালনের নির্দেশ দিয়েছেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তাই এখনই গদিচ্যুত হতে হচ্ছে না হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীকে।

First published: 05:00:04 PM Aug 26, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर