ছিল না ডেথ সার্টিফিকেট, ১৪টি মৃতদেহ মেডিক্যাল কলেজে দান করেছিলেন ধর্ষক বাবা রাম রহিম

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Sep 09, 2017 02:02 PM IST
ছিল না ডেথ সার্টিফিকেট, ১৪টি মৃতদেহ মেডিক্যাল কলেজে দান করেছিলেন ধর্ষক বাবা রাম রহিম
File Photo: Baba Ram Rahim
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Sep 09, 2017 02:02 PM IST

#রোহতক: আদালতের রায়ের পর এখন শ্রীঘরই বাবার নয়া ডেরা। স্বঘোষিত ধর্মগুরু। ভক্তদের প্রিয় বাবা। বিশেষ সিবিআই আদালতের রায়ে ডেরা ছাড়া হয়েছেন গুরমিত রাম রহিম। আপাতত দু'হাজার সাঁইত্রিশ সাল পর্যন্ত জেলেই ঠাঁই। কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক এখন দিনমজুরি পাবেন চল্লিশ টাকা। বাবার সাজা ঘোষণার পর থেকেই তার বিরুদ্ধে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এসেছে ৷

গত দু’দিন ধরে ডেরায় তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে নিরাপত্তবাহিনী ৷ সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একটি রিপোর্টে জানানো হয়েছে, লখনউয়ের জিসিআরজি ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেস ডেরা থেকে ১৪টি মৃতদেহ পাঠানো হয়েছিল ৷ আশ্চর্যের বিষয়ে কোনও মৃতদেহেরই কোনও ডেথ সার্টিফিকেট ছিল না ৷ উত্তরপ্রদেশ সরকারকে এই বিষয়ে একটি নোট পাঠিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ৷

প্রশ্ন উঠেছে কী করে একটি মেডিক্যাল কলেজে কোনও ডেথ সার্টিফিকেট ও অনুমতি ছাড়ায় মৃতদেহ নিতে পারে ৷ ঘটনার তদন্তে গড়া হয়েছে একটি কমিটি ৷

মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার একটি দল ১৬ অগাস্ট হাসপাতাল ঘুরে দেখে। অ্যানাটমি বিভাগে ১৪টি শীর্ণ লাশ পায় তারা। অথচ ৬ জানুয়ারি যখন তারা পরিদর্শনে আসে তখন সেখানে মাত্র এখটি লাশ ছিল ৷

রাম রহিমের ভক্তদের দেহ অনেক সময় মেডিক্যাল কলেজে দান করা হয়ে থাকত ৷ কিন্তু কেন তাদের কোনও ডেথ সার্টিফিকেট ছিল না ৷ পরিষ্কার নয় তাদের মৃত্যুর কারণ ৷ নিয়ম অনুযায়ী, ডেথ সার্টিফিকেট ও পরিবারের অনুমতি পত্র ৷ এছাড়াও কী করে মেডিক্যাল কলেজে মৃতদেহগুলি নেয় ?

First published: 01:58:31 PM Sep 09, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर