কেন্দ্রের গবাদি পশু নি‍র্দেশিকার জেরে রাজ্য ছাড়তে পারে একাধিক ফ্যাশন ব্র্যান্ড

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:May 29, 2017 07:20 PM IST
কেন্দ্রের গবাদি পশু নি‍র্দেশিকার জেরে রাজ্য ছাড়তে পারে একাধিক  ফ্যাশন ব্র্যান্ড
Photo : AFP
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:May 29, 2017 07:20 PM IST

#কলকাতা: চাষের কাজ ছাড়া পশুবাজারে কেনা যাবে না গরু, মোষ, বলদ, বাছুর এমনকি উটও। কেন্দ্রের তরফে ইতিমধ্যেই জারি হয়েছে নির্দেশিকা ৷ এই নির্দেশিকার জেরেই রাজ্য তথা কলকাতা ছেড়ে বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং চীনে চলে যেতে পারে গুচি, নাইন ওয়েস্ট, জারা এবং মার্কস এ্যান্ড স্পেনসার্সের মতো প্রথম সারির একাধিক ফ্যাশন ব্র্যান্ড ৷

গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রকের তরফে একটি নির্দেশিকা জারি করে জানানো হয়, দেশের কোনও জায়গাতেই এবার থেকে গরু, মোষ-সহ গবাদি পশুকে হত্যা বা বিক্রি করা যাবে না ৷ পশুকল্যাণের হিতেই এই নতুন নিয়ম জারি করা হয়েছে ৷ বাজারে গবাদি পশু আনতে গেলে আগাম অনুমতি পত্র লাগবে ৷ যদি কেউ গরু বা মোষ কিনতে চান তাহলে তাকে সঠিক পরিচয় পত্র দিতে হয়ে যে সে পেশায় কৃষক ৷ কেন্দ্রের এই নির্দেশিকাতেই চামড়া যোগানে টান পড়তে চলেছে গোটা দেশ সহ পশ্চিমবঙ্গে ৷ আর এতেই ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কা করছে ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলি ৷

কেন্দ্রের এই ফরমানের জেরে দেশজুড়ে সঙ্কটের মুখে ৮০ হাজার কোটির চামড়া শিল্প। দেশের চামড়াজাত পণ্যের সিংহভাগের যোগান বাংলা থেকেই যায় ৷ বছরে পশ্চিমবঙ্গের লেদার ইন্ডাস্ট্রি থেকে আয় হয় প্রায় ১৩ হাজার কোটি টাকা ৷ কলকাতার বাসন্তী হাইওয়ের পাশে অবস্থিত ৫০০-এরও বেশি ট্যানারিতে কর্মরত লক্ষাধিক মানুষের চাকরি হারানোর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে ৷

-রাজ্যে কাজ হারাতে পারেন ৫০ হাজার শ্রমিক ও কারিগর

-খাদ্য ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণে যুক্ত শ্রমিকদেরও চাকরি হারানোর আশঙ্কা

-রাজ্য থেকে বছরে ১৩ হাজার কোটি চর্মজাত পণ্য রফতানি

-এর সঙ্গেও জড়িয়ে ৬০ হাজার মানুষ

-এখানেও বিপুল ক্ষতির আশঙ্কায় শিল্পমহল

আরও পড়ুন 

কেন্দ্রের গবাদি পশু নি‍র্দেশিকা মানবে না রাজ্য, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

এই নির্দেশিকা মানা হলে প্রথম সারির ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলির প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হবে ৷ কাউন্সিল অফ লেদার এক্সপোর্ট-এর সভাপতি মহম্মদ জিয়া নাফিস জানালেন,ইওরোপ ও আমেরিকার ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিতে কলকাতা ট্যানারির প্রস্তুত করা চামড়ার চাহিদা বিপুল ৷ এখানে ১৩ থেকে ২৭ বিলিয়ন বিনিয়োগ করা হয় ৷

1423492715_modnie-sumki-vesna-leto-2015

লেদার গ্লাফস বা দস্তানার রপ্তানির দায়িত্বে থাকা গোপাল কুমার নরেদি জানালেন, দেশের মধ্যে কলকাতাতেই শুধুমাত্র চামড়া দস্তানা তৈরি হয় ৷ চামড়ার যোগান বন্ধ হয়ে গেলে ২ হাজার কোটি টাকার ব্যবসা সম্পূর্ণ ধসে পড়বে ৷ ব্যবসা বাঁচিয়ে রাখতে দক্ষিণ আফ্রিকাতে পশুর চামড়া আমদানি করা হলে প্রোডাকশন কস্ট দ্বিগুণ বেড়ে যাবে ৷ ফলে চামড়াজাত পণ্যের দাম সাংঘাতিকভাবে দাম বাড়বে ৷

বর্তমানে চামড়ার যোগানের বিস্তারিত জানতে চেয়ে মার্কস এ্যান্ড স্পেনসার লন্ডনের অফিস থেকেও ফোন এসেছে বলে জানিয়েছেন কাউন্সিল অফ লেদার এক্সপোর্ট-এর সভাপতি মহম্মদ জিয়া নাফিস ৷ কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তে রাজ্য থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে গুচি, নাইন ওয়েস্ট, জারার মতো ফ্যাশন লাইনগুলি ৷

তবে এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছেন, কেন্দ্রের নির্দেশিকা মানা হবে না। আইনি লড়াইয়ের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধানের এই ঘোষণা খানিকটা হলেও লেদার ইন্ডাস্ট্রি স্বস্তি ফিরিয়েছে ৷ তবে গুচি, নাইন ওয়েস্ট, জারা এবং মার্কস এ্যান্ড স্পেনসার্সের মতো ফ্যাশন ব্র্যান্ড বাংলার হাতছাড়া হবে কিনা তা জানতে এখনও বেশ কিছুটা সময়ের অপেক্ষা ৷

First published: 07:19:40 PM May 29, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर