২০১৭-তে ভারতের অর্থনীতির ‘বিকাশ’, দাবি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 01, 2017 01:55 PM IST
২০১৭-তে ভারতের অর্থনীতির ‘বিকাশ’, দাবি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির
Photo : AFP
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 01, 2017 01:55 PM IST

#নয়াদিল্লি: বছরের শুরুতেই নতুন বছরের অর্থনীতি প্রসঙ্গে মন্তব্য করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি ৷ নতুন বছরকে ভারতের অর্থনীতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সাল বলে ঘোষণাও করেন অর্থমন্ত্রী জেটলি ৷ রবিবার এই প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘ভারতের অর্থনীতির ক্ষেত্রে ২০১৭-এ বিকাশ ঘটবে ৷ ’

নতুন বছরের অর্থনীতি নিয়ে বলতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি রবিবার জানান, ‘ভারতের অর্থনীতির দ্রুত বিকাশ হচ্ছে ৷ গতবছরের তুলনায় এবছর বৃদ্ধির হার বেশি ৷ বিকাশের ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে ৷ বর্তমানে দেশে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে ৷ সুদের হার ধারাবাহিকভাবে কমছে৷ বিমুদ্রাকরণের গতি খুবই ভাল ৷ আগামীদিনে এই সিদ্ধান্ত যথেষ্ট সুফল দেবে ৷ ’

জেটলির কথায়, ‘২০১৭ সাল ভারতের একটি গুরুত্বপূর্ণ বছর ৷ একই বছরে চালু GST ও ডিজিটাল অর্থনীতি ৷ কালো টাকা সহ বড় অঙ্কের টাকা ৷ ব্যাঙ্কিং অর্থনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ৷ এটা ব্যাঙ্কের ঋণদান ক্ষমতাও বাড়াবে ৷ ’

অন্যদিকে, নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণের পর নড়ে গিয়েছিল গোটা দেশ ৷ আচমকাই পুরোনো ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী ৷ সেই ঘোষণার পর প্রায় দু’মাস হতে চললেও নোট সমস্যার সমাধান এখনও হয়নি গোটা দেশে ৷ বিপুল পরিমাণে নোট ব্যাঙ্কে জমা পড়লেও এখনও নতুন নোট প্রয়োজন মতো পাচ্ছেন না সাধারণ মানুষ ৷ টাকা তোলার ঊর্ধ্বসীমা রয়েছে ৷ এছাড়া রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের একের পর এক সিদ্ধান্ত বদল ৷ এত কিছুর পর আজ, শনিবার বর্ষবরণের রাতে আবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী ৷ আবার কি নতুন ঘোষণা করেন মোদি, তা জানার জন্য এদিন নববর্ষের উৎসবে সামিল হওয়ার চেয়েও প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্রতিই বেশি উৎসাহ ছিল দেশবাসীর। ভাষণ শেষ হওয়ার পর অবশ্য দেশবাসীর কাছে নতুন বছরের বেশ কিছু উপহারই তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী ৷ তাতে গৃহ ঋণ ও কৃষি ঋণে ছাড় অন্যতম ৷

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় নতুন বাড়ির জন্য দুটি নতুন স্কিম আনতে চলেছে সরকার ৷ শহরের জন্য ৯ লক্ষ টাকা গৃহঋণে ৪ শতাংশ ও ১২ লক্ষ টাকায় ৩ শতাংশ ছাড় দেওয়া হবে ৷ অন্যদিকে গ্রামের মানুষের জন্য ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত গৃহঋণে ৩ শতাংশ ছাড় দেওয়ার কথা এদিন ঘোষণা করেন মোদি ৷ যে কৃষক খারিফ-রবি শস্যের জন্য ঋণ নিয়েছিলেন তাদের ৬০ দিনের সুদ সরকার বহন করবে ও তাদের অ্যাকাউন্টে সেই টাকা ট্রান্সফার করা হবে ৷ তিনমাসের মধ্যে ৩ কোটি কিষাণ ক্রেডিট কার্ডকে ‘রুপে কার্ডে’ রূপান্তরিত করা হবে। এর মাধ্যমেই লেনদেন হবে, কৃষককে ব্যাঙ্কে যেতে হবে না। এছাড়া ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ক্রেডিট গ্যারান্টি ১ কোটি টাকা থেকে ২ কোটি টাকা করা হবে ৷ সরকারি ও বেসরকারি ব্যাঙ্কগুলো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ঋণ দেবে। যার গ্যারান্টি নিচ্ছে সরকার ৷

পাশাপাশি মোদি এদিন জানান, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য নগদ লেনদেন ২০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৩০ শতাংশ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৷ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে আগে ৮ শতাংশ লাভ ধরে কর নেওয়া হত। এবার তাদের ক্ষেত্রে ডিজিটাল লেনদেনে ৬ শতাংশ লাভ ধরে কর নেওয়া হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী ৷

First published: 01:54:38 PM Jan 01, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर