স্পেশ্যাল বিমানে মুম্বই এলেন বিশ্বের সবচেয়ে স্থুলকার মহিলার

Feb 11, 2017 02:50 PM IST | Updated on: Feb 11, 2017 02:50 PM IST

#মুম্বই: ওজনের ভারে দীর্ঘদিন কাবু। হাঁটা, চলার ক্ষমতা নেই। ২৫ বছর ঘরবন্দি। ওজন কমাতে চেষ্টার কসুর ছিল না। কিন্তু পাঁচশো কেজি ওজন কমা তো মুখের কথা নয়। তবু হাল ছাড়েননি ইজিপ্টের বাসিন্দা ইমন আহমেদ। আর তাই এবার ওজন কমাতে বিশেষ ব্যবস্থায় আজ ভোরেই ইজিপ্ট থেকে বিমানে ভারতে পৌঁছলেন বছর ছত্রিশের ইমন। সেখান থেকে বিশাল ট্রাকে স্পেশাল বেডে শুয়ে হাসপাতালের গেট। গেট থেকে ক্রেনে করে স্পেশাল ওয়ার্ডে। শুরু হয়েছে ওয়েট লস ট্রিটমেন্ট।

ওজন কমাতে জান কবুল। উদাহরণ তো চোখের সামনেই। সঙ্গীতশিল্পী আদনান স্বামী থেকে আরও অনেকে। ওজন কমাতে এবার জীবনের ঝুঁকি নিয়েই ভারতে এলেন বিশ্বের অন্যতম ওজনদার মহিলা ইমন আহমেদ। ইজিপ্টের এই বাসিন্দার ওজন মাত্র পাঁচশো কেজি।

স্পেশ্যাল বিমানে মুম্বই এলেন বিশ্বের সবচেয়ে স্থুলকার মহিলার

শনিবার ভোর চারটে। ইজিপ্ট থেকে মুম্বই পৌঁছলেন ৩৬ বছরের ইমন আহমেদ। বিশেষ ধরণের খাটে শুয়ে , পোর্টেবল ভেন্টিলেটর, ডিফাইব্রিলেটর, অক্সিজেন সিলিন্ডার-সহ বিভিন্ন জীবনদায়ী ব্যবস্থায় ভারতে এলেন শুধুমাত্র ওজন কমাতে।

বিমানবন্দর থেকে ট্রাকে করে তাঁকে আনা হয় সাইফি হাসপাতালে। কিন্তু ৫০০ কেজি ওজনের ইমনকে কিভাবে ভেতরে ঢোকানো হবে? তার  ব্যবস্থাও তৈরি। বিশাল ক্রেনে করে খাট সমেত ইমনকে নিয়ে যাওয়া হল হাসপাতালের ভিতরে। বিশ্বের অন্যতম ওজনদার মহিলাকে দেখতে তখন হাসপাতালে চত্ত্বরে মানুষের ভিড়।

কে এই ইমন আহমেদ?

---বয়স ৩৬ ,ওজন ৫00 কেজি

----জন্মের সময় তাঁর ওজন ছিল ৫ কেজি

--এই সময়ে তাঁর শরীরে এলিফেন্টিয়াসিস রোগ ধরা পড়ে

----এর প্রভাবে শরীরে বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ মারাত্মক আকারে ফুলে যেতে থাকে

-----হাঁটাচলা, বাড়ি থেকে বেরনো বন্ধ হয়ে যায়

------বিশেষভাবে তৈরি খাটই হয়ে ওঠে দিনরাতের সঙ্গী

গত অক্টোবরে ভারতের বেরিয়াট্রিক সার্জন মুফজ্জল লাকদাওয়ালার সঙ্গে যোগাযোগ করেন ইমনের পরিবার। বিভিন্ন পরীক্ষা নীরিক্ষার পর শুরু হয় ভারতে আসার প্রস্তুতি। জার্নিটা সহজ ছিল না। সাধ্যও জবাব দিচ্ছিল। তবু ওজন কমাতে ইমনের জীবন ঝুঁকি নিয়েই ভারতগামী বিমানে উঠে বসে আহমেদ পরিবার।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন একমাস পর্যবেক্ষণে রাখার পর অস্ত্রপোচার হবে ইমনের। তবে তাতে কী ওজন কমবে? চিকিৎসকরা বলছেন, সার্জারির পর কয়েকমাস ভারতেই থাকতে হবে। তবে একশো কেজির নীচে ওজন কমিয়ে আনতে দুই থেকে তিন বছর সময় লাগবে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES