বিছানার সঙ্গে সারাদিন শিকল দিয়ে বাঁধা, বাবা মায়ের হাতেই নির্যাতিত ১৩টি শিশু

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jan 16, 2018 01:36 PM IST
বিছানার সঙ্গে সারাদিন শিকল দিয়ে বাঁধা, বাবা মায়ের হাতেই নির্যাতিত ১৩টি শিশু
Representational Image
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jan 16, 2018 01:36 PM IST

#ক্যালিফোর্নিয়া: বিদেশে শিশুদের উপর একের পর এক নিষ্ঠুরতার ঘটনা সংবাদ শিরোনামে ৷ কখনও যৌন নিগ্রহ তো অভিভাবকদের নিষ্ঠুরতা ৷ সাগরপাড়ে শিরিনের মতো ছোট্ট শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর মতো আরও একটি নৃশংস ঘটনা প্রকাশ্যে এল ৷ নিজের সন্তানদেরই সারাদিন বিছানার সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখতেন বাবা-মা ৷

ইংরেজি দৈনিকে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সানবার্নাডিনো শহরের একটি বাড়ি থেকে ১৩টি নির্যাতিত শিশুকে উদ্ধার করেছে পুলিশ ৷ অভিযোগ, ছোট ছোট শিশুগুলিকে সারাক্ষণ বিছানার সঙ্গে শিকল-চেন দিয়ে বেঁধে রাখত তাদের বাবা-মা ৷ শিশু নিগ্রহের অভিযোগে ডেভিড অ্যলেন ও তাঁর স্ত্রী লুইস অ্যান টারপিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷

Louise Anna Turpin and David Allen Turpin have been booked on torture and child endangerment charges. (Image courtesy: Riverside County Sheriff Dept) Louise Anna Turpin and David Allen Turpin have been booked on torture and child endangerment charges. (Image courtesy: Riverside County Sheriff Dept)

এই উদ্ধার হওয়া সন্তানদের মধ্যে সবচেয়ে ছোটটির বয়স দুই বছর ও বড়জন এখন ২৯-এর তরুণী ৷ বয়স নির্বিশেষে তাদের সকলের সঙ্গেই একই ব্যবহার করতেন তাদের জন্মদাতা ৷ জন্মানোর পর থেকেই তাদের প্রত্যেকে সারাদিন বিছানার সঙ্গে বেঁধে রাখা হত ৷ ঘরের বাইরে এমনকী শৌচালয় যাওয়ার সুযোগও পেতেন না কেউ ৷ প্রস্রাব চাপতে না পেরে বিছানার পাশেই শৌচকর্ম করতে বাধ্য হত ওই বন্দি শিশুগুলি ৷ বাবা-মা তাদের ঠিকমতো খেতেও দিতেন না বলে অভিযোগ করেছেন তারা ৷

জন্ম থেকে বন্দি এই ১৩টি শিশুর মধ্যে থেকে একটি ১৭ বছরের মেয়ে ফাঁক পেয়ে পালিয়ে যায় ৷ রাস্তার পথচারীদের সাহায্য নিয়ে নিকটবর্তী পুলিশ স্টেশনে পৌঁছে সমস্ত ঘটনা জানান ৷ মেয়েটির মুখে সব শুনে তৎক্ষণাৎ ওই বাড়িতে গিয়ে বন্দি বাকি শিশুদের উদ্ধার করে পুলিশ ৷

পুলিশ সূত্রে খবর, দীর্ঘদিনের বন্দি দশা এবং ঠিক মতো খেতে না পাওয়ায় শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগছে ৷ নিজেদের মল-মূত্রের মধ্যেই দীর্ঘদিন ধরে বাস করায় তাদের শরীরে বিভিন্ন সংক্রমণের প্রকোপ ঘটেছে ৷

কেন শিশুগুলির সঙ্গে এমন ব্যবহার করত তা জানতে অভিযুক্তদের জেরা করছে পুলিশ ৷ ডেভিড ও লুইসের বন্ধু-বান্ধব, জীবিকা ও আত্মীয়দের সম্বন্ধেও খোঁজ নিচ্ছে পুলিশ ৷

First published: 01:32:53 PM Jan 16, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर